সময়ের দাবিকে অস্বীকার করার উপায় নেই

বেসরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজ শিক্ষক সমিতির দাবী

» উত্তরা নিউজ ডেস্ক জি.এম.টি | | সর্বশেষ আপডেট: ২৭ জুলাই ২০২০ - ০৩:২৪:৩০ অপরাহ্ন

দীর্ঘ দিন ধরে বেসরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজ শিক্ষক সমিতি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালার অন্তর্ভুক্ত করার দাবী জানিয়ে আসছে । বৈশ্বিক করোনাকালীন সময়ে এই দাবী আরো সোচ্চার হয়েছে। সময়ের দাবিকে অস্বীকার করার উপায় নেই ।

সুদীর্ঘ আটাশ বছর ধরে এ সকল বেসরকারি টি টি কলেজগুলো মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নিয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে একই শিক্ষাক্রম ও নীতিমালায় মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষকদের বি এড প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছে।

বাস্তবতা এটাই সরকারি ও বেসরকারি বিদ্যালয়ের অধিকাংশ শিক্ষক এ যাবত অল্প পরিশ্রমে, নিয়মিত ক্লাস ও অনুশীলনী পাঠদান ছাড়াই একই সাথে চাকুরী ও প্রশিক্ষণ চালিয়ে গেছেন ও বি এড প্রশিক্ষণ নিয়েছেন ।অত: পর উচ্চপদ ও অর্থে উপরে উঠেছেন ।( হালে বিগত কয়েক বছর আগে সরকারি প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়েছে যে সরকারি স্কুলের শিক্ষক গনকে অবশ্যই সরকারি টিটি কলেজ থেকে বি এড ডিগ্রী নিতে হবে ।কিন্তু সরকারি টি টি কলেজ গুলোতে আসন সংখ্যা পূরণ হচ্ছেনা।)অন্যদিকে কিছু কিছু বেসরকারি টি টি কলেজের নীতিমালা অনুসরণে শৈথিল্য ,জাতীয়পর্যায়ে সমন্বয় হীনতা বিএড প্রশিক্ষণ কে মানহীন করে ফেলেছে । সারা বাংলাদেশে এক সময়ে প্রায় ১০৪ টি বেসরকারি বিএড কলেজ ছিল ।

বর্তমানে ৭০/ ৭৫ টি রয়েছে । সরকারি বেসরকারি প্রশিক্ষণ কলেজ গুলো কেউ কারো প্রতিপক্ষ নয় ।বরং গুণগত ,মানসম্পন্ন শিক্ষা বিস্তারে উভয়ের গুরুত্ব অপরিসীম ।এস ডিজি লক্ষ পূরণে সকলের সম্মিলিত প্রয়াস থাকতে হবে ।ইচ্ছে করলেই বাদ দেয়া যায় না ।

সুতরাং প্রয়োজনে এম পি ও নীতিমালা পরিবর্তন ,সংযোজন,সংশোধন করা । জাবি র সাথে মাউশির সুসমন্বয় দরকার । নিয়মিত পর্যবেক্ষণ ও জবাবদিহীতা থাকা দরকার । বেসরকারি টিটি কলেজের সকল শিক্ষক কে সকল ধরণের প্রশিক্ষণ দেয়া দরকার ।তাই জাতীয় স্বার্থে বেসরকারি টিটি কলেজগুলোর সক্ষমতা বৃদ্ধি যেমন জরুরী তেমনি একই সাথে তাদের এম পি ও ভুক্তি করা উচিৎ যা মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার মান বৃদ্ধিতে সহায়ক হবে । সুতরাং মানসম্পন্ন বেসরকারি টিটি কলেজ গুলোর  সময়ের দাবীকে মেনে নিয়ে কীভাবে তাদের এম পি ও ভুক্ত করা যায় তা ভেবে দেখার সময় এসেছে ।

লেখক: সাবাহ্, অধ্যক্ষ, (পি আর এল), সরকারি টি টি কলেজ ঢাকা ।