সিওয়াইবি রাবি শাখার দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত


» উত্তরা নিউজ | অনলাইন রিপোর্ট | সর্বশেষ আপডেট: ২৮ অক্টোবর ২০২০ - ০৩:০৩:৩৩ অপরাহ্ন

মোঃ ওবায়দুল হক, রাবি সংবাদদাতা:  কনজুমার ইয়ুথ বাংলাদেশ (সিওয়াইবি), রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে অনলাইনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আলোচনায় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্হিত ছিলেন জাতীয় ভোক্তা  অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার, কনজুমার ইয়ুথ বাংলাদেশ এর কেন্দ্রীয় সভাপতি পলাশ মাহমুদ এবং সাধারণ সম্পাদক  ইমরান শুভ্র। এছাড়াও রাবি শাখার প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি সহ বর্তমান কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা সভা রাত ৮ঃ৩০ মিনিটে জুম অ্যাপের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ  অধিদপ্তরের উপ- পরিচালক মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার ভোক্তা অধিকার সম্পর্কিত বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন এবং দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি নিরসনে সরকারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন। এসময় সিওয়াইবি এর রাবি শাখার প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি, কেন্দ্রীয় সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক বক্তব্য দেন।
আলোচনা সভায় সিওয়াইবি রাবি শাখার বর্তমান সভাপতি একুশ শতকের চ্যালন্জ মোকাবেলায় ভাষাগত এবং প্রযুক্তিগত দক্ষতা বাড়ানোর উপর জোর দেন। তিনি আরও বলেন,  “সিওয়াইবি রাবি শাখার প্রতিটি সদস্য যেন ভোক্তা অধিকার বিষয়ে নিজে সচেতন হয়ে অন্যকে সচেতন করতে পারে এবং নিজেদের ব্যক্তিগত ক্যারিয়ারে এগিয়ে যেতে পারেন সেই লক্ষ্য সামনে রেখেই সিওয়াইবি রাবি শাখা কাজ করে যাচ্ছে।”
সিওয়াইবি রাবি শাখার সাধারণ সম্পাদক বলেন, “প্রতিষ্ঠার পর থেকেই ক্যাম্পাসের বিভিন্ন ভ্রাম্যমাণ খাবারের দোকানসমুহ পর্যবেক্ষনের পাশাপাশি হলের ডাইনিং ও ক্যানটিন এর খাবারের মান বৃদ্ধির লক্ষ্যে কাজ করে চলেছে সংগঠনটি।সামনের দিনগুলিতেও সিওয়াইবি আপনাদের সকলের ভালবাসা ও সহযোগিতা নিয়ে এগিয়ে যেতে চায়।”
উল্লেখ্য, ক্যাম্পাসে সাধারন শিক্ষার্থীদের ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন এবং ভেজাল খাদ্য সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কনজুমার ইয়ুথ বাংলাদেশ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ২০১৮ সালের ২৭ শে অক্টোবর তার যাত্রা শুরু করে।
চলতি মাসের ২৩ অক্টোবর সিওয়াইবি রাবি শাখা দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে ভোক্তা অধিকার বিষয়ে একটি ভার্চুয়াল ট্রেনিং এর আয়োজন করে যেখানে ৪৫ টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে ২৫০ শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করে। এর আগে চলতি মাসের শুরুতে অনলাইন কম্পিটিশন এর আয়োজন করা হয় যেখানে ৫ টি সেগমেন্টে ৮৫ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৫০০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করেন।