সাভারে মাদ্রাসা ছাত্রদের পিটিয়ে আহত করায় শিক্ষক গ্রেফতার!


» কামরুল হাসান রনি | ডেস্ক ইনচার্জ | | সর্বশেষ আপডেট: ১৯ মার্চ ২০২০ - ০১:২০:০৩ অপরাহ্ন

শহিদুল্লাহ সরকার: সাভারে একটি মাদ্রাসায় পাঁচ ছাত্রকে বেধরক পিটিয়ে আহত করার ঘটনায় পুলিশ অভিযুক্ত শিক্ষক শাহাদাত শিকদারকে আটক করেছে সাভার  মডেল থানার পুলিশ।
এঘটনায় আহত ওই শিক্ষার্থী মোঃ শাকিলকে (১৩) উদ্ধার করে সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। বুধবার বিকেলে সাভার পৌর এলাকার বিরুলিয়া রোডের আফসার কটন মিল সংলগ্ন সুলতানা প্যালেস ভবনে অবস্থিত আল-মাদ্রাসা হামিউস্সুন্নাহ নামক প্রতিষ্ঠানে এ মারধরের ঘটনা ঘটেছে।
খবর পেয়ে সাভার মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে এবং মারধরের জড়িত থাকায় অভিযুক্ত মক্তব বিভাগের শিক্ষক শাহাদাত শিকদারকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসেন। তবে ঘটনার সাথে জড়িত আরও দুই শিক্ষক পলাতক রয়েছে।
আটক শিক্ষক শাহাদাত শিকদার (২২) সাভারের আমিনবাজার বেগুনবাড়ী মহল্লার হাজী গুল মোহাম্মদের ছেলে। ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী শাকিল পাবনা জেলার সুজানগর থানার কাশিনাথপুর গ্রামের মজনু মিয়ার ছেলে। সে রিক্সা চালক বাবা ও পোশাক শ্রমিক মায়ের সাথে পৌর এলাকার মজিদপুর মহল্লায় দুলাল মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থেকে ওই মাদরাসায় হেফজখানায় পড়তো।
ভুক্তভোগী অপর শিক্ষার্থী জামাল হোসেন শরিয়তপুর জেলার সখিপুর থানার আগলাবাজার  গ্রামের মোঃ মাইনুদ্দিনের ছেলে। সে বাবা-মায়ের সাথে সাভার পৌর এলাকার দিলকুসাবাগ মহল্লার আক্কাস আলীর বাড়িতে ভাড়া থেকে পাশর্বর্তী আল-মাদ্রাসা হামিউস্সুন্নাহ নামক প্রতিষ্ঠানের হাফেজি বিভাগে পড়াশুনা করতো। এছাড়া অন্য তিনজনের পরিচয় জানা যায়নি।
ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর জামালের মা শাহানা বেগম বলেন, আমার ছেলে জামাল ওই মাদ্রসার হাফেজি বিভাগে পড়তো। সে ২৪ পাড়ার হাফেজ। শুনেছি বন্ধুদের সাথে দুষ্টামি করায় মক্তবের হুজুর, বিছানার হুজুর ও নাজেরার হুজুর মিলে তাকে মধ্যযুগীয় কায়দায় বেধরক পিটিয়ে আহত করেছেন। আমি এঘটনার জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাই।
মাদরাসার প্রিন্সিপাল মামুনুর রশিদের কাছে মারধরের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি অন্য ব্যক্তির কাছে মোবাইল ধরিয়ে দেন। কিন্তু ওই ব্যক্তি নিজের পরিচয় গোপন রেখে বলেন আমাদের মাদরাসায় এমন কোন ঘটনা ঘটেনি। কিছু লোক মাদরাসার সুনাম নষ্ট করার জন্য ভুয়া খবর ছড়াচ্ছে।
সাভার মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হামিদুর রহমান বলেন, মাদরাসার শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগে এক শিক্ষককে আটক করা হয়েছে। এঘটনার তার পরিবারের সদস্যরা থানায় এসেছে। এঘটনায় মামলা দায়েরের পর ঘটনার সাথে জড়িত অন্য শিক্ষকদেরকে গ্রেপ্তারে অভিযান চালানো হবে।