উত্তরা নিউজ উত্তরা নিউজ
অনলাইন রিপোর্ট


`রিকশা নিষিদ্ধ নয়, বরং নিয়ন্ত্রণ করা প্রয়োজন’

ফুটপাত থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ এবং রিকশা নিয়ন্ত্রণে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন ডিএনসিসি মেয়র




ঢাকা, ৬ জুলাই: ফুটপাত থেকে সব ধরণের মালামাল অপসারণ ও অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ এবং প্রগতি সরণি ও মিরপুর রোডে রিকশা চলাচল বন্ধ করতে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

সড়ক ও ফুটপাতে জনদুর্ভোগ লাঘব এবং সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে ‘ঢাকা মহানগরীর অবৈধ যানবাহন বন্ধ, ফুটপাত দখলমুক্ত ও অবৈধ পার্কিং বন্ধে গঠিত কমিটি’র সিদ্ধান্ত মোতাবেক ডিএনসিসির আওতাধীন প্রগতি সরণি (কুড়িল বিশ্বরোড থেকে মালিবাগ পর্যন্ত সড়ক) এবং মিরপুর রোডে (গাবতলী হতে ধানমন্ডি-২৭ পর্যন্ত সড়ক) রিকশা ও ভ্যান চলাচল নিষিদ্ধ এবং এ সকল সড়ক ও ফুটপাত অবৈধ দখলমুক্ত করার ঘোষণা দেয়া হয়। এই সিদ্ধান্ত আগামীকাল ৭ জুলাই থেকে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আজ বেলা সাড়ে ১১টায় মেয়রের সভাপতিত্বে গুলশানস্থ ডিএনসিসির নগর ভবনে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় মেয়র বলেন, “রিকশা নিষিদ্ধ নয়, বরং নিয়ন্ত্রণ করা প্রয়োজন। প্রধান সড়কগুলোতে যান্ত্রিক যানবাহনের পাশাপাশি রিকশা এবং অন্যান্য অযান্ত্রিক যানবাহন চলাচল করলে দুর্ঘটনার আশংকা থাকে। তবে প্রধান সড়ক ব্যতিরেকে অন্যান্য সড়কে রিকশা এবং অন্যান্য অযান্ত্রিক যানবাহন চলাচল করতে পারে”। তিনি আরো বলেন, “জনগণের চলাচল নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করতে ফুটপাত ও সড়কে কোনো ধরণের মালামাল বা স্থাপনা থাকতে দেয়া হবে না। এ বিষয়ে ডিএনসিসি অত্যন্ত কঠোর অবস্থান গ্রহণ করবে এবং আগামীকাল থেকে ডিএনসিসির ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে”। ফুটপাত ও সড়কে রক্ষিত মালামাল ও স্থাপনা অবিলম্বে স্ব-উদ্যোগে সরিয়ে নেয়ার জন্য তিনি দোকান মালিকদের প্রতি আহবান জানান।

আতিকুল ইসলাম এই দুটি সড়কে পর্যাপ্ত বাস নামানোর জন্য বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সংস্থা (বিআরটিসি) এবং বাস মালিক সমিতির প্রতি আহবান জানান। শিক্ষার্থীদের যাতায়াত নিরাপদ করতে তিনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্তৃপক্ষকে বাস বা মাইক্রোবাস চালু করার অনুরোধ জানান। পর্যায়ক্রমে কুড়িল বিশ্বরোড থেকে মালিবাগ পর্যন্ত চক্রাকার বাস সার্ভিস চালু করা হবে বলে মেয়র জানান।

সভায় উপস্থিত সংসদ সদস্য এ কে এম রহমতুল্লাহ বলেন, “উন্নয়নের স্বার্থে আমাদের তাল মিলিয়ে চলা উচিৎ। যান্ত্রিক ও অযান্ত্রিক যানবাহন অন্তত প্রধান সড়কগুলোতে চলতে পারে না”। সভায় উপস্থিত বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণ, রিকশা মালিক সমিতি ও সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ এ উদ্যোগকে স্বাগত জানান। তবে রিকশা মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ একই সাথে সকল অবৈধ রিকশা নিষিদ্ধ করার দাবি জানান।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আবদুল হাই, ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের (ডিটিসিএ) নির্বাহী পরিচালক খন্দকার রাকিবুর রহমান, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন সংস্থা (বিআরটিসি) পরিচালক কর্নেল মাহবুবুর রহমান, ঢাকা মেট্রোপ্লিটন পুলিশ (ডিএমপি) ট্রাফিকের অতিরিক্ত কমিশনার মফিজ উদ্দিন আহমেদ, প্রগতি সরণি ও মিরপুর রোড সংশ্লিষ্ট থানার পুলিশ কর্মকর্তাগণ, ডিএনসিসির কাউন্সিলরবৃন্দ, রিকশা ও ভ্যান মালিক সমিতির সভাপতি মোঃ ইসমাইল, রিকশা ও ভ্যান মালিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আর এ জামান উপস্থিত ছিলেন।