শ্বশুরকে টাকা দেয়ায় পুত্রবধূর আত্নহত্যা


» এইচ এম মাহমুদ হাসান | | সর্বশেষ আপডেট: ২১ জুলাই ২০২০ - ১১:৪৯:১৭ পূর্বাহ্ন

গোলাম রাব্বি প্লাবন, দেবিদ্বার থানা  প্রতিনিধি
কুমিল্লা মুরাদনগর উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানায় প্রবাসীর স্ত্রী তিন পুত্র সন্তানের মা রোজিনা আক্তার (৩০) রবিবার সকালে আত্নহত্যা করেছে। জানা যায় ছেলে বিদেশ থেকে তার বাবার নামে টাকা পাঠানোর রাগে পুত্রবধূ রোজিনা আত্নহত্যা করে। বাঙ্গরা বাজার থানার পিপড়িয়াকান্দা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত রোজিনা আক্তার বি-বাড়িয়া জেলার  বাঞ্ছারামপুর উপজেলার পূর্বহাটি গ্রামের মান্নান মিয়ার মেয়ে।
খবর পেয়ে মুরাদনগর সার্কেলের এএসপি জনাব মোঃ জাহাংগীর আলম ও বাঙ্গরা বাজার থানার ওসি জনাব মোঃ কামরুজ্জামান তালুকদার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
জানা যায়, ওয়াজেদ মিয়ার ছোট ছেলে ইলিয়াস মিয়া প্রায় ১২ বছর আগে মান্নান মিয়ার মেয়ে রোজিনা আক্তারের সাথে পারিবারিকভাবে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তাদের সংসার জীবনে রয়েছে ৩টি পুত্র সন্তান।
আরো জানা যায়, ছেলে সংসারের সুখের জন্য বাবা ওয়াজেদ মিয়া তাদের থাকার জন্য আলাদা বাড়ী তৈরি করে দিয়েছেন। তার পরেও যেন ছেলের বউ রোজিনা আক্তারের চাহিদা মিটছিলো না। ইলিয়াস মিয়া বিদেশ থেকে বাবার উদ্দ্যেশে টাকা বা কিছু পাঠালেই রোজিনা সংসারে করতো অশান্তি।
আসছে কোরবানির ঈদ উপলক্ষে ইলিয়াস মিয়া তার বাবা ওয়াজেদ মিয়ার জন্য দশ হাজার টাকা পাঠান,  শশুরকে টাকা দেয়ার কারনে রোজিনা আক্তার তার স্বামীর সাথে ঝগড়া করেন। রোজিনার জন্যও তার স্বামী একুশ হাজার টাকা পাঠান একই উপলক্ষে।
সেই ঝগড়ার জের ধরেই আত্নহত্যা করতে পারেন বলে জানিয়েছেন নিহত রোজিনার প্রবাসী স্বামী ইলিয়াস মিয়া।
তবে রোজিনার বাবা মান্নান মিয়া বলেন, বিয়ের পর থেকেই সে শ্বশুরবাড়িতে নির্যাতনের স্বীকার হতো। যার কারণে সে আত্মহত্যা করতে পারে বলে রোজিনার বাবা ধারণা।

বাঙ্গরা বাজার থানার ওসি জনাব মোঃ কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে শ্বশুরকে টাকা দেয়া নিয়ে স্বামীর সাথে দ্বন্দ্বের কারনে রোজিনা আত্নহত্যা করেছে। প্রকৃত ঘটনা তদন্ত সাপেক্ষে বলা যাবে।

নিহত রোজিনার লাশ পুলিশ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল হাসপাতালে পাঠিয়েছে।