উত্তরা নিউজ উত্তরা নিউজ
অনলাইন রিপোর্ট


সাইফ প্রথম পরীক্ষাতেই মেরে দিলেন ‘ডাব্বা’






আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টের জন্য ওপেনিং পজিশনে সাইফ হাসানের নামটি জোরেসোরেই উচ্চারিত হচ্ছিল। তামিম ইকবাল নেই, সাদমান ইসলামের সঙ্গে ওপেনিং করবেন কে? সমাধান ধরা হচ্ছিল কয়েকজনের মধ্যে।

ওপেনার হিসেবে আলোচনায় ছিলেন জহুরুল ইসলাম অমি, ইমরুল কায়েস আর সাইফ হাসান। ২০ বছর বয়সী এই তরুণকে পাখির চোখে আরেকবার দেখে নিতে খুলনায় বাংলাদেশ আর শ্রীলঙ্কার ইমার্জিং দলের টেস্ট দেখতে গিয়েছিলেন নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমন। কিন্তু সাইফ তো প্রথম পরীক্ষাতেই মেরে দিলেন ‘ডাব্বা’।

ইমরুল অভিজ্ঞ ও পরিণত। সেই বিবেচনায় তাকে তামিমের জায়গায় প্রথম পছন্দ ধরে রেখেছিলেন নির্বাচকরা। কিন্তু ছেলের ডেঙ্গু হওয়ায় ইমরুল নিজেকে নিয়ে লড়ার সুযোগই পাননি। তাই ছিটকে পড়েছেন রেস থেকে।

আরেক সিনিয়র পার্টনার জহুরুলও ছিলেন বিবেচনায়। কিন্তু তিনি দীর্ঘ ৬ বছর টেস্ট খেলার বাইরে। সর্বশেষ ২০১৩ সালের এপ্রিলে আগে হারারেতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ টেস্ট ম্যাচ খেলেছিলেন। এছাড়া একটু পিঠের ব্যথাও আছে। তাই জহুরুলও অনেকটা পিছিয়ে পড়েন।

তাদের চেয়ে অনেক হিসেব নিকেশেই এগিয়ে ছিলেন সাইফ হাসান। বয়সে নবীন ও সম্ভাবনাময়। এ মুহূর্তে সীমিত ওভারের ফরম্যাট আর দীর্ঘ পরিসরের ক্রিকেট- সব কটায় হাই পারফরমেন্স ইউনিটের এক নম্বর ওপেনার সাইফ। তাই তাকে একটা সুযোগ দেয়ার চিন্তা নিশ্চয়ই ছিলই নির্বাচকদের।

কিন্তু সাইফ কি করলেন? লঙ্কানদের বিপক্ষে চারদিনের অনানুষ্ঠানিক টেস্টের প্রথম ইনিংসে থামলেন মাত্র ১৮ রান। আজ (শুক্রবার) টেস্টের চতুর্থ দিনে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ের সুযোগ পেয়ে অবশ্য আক্ষেপ ঘুচিয়েছেন। তবে ততক্ষণে আসলে দেরিই হয়ে গেছে। দল পুরো গুছিয়ে বিকেল পাঁচটার দিকে ঘোষণাও করে দিয়েছেন নির্বাচকরা। জায়গা পাননি সাইফ।

শ্রীলঙ্কা ইমার্জিং দলের বিপক্ষে ড্র হওয়া টেস্টে বাংলাদেশ ইমাির্জিং দল দ্বিতীয় ইনিংসে ৪ উইকেটে ১০২ রান করে। যেখানে সাইফ অপরাজিত থাকেন ৪০ রানে। ১১৩ বলের টেস্ট মেজাজের ইনিংসটাতে ৪টি বাউন্ডারি আর ১টি ছক্কাও হাঁকান ডানহাতি এই ওপেনার। এছাড়া নাজমুল হাসান শান্ত আর জাকির হাসান করেন ২৫ রান করে।

উত্তরা নিউজ/এস,এম,জেড