৫ মাস পর খুলছে বান্দরবানের সকল পর্যটন কেন্দ্র


» উত্তরা নিউজ I সারাবাংলা রিপোর্ট | | সর্বশেষ আপডেট: ২১ অগাস্ট ২০২০ - ১২:১৮:৫৮ অপরাহ্ন

পানোয়াম বম, বান্দরবান: ভয়াবহ করোনা ভাইরাসের সংক্রমনে ঠেকাতে দীর্ঘ পাঁচ মাসেও বেশী বন্ধের থাকা পার্বত্য বান্দরবান জেলায় সকল পর্যটন কেন্দ্র  সমূহ আগামীকাল (২১ আগষ্ট) শুক্রবার থেকে কঠোর শর্তসাপেক্ষে খুলে দেওয়ার সিদান্ত চুরান্ত গৃহীত হয়েছে। এছাড়া শহরে বা শহরে বাইরে যে সমস্ত হোটেল-রিসোর্ট ও খুলে দেওয়া হচ্ছে। আজ (২০ আগষ্ট) বৃহৎপতি বার বান্দরবান জেলা প্রশাসঁকে সভা কক্ষে হোটেল ও রিসোর্ট ব্যাবসায়ী মালিক সমিতি ও পর্যটনে শিল্পের সংশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গ অংশগ্রহন মূ্লক সভায় এ সব সিদান্ত নেওয়া হয়েছে। বান্দরবান জেলা প্রশাঁসক জনাব মোহাম্দ দাউদুল ইসলাম সভাপতিত্বে অনুষ্টিত আলোচনা সভায় যে শর্তগুলো সিদ্ধান্ত হয়েছে।
১। পর্যটন কেন্দ্রের প্রবেশমুখে হ্যান্ড ওয়াস ব্যাবস্থা রাখতে হবে, যেন সকল পর্যটক জীবামুক্ত ভাবে পর্যটন কেন্দ্র প্রবেশ করে।
২। পর্যটন কেন্দ্রের ধারণক্ষমতা অধিক পর্যটকে প্রবেশ করতে দেওয়া যাবেনা, বান্দরবান জেলা প্রশাঁসনে পরিচালিত যেমন নীলাচল ও মেঘলা পর্যটন কেন্দ্রে অন্য সময়ে ১০ হাজার পর্যটক প্রবেশ করতে পারে, কিন্তু দেশের এখন ও করোনা পরিস্থিতির সুস্থ না হাওয়াতে ৫ হাজার চেয়ে ও বেশীর পর্যটক ঢুকতে দেওয়া যাবেনা।
৩ l  যেসব জায়গায় গাড়ী যোগে যেতে হয় সেসব জায়গা যাতায়ত ক্ষেত্রে কমপক্ষে ৩ ফুঁট দুরত্ব বজায় রেখে গাড়ীতে বসতে হবে, এবং আসনে তুলনায় অধিক যাত্রীর গাড়ীতে উঠা যাবেনা।
এদিকে আলোচনা সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্ন জবাবে বান্দরবান জেলা অতিরিক্ত জেলা প্রশাঁসক জনাব শামীম হোসেন বলেছেন, নো মাক্স, নো এন্টি। তার মানে পর্যটকে যে কেউ মাক্স পরিধান না করে বান্দরবানে ভ্রমনে আসলে তাকে সরকারীভাবে এন্টি করতে দেওয়া হবেনা বরং যেখান থেকে এসেছে সেখানে পূনরায় ফিরে যেতে হবে। জনাব শামীম হোসেন আরো জানান, আজকের আলোচনা সভায় যে শর্ত গুলো সিদান্ত হয়েছে সে সমস্ত শর্ত পর্যটক বা পর্যটক সেবা দানকারীরা মানছে কিনা মানেনা তা দেখার জন্য জেলা প্রশাঁসনের ১০টি দ্রাম্যমান টিম কাজ করবে। তিনি আরো জানান, যে সমস্ত শর্তগুলো জনগনে স্বার্থে বা এলাকার লোকজনের কথা ভেবে এ সিদান্ত নেওয়া হয়েছে,  এর পরে ও পর্যটক বা সেবাদানকারী যে কেউ এ শর্ত ভঙ্গ করে নিয়মে বাইরে গেলে তার বিরোধে আইনে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে বলে ও তিনি জানিয়েছন।