১৫ লাখ টাকার ওষুধ ধ্বংস নওগাঁয় ভুয়া চিকিৎসক আটক


» কামরুল হাসান রনি | ডেস্ক ইনচার্জ | | সর্বশেষ আপডেট: ১৮ মার্চ ২০২০ - ০৯:৪৪:০১ অপরাহ্ন

নওগাঁ সংবাদদাতা: নওগাঁর ধামইরহাটে এক ভুয়া চিকিৎসককে আটক করা হয়েছে। ওই চিকিৎসকের বাড়ি থেকে ১৫ লাখ টাকার ওষুধ উদ্ধার করে ধ্বংস করা হয়েছে। একই সঙ্গে এক বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত জয়পুরহাট র‌্যাব ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার এএসপি মোহাইমেনুর রশিদ জানান, উপজেলার জাহানপুর ইউপির ভাতকুন্ডু গ্রামে মো. সাদেক আলী মন্ডলের ছেলে মো. রায়হান দীর্ঘদিন ধরে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে আসছেন। এসএসসি সনদপ্রাপ্ত ভুয়া চিকিৎসক লিখেন এন্টিবায়েটিক, জ্বিন ভূত ছাড়ানোর নামে রোগীদের করেন লাঠি পেটা। লোহার তৈরি ত্রিশুল বিভিন্ন নিষিদ্ধ ওষুধ দিয়ে অবৈধভাবে আট বছর যাবত চিকিৎসার নামে প্রতারণা করে আসছিলেন।
সর্বশেষ জিনের রোগীকে লাঠি পেটা করতে গিয়ে অসুস্থ হওয়ার খবর প্রকাশ হলে এলাকায় কৌতুহলের সৃষ্টি হয়। এসব অভিযোগ আমলে নিয়ে আজ বুধবার দুপুরে ভুয়া ওই চিকিৎসকের বাড়িতে অভিযান চালায় র‌্যাব।
এ সময় তার বাড়ি থেকে মাদক, নিষিদ্ধ ওষুধ, তাবিজসহ বিপুল পরিমাণ নিষিদ্ধ ওষুধ আটক করে তা ধ্বংস করেন ইউএনও ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট গনপতি রায়। এ সময় তাৎক্ষণিক মোবাইল কোর্টে রায়হানকে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন।
ভুয়া চিকিৎসক রায়হান বলেন, আমি স্বপ্নে চিকিৎসা শিখেছি, জিন, ভুত তাড়ানো, বাশলী রোগের চিকিৎসা করি, এসএসসি পাস করে প্রেসক্রিপশনে এন্টিবায়েটিক লেখা বৈধ কিনা প্রশ্ন করলে তিনি কোনো জবাব দেন নি।
ধামইরহাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আবু ইসা মো. আরাফাত ইমাম বলেন, এসব ওষুধ খেলে লিভার সিরোসিস, ক্যান্সারসহ মানুষের বিভিন্ন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বিশেষ করে পুরুষত্বহীন হয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।
ইউএনও গনপতি রায় বলেন, ধামইরহাটে কোনো বাসা বাড়িতে বিপুল পরিমাণ নিষিদ্ধ ওষুধ দেখে বিস্মিত হয়েছি। এসএসসি পাস করে বিভিন্ন রোগের চিকিৎসার নামে সাধারণ মানুষকে ঠকিয়ে আসছে। চিকিৎসার নামে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল এই ভুয়া চিকিৎসক। সরকার ও প্রশাসন সাধারণ জনগণের ক্ষতি কোনো ভাবেই বরদাস্ত করবে না।