বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৫৩ পূর্বাহ্ন

মদনে মা ও পোনা মাছ নিধনের মহোৎসব

মদন (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম: মঙ্গলবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১

তলার হাওর ও বাওয়াইচবিল অধ্যুষিত নেত্রকোনার মদন উপজেলার নদ-নদী ও খাল-বিল এখন বর্ষার পানিতে টইটম্বুর। চারদিকে থৈ-থৈ পানি। বর্ষার পানি আসার সঙ্গে সঙ্গে মৎস্য ভাণ্ডার খ্যাত দেশের বৃহত্তম এই হাওরে দেশীয় প্রজাতির ডিমওয়ালা মা ও পোনা মাছ নিধনের মহোৎসব শুরু হয়েছে। অদৃশ্য কারণে মৎস্য  অফিস এসব অভিযানে  নীরব ভূমিকা পালন করছে।

নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল, বাদাই জাল, মশারি জাল, চায়না জাল, খৈলশুনিসহ মাছ ধরার নানা উপকরণ দিয়ে অবাধে চলছে মা ও পোনা মাছ ধরা। হাটে-বাজারে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে অবৈধভাবে ধরা এ সব দেশীয় প্রজাতির মা মাছ ও পোনা মাছ। নিশ্চুপ রয়েছে  মৎস্য বিভাগ।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলার কয়রা বিল, পাগলা বিল, বাওয়াইচ বিল, বরাঙ্গ বিল, চারিয়া বিল তলার হাওরের বিভিন্ন বিলসহ উন্মুক্ত জলাশয়ে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল, মশারি দিয়ে তৈরি নেট জাল, বেড় জাল, বাদাই জালসহ মাছ ধরার নানা উপকরণ দিয়ে মা মাছ ও পোনা মাছ নিধনযজ্ঞে মেতে উঠেছে একশ্রেণির অসাধু মৎস্য শিকারিরা।

বিশেষ করে শৈল, রুই, মৃগেল, কাতলা, টাকি, টেংরা, বাম, এমনকি মৎস অফিস থেকে উন্মুক্ত জলা‌শয়ে অবমুক্ত করা বিভিন্ন প্রজাতির মাছের পোনা ধরতে মাতোয়ারা হয়ে উঠছেন তারা। আর করোনাকালীন অলস সময় পার করতে নানা শ্রেণি-পেশার মানুষের মাছ শিকারের প্রবণতা আরও বেড়ে গেছে।

জানা গেছে, উপজেলার বিভিন্ন বাজারে ডিমওয়ালা মাছ ও পোনা মাছ প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি কেজি টেংরা ৩শ’ থেকে ৪শ’ টাকা, পুঁটি ২শ’ টাকা, মোয়া মাছ ২-৩শ’ টাকা, ডিমওয়ালা বোয়াল বিক্রি ৬শ’ ১হাজার টাকা কেজি, শৈল বা টাকি মাছের পোনাও ২ থেকে ৩শ’ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

মদন পৌর সদরের বাসিন্দা আল-আমিন, আকিকুল এর সাথে কথা বলে জানা যায়, মদন বাজারে বিভিন্ন গ্রাম থেকে নানান প্রজাতির মা মাছ ও পোনা মাছ ধরে নিয়ে আসছে। এই অবস্থা চলতে থাকলে এক সময়কার অনেক প্রজাতির মাছ বিলুপ্ত হয়ে গেছে এবং ভবিষ্যতে চাষের মাছ ব্যতীত দেশী মাছ পাওয়াই কঠিন হয়ে যাবে।

গোবিন্দশ্রী গ্রামের আবুল খায়ের কাবিল, রুবেল আহম্মেদ, শেখ ফরিদ ও সোহাগ মাস্টার বলেন, দশ বছর আগে যত ধরনের মাছ পাওয়া যেত এরি মধ্যে অনেক মাছ বিলুপ্ত হয়ে গেছে। যেভাবে মা মাছ ও পোনা মাছ নিধন হচ্ছে ভবিষ্যতে কি হবে ধারণাও করা যাচ্ছে না।

তিয়শ্রী গ্রামের কৃষক তোফায়েল আহমেদ বলেন এ বছর প্রায় শেষের দিকে এখন পর্যন্ত মৎস্য অফিস থেকে কোনরকম অভিযান না করায় মা মাছ ও পোনা মাছ নিধনের মহোৎসব চলছে

দুবালা গ্রামের জহিরুল ইসলাম ও বাবু বলেন, প্রকাশ্যে হাওরে সকাল থেকে শেষ রাত পর্যন্ত বিভিন্ন ধরনের জাল দিয়ে মা মাছ ও পোনা মাছ নিধন হচ্ছে। এ যেন দেখার কেউ নেই

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মদন উপজেলা ভারপ্রাপ্ত মৎস্য কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা  বলেন, ইউএনও স্যারের সাথে কথা বলেছি তিনি সময় করতে না পারায় আমরা অভিযান পরিচালনা করতে পারছিনা। মা মাছ ও পোনা মাছ নিধন রোধে এবং সবাইকে সচেতন করতে শীঘ্রই অভিযান পরিচালনা করা হবে। এ ছাড়াও ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে বলেও জানান তিনি।

মদন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বুলবুল আহমেদ এর কাছে জানতে চাইলে  তিনি জানান, উপজেলা মৎস কর্মকর্তার সাথে কথা হয়েছে শীঘ্রই অভিযানে পরিচালনা করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩-২০২১
themesba-lates1749691102