সরকার দেশের সব প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে দিচ্ছে: ফখরুল


» উত্তরা নিউজ | অনলাইন রিপোর্ট | সর্বশেষ আপডেট: ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ - ০১:০৭:১৭ অপরাহ্ন

ডেস্ক রিপোর্ট: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বর্তমান সরকার দেশের মানুষের ভোট চুরি করে অবৈধ পার্লামেন্ট করেছে। বিরোধীদল বলতে কিছু নাই। সরকার দেশের সব প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। বিচার ব্যবস্থা সম্পূর্ণ দলীয়করণ করে রাজনৈতিক ব্যবহার করছে। গণতন্ত্র উদ্ধার, দেশের মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি, ক্যাসিনো, টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজীসহ লুটপাট বন্ধ করতে বেগম খালোদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সিলেট রেজিস্ট্রারি মাঠে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, উন্নয়নের মডেল হিসাবে এখন ঘরে ঘরে ক্যাসিনো। সারা বছর দেশে জুয়া চলে। দেশের মানুষের কোনো নিরাপত্তা নেই। সড়ক দুর্ঘটনায় ৫০-৬০ জন মানুষ মারা যাচ্ছে। সরকার গ্যাস, বিদ্যুৎসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বাড়াচ্ছে। মেঘা প্রকল্পের নামে মেঘা লুট হচ্ছে। কৃষক ধানের দাম পায় না।

রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে তিনি বলেন, রোহিঙ্গারা ২ বছরের বেশি সময় ধরে এদেশে আছে। একজন রোহিঙ্গাকেও ফেরত পাঠাতে পারেনি সরকার। আমরা প্রথম থেকেই এই বিষয়ে সাহায্য করতে চেয়েছিলাম।

সমাবেশে মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক আতাউল গণি ওসমানী, প্রয়াত বিএনপি নেতা সাইফুর রহমান ও নিখোঁজ বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীকে স্মরণ করে মির্জা ফকরুল বলেন, দীর্ঘ ৬ বছর ধরে ইলিয়াস আলীকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। এ রকম শত শত পরিবার তাদের স্বজনকে হারিয়ে ব্যথিত। বিএনপির হাজারো নেতা কর্মী এখন পঙ্গু হয়ে জীবনযাপন করছে। ২৬ লাখ নেতাকর্মীর উপর মামলা দেওয়া হয়েছে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মোশারফ হোসেন বলেন, এখন বিচারালয় সরকারের নির্দেশে চলে। যে মামলায় খালেদা জিয়াকে সাজা দেওয়া হয়েছে তাতে তার সম্পৃক্ততা নেই। শেখ হাসিনা খালেদা জিয়াকে ভয় পান বলেই তাকে আটক করে রেখেছেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, আদালতের উপর রাজনৈতিক প্রভাবের কারণে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা যাচ্ছে না। রাজপথে আন্দোলনের মাধ্যমে তাকে মুক্ত করতে হবে।

বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, বিএনপি চেয়াপারসনের উপদেষ্টা তাহসিনা রুশদির লুনা, খন্দকার আব্দুল মোক্তাদির, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, ডা. সাখাওয়াত হোসেন জীবন প্রমুখ।

এর আগে বেলা আড়াইটার দিকে সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কাহের শামীমের সভাপতিত্বে শুরু হয় বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশ। বেলা ১টা থেকেই বিএনপি, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, ছাত্রদলসহ বিএনপির অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা সমাবেশস্থলে আসা শুরু করেন। সভা পরিচালনা করেন, সিলেট জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ ও সিলেট মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মিফতাহ সিদ্দিকী।