সূর্যের হাসি ক্লিনিকের প্যারামেডিকদের চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে মানববন্ধন


» শিপার মাহমুদ (জুম্মান) | স্টাফ রিপোর্টার, উত্তরা নিউজ | সর্বশেষ আপডেট: ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ - ০১:০০:৪২ অপরাহ্ন

বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০ ঘটিকায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে তারা এই মানববন্ধন করেন। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, দেশের প্রত্যেক সূর্যের হাসি ক্লিনিক দৈনিক ১৫০ থেকে ২০০ জন সেবাগ্রহীতাকে স্ট্যাটিক ক্লিনিক সেবা দিচ্ছে। বিগত ২০ বছর ধরে এই প্রকল্পটি দক্ষতার  সঙ্গে কাজ করে আমরা টিকিয়ে রেখেছি। দেশের লাখ লাখ নারী ও শিশু আমাদের থেকে স্বাস্থ্যসেবা পেয়েছে এখনও পেয়ে যাচ্ছে।

‘আমরা ইউএসএআইডি’র প্রকল্পটি দাঁড়- করিয়ে সাফল্যের সঙ্গে পরিচালনা করে যাচ্ছি। এই প্রকল্পের প্রয়োজনে জনে আমরা কঠোর পরিশ্রম করেছি। আমরা ৭৬২ জন নারী মিলেই অধিকতর দক্ষতা ও সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে সূর্যের হাসি নেটওয়াার্ককে বর্তমান অবস্থায় পৌঁছাতে সহায়তা করেছি। দীর্ঘকাল আমরা এই প্রকল্পতে কাজ করলাম। অথচ এখন আমাদেরকেই চাকরিচ্যুত করা হচ্ছে।’

মানববন্ধনে গাইবান্ধা থেকে আগত শামীমা ইয়াসমিন উত্তরা নিউজকে বলেন, আমি এই চাকুরীর উপর নির্ভর করেই আমার জীবন-যাপন করছি। আমি যদি এই চাকুরিচ্যুত হয়, তাহলে আমি আমার ছেলে-মেয়েদের নিয়ে কোথায় যাব? আমার রাস্তায় বসা ছাড়া আর কোন পথ থাকবে না। আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিকট আবেদন করছি, দয়া করে আমাদেরকে চাকরীচ্যুত করবেন না। আমাদের শেষ ভরসা আপনি, আপনি ছাড়া আমাদের দাবীগুলো আর কারো কাছে প্রকাশ করার যায়গা নাই।

বক্তারা আরও বলেন, এই শত শত নারী প্যারামেডিক তাদের প্রত্যেকের পরিবারকে আর্থিকভাবে টিকিয়ে রেখেছে। এর মধ্যে অনেক নারী আছেন যাদের এই চাকরিটিই একমাত্র ভরসা। এই প্যারামেডিকরা সবাই অত্যন্ত দরিদ্র অসচ্ছল ও অসহায় পরিবারের সদস্য। কিন্তু আজ কেনো আমাদের বাদ দিয়ে দেওয়া হচ্ছে তা বোধগম্য নয়। আমরা প্রকল্প কর্তৃপক্ষের কাছে আমাদের চাকরিচ্যুত না করার অনুরোধ জানাচ্ছি।

এ সময় বক্তারা তাদের ৬ দফা দাবী উত্থাপন করেন:

১. সব প্যারামেডিকদের চাকুরী স্থায়ীকরণ করতে হবে।
২. চাকরি বহাল রেখে যদি কোনো রকমের সরকারি ট্রেনিং করতে হয়, সেটা করবে।
৩. সরকারের বর্ধিত ২০১৬ সালের আইনটি প্যারামেডিকদের ক্ষেত্রে বাতিল করতে হবে।
৪. প্যারামেডিকদের নতুন করে রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা করে দিতে হবে।
৫. বাংলাদেশের সব প্যারামেডিকদের  স্ব-পদে বহাল রাখতে হবে।
৬. দেশের ৫৫ ক্লিনিকে বেতন-ভাতা ও বোনাস বন্ধ আছে, সেগুলো ঠিকভাবে দিতে হবে।

সকল প্যারামেডিকদের পক্ষে এ দাবীগুলো উত্থাপন করেন মুসলিমা খাতুন মিতু।