সিটি করপোরেশন নির্বাচনে উত্তরে ৬ ও দক্ষিণে প্রতীক পেলেন ৭ মেয়র প্রার্থী


» Md. Neamul Hasan Neaz | | সর্বশেষ আপডেট: ১০ জানুয়ারি ২০২০ - ০৯:২৩:৪৯ অপরাহ্ন

আসন্ন ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দের কাজ শুরু হয়েছে। আজ শুক্রবার সকাল সাড়ে নয়টা থেকে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে প্রতীক দেয়া শুরু হয়। নির্বাচনে উত্তর সিটি করপোরেশনে ৬ ও দক্ষিণে ৭ মেয়র প্রার্থী প্রতীক পেয়েছেন।  আজ থেকেই প্রচারে নামবেন সবাই।

সকাল সাড়ে নয়টায় থেকে ১০টা পর্যন্ত রাজধানীর আগারগাঁওয়ের জাতীয় স্থানীয় সরকার ইনস্টিটিউটে (এনআইএলজি) উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মেয়র প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ করা হয়। আওয়ামী লীগের আতিকুল ইসলাম পেয়েছেন ‘নৌকা’ এবং বিএনপির তাবিথ আউয়াল পেয়েছেন ‘ধানের শীষ’ প্রতীক। তাদের প্রতিনিধিরা এসে প্রতীক গ্রহণ করেছেন। এছাড়া প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দলের (পিডিপি) শাহীন খান পেয়েছেন বাঘ, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের শেখ মো. ফজলে বারী মাসউদ পেয়েছেন হাতপাখা, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) মো. আনিসুর রহমান দেওয়ান পেয়েছেন আম এবং বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টির আহম্মেদ সাজ্জাদুল হক পেয়েছেন কাস্তে প্রতীক।

প্রতীক বরাদ্দ শেষে আবুল কাসেম বলেন, আজ থেকে ভোটের যুদ্ধ চলে যাচ্ছে মাঠে। এই মাঠকে কোনো ক্রমেই আমরা ঘোলাটে করতে দেব না।

এদিকে স্ব-স্ব প্রতীক বুঝে পেয়েছেন দক্ষিণ সিটির বৈধ সাতজন মেয়রপ্রার্থী। সকালে গোপীবাগের সাদেক হোসেন খোকা কমিউনিটি সেন্টারে অবস্থিত ঢাকা দক্ষিণ সিটি নির্বাচনের রির্টানিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে তাদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়। রির্টানিং কর্মকর্তা আবদুল বাতেন প্রতীক বরাদ্দের কার্যক্রম শুরু করেন।

মেয়র পদে আওয়ামী লীগের শেখ ফজলে নূর তাপস ‘নৌকা’, বিএনপির ইশরাক হোসেন ‘ধানের শীষ’, জাতীয় পার্টির হাজী মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন মিলন ‘লাঙ্গল’, ইসলামী আন্দোলনের মো. আবদুর রহমান ‘হাতপাখা’, ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টির (এনপিপি) বাহরানে সুলতান বাহার ‘আম’, বাংলাদেশ কংগ্রেসের মো. আকতার উজ্জামান ওরফে আয়াতুল্লা ‘ডাব’ এবং গণফ্রন্টের আব্দুস সামাদ সুজন ‘মাছ’ প্রতীকে নির্বাচনে অংশ নেবেন। প্রতীক বরাদ্দ অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের শেখ ফজলে নূর তাপস বাদে অন্য সব মেয়রপ্রার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রতীক বরাদ্দের মধ্য দিয়ে প্রার্থীরা এখন আনুষ্ঠানিক প্রচারণায় যেতে পারবেন। ২৮শে জানুয়ারি রাত ১২টা পর্যন্ত প্রচারণা চালানো যাবে৷

প্রতীক বরাদ্দের অনুষ্ঠানে ঢাকা দক্ষিণ সিটি নির্বাচনের রির্টানিং কর্মকর্তা আবদুল বাতেন বলেন, প্রতীক বরাদ্দের মধ্য দিয়ে প্রার্থীরা এখন আইন মেনে প্রচারণা চালাতে পারবেন। দুপুর দুইটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত মাইকিং করে প্রচারণা চালানো যাবে। এসএসসি পরীক্ষার কারণে মাইকের শব্দ নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। যাতে পরীক্ষার্থীদের পড়াশোনায় বিঘ্ন না ঘটে। একই সঙ্গে মাইকের ব্যবহারের জন্য অনুমতি নিতে হবে। অনুমতি না থাকলে মাইক জব্দ করা যাবে৷
আগামী ৩০শে জানুয়ারি ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। দুই সিটির প্রতিটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হবে ইভিএমের মাধ্যমে। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলবে ভোটগ্রহণ।