বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০১:৪৮ অপরাহ্ন

উপজেলা ফায়ার স্টেশনগুলোর কাজ শেষ পর্যায়ে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

উত্তরা নিউজ। অনলাইন
  • আপডেট টাইম: রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১

দেশের প্রতিটি উপজেলায় একটি করে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন নির্মাণের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

রোববার (২৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর মিরপুর ফায়ার সার্ভিস ট্রেনিং কমপ্লেক্সে ৪১তম ব্যাচের অফিসার্স ফাউন্ডেশন কোর্সের সমাপনী কুচকাওয়াজে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান।

ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা যায়, বিসিএস নন-ক্যাডারের সুপারিশ অনুযায়ী ফায়ার সার্ভিস অধিদফতরে যোগ দেওয়া স্টেশন অফিসারসহ মোট ৪৪ জন অফিসারের প্রশিক্ষণ সমাপ্তি শেষে তাদের পদায়নের আগে এই সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হলো। দীর্ঘ ১১ মাসের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের সব দুর্যোগে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য যোগ্য করে গড়ে তোলা হয়।

সমাপনী অনুষ্ঠানে ৪৪ জন অফিসারের মধ্য থেকে শারীরিক যোগ্যতা, বুদ্ধিমত্তা, শিষ্টাচার, শৃঙ্খলা, আচার-ব্যবহার, লিখিত পরীক্ষা, ব্যবহারিক এবং মৌখিক পরীক্ষাসহ বিভিন্ন বিষয়ের ওপর দক্ষতার ভিত্তিতে তিন জনকে চৌকস নির্বাচিত করা হয়। ১ম চৌকস নির্বাচিত হন শেখ তরিকুল ইসলাম, ২য় চৌকস হন খন্দকার মিরাজুল ও ৩য় চৌকস নির্বাচিত হন মিল্টন আহমেদ। নির্বাচিত চৌকস অফিসারদের পদক পরিয়ে দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এসময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেশের প্রতিটি উপজেলায় একটি করে ফায়ার স্টেশন স্থাপনের কাজ এখন শেষ পর্যায়ে রয়েছে।

তিনি বলেন, আমাদের ক্ষমতা গ্রহণের আগে দেশে ফায়ার স্টেশন ছিল মাত্র ২০৪টি। এখন সারা দেশে চালু ফায়ার স্টেশন ৪৫৬টি। চলমান প্রকল্পগুলো শেষ হলে ফায়ার স্টেশনের সংখ্যা হবে ৫৬৫টি এবং জনবলের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়াবে ১৬ হাজার।

তিনি বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন অনুযায়ী এ জনবলকে ২৫ হাজারে উন্নীত করার জন্য ফায়ার সার্ভিসের সাংগঠনিক কাঠামো পুনর্গঠনের কাজ শুরু করেছি। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এখন আর আগের দমকল বাহিনী নয়। আমরা ফায়ার সার্ভিসকে সব দিক থেকে সমৃদ্ধ করার মাধ্যমে এর সক্ষমতা বৃদ্ধি করেছি। এ প্রতিষ্ঠানটি এখন বহুমাত্রিক সেবাকাজে নিয়োজিত। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদফতরকে ঢেলে সাজানোর জন্য নানামুখী কার্যক্রম বাস্তবায়িত হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, সারা বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও প্রতিনিয়ত দুর্যোগ-দুর্ঘটনার চিত্র পরিবর্তিত হচ্ছে। দুর্যোগ-দুর্ঘটনা আমাদের সামনে নতুন নতুন চরিত্রে আবির্ভূত হচ্ছে। প্রকৃতিগতভাবে দুর্যোগপ্রবণ এ দেশে আপনাদের সবসময় দুর্যোগ প্রশমনের জন্য যেমন কাজ করতে হবে তেমনি উদ্ভাবনী বিবেচনা শক্তি দিয়ে সংঘটিত দুর্ঘটনার ক্ষয়ক্ষতিও সীমিত রাখতে হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা আশা করি ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞানকে ধরে রাখবেন। নিয়মিত চর্চার মাধ্যমে তা আরও শাণিত করবেন। আরেকটি বিষয় সব সময় মনে রাখতে হবে, এটি একটি ইউনিফরমধারী সুশৃঙ্খল বিভাগ। প্রতিটি ক্ষেত্রে আপনাদের শৃঙ্খলার মান বজায় রাখতে হবে।

এ সময় ৪১তম ব্যাচের অফিসার্স ফাউন্ডেশন কোর্সের সমাপনী কুচকাওয়াজে অংশগ্রহণকারীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আগামী দিনে আপনারাই হবেন ফায়ার সার্ভিসের মূল চালিকা শক্তি। সুন্দর মন-মানসিকতা এবং শৃঙ্খলাপূর্ণ আচরণ দিয়ে এ বিভাগের সুনাম ও মর্যাদা বৃদ্ধিতে আপনারা অগ্রণী ভূমিকা পালন করবেন বলে আমি আশা করছি।

তিনি আরও বলেন, দেশের সব মহলের কাছে ফায়ার সার্ভিসের আস্থা ও গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধি পেয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে ভয়াবহ কিছু দুর্ঘটনায় ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যে নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন, তা দেশের সব মানুষের কাছে প্রশংসিত হয়েছে। সাধারণ মানুষের কাছে আপনাদের কাজের এই যে স্বীকৃতি ও সম্মান- এটি ধরে রাখতে হবে এবং উত্তরোত্তর এটিকে আরও মর্যাদাপূর্ণ স্থানে উন্নীত করতে হবে। সেবাধর্মী প্রতিষ্ঠান হিসেবে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদফতরের ভাবমূর্তি ও মর্যাদা বৃদ্ধিতে আপনারা সব সময় আন্তরিক ও নিবেদিত থাকবেন।

‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ফায়ার একাডেমি’ করার জন্য মুন্সিগঞ্জের গজারিয়ায় ১০০ একর জায়গা নেওয়া হয়েছে জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আগে এ প্রতিষ্ঠানের ১০ তলা ভবনের ওপরে অগ্নিনির্বাপণ ও উদ্ধারকাজ করার সক্ষমতা ছিল না। আমরা এ সক্ষমতাকে ২০ তলায় উন্নীত করেছি। আগামী বছর ৬৮ মিটারের ৫টি টার্নেবল ল্যাডার এই বহরে যুক্ত হবে। তখন এ সক্ষমতা ২২ তলা পর্যন্ত উন্নীত হবে।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ঝুঁকিভাতা দেওয়া, পূর্ণাঙ্গ রেশন ইউনিট চালু, ৩ রঙের মর্যাদাপূর্ণ কমব্যাট পোশাক প্রবর্তন, রাষ্ট্রীয় পদক সংখ্যা ও সম্মানী বৃদ্ধি এবং ফায়ারফাইটার ও অফিসারসহ ৫টি পদের বেতন গ্রেড বৃদ্ধি করা হয়েছে। কাজের সক্ষমতা ও সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর এ প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখার মাধ্যমে আমরা বাহিনীকে বিশ্বমানের একটি সেবা বাহিনীতে পরিণত করব।

কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্যারেড কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করেন অধিদফতরের উপসহকারী পরিচলক আনোয়ারুল হক। প্যারেড অ্যাডজুটেন্ট ছিলেন ওয়ারহাউজ পরিদর্শক নাজিম উদ্দিন সরকার। এ সময় পতাকাবাহী দলের নেতৃত্ব দেন জুনিয়র ইন্সট্রাক্টর শামীম আহম্মেদ, ১ম কনটিনজেন্টের নেতৃত্ব দেন প্যারেড অ্যাডজুটেন্ট এবং দ্বিতীয় কনটিনজেন্টটির নেতৃত্ব দেন স্টেশন অফিসার জিল্লুর রহমান।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩-২০২১
themesba-lates1749691102

windows 10 pro kaufen office 2019 pro kaufen office 365 pro kaufen windows 10 home kaufen windows 10 enterprise kaufen office 2019 home and business kaufen office 2016 pro kaufen windows 10 education kaufen visio 2019 kaufen microsoft project 2019 kaufen microsoft project 2016 kaufen visio professional 2016 kaufen windows server 2012 kaufen windows server 2016 kaufen windows server 2019 kaufen Betriebssysteme kaufen office software kaufen windows server kaufen https://softhier.com/ instagram takipçi satın al instagram beğeni satın al instagram görüntüleme satın al instagram otomatik beğeni satın al facebook beğeni satın al facebook sayfa beğenisi satın al facebook takipçi satın al twitter takipçi satın al twitter beğeni satın al twitter retweet satın al youtube izlenme satın al youtube abone satın al https://takipci33.com/