পারভেজ হোসাইন | রামগঞ্জ (লক্ষীপুর) প্রতিনিধি পারভেজ হোসাইন | রামগঞ্জ (লক্ষীপুর) প্রতিনিধি


রামগঞ্জ পৌরসভার প্রধান রাস্তাগুলির বেহাল দশা, বর্ষাতে দূর্ভোগে মানুষ






লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ পৌরসভার সড়ক গুলো পৌরবাসীর গলার কাঁটায় পরিণত হয়েছে। শহরের সবগুলো সড়কে গর্তের কারণে জনদুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। সামান্য বৃষ্টিতেই সড়কে বড় বড় গর্তে কাদা পানি জমে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বিগত ১৭ বছরে সড়ক গুলোতে কোনো প্রকার সংস্কার করা হয়নি। অসন্তোষ পৌরবাসীর মধ্যে। জানা যায়, ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত রামগঞ্জ পৌরসভা। ২০০৩ সালে ‘খ’ শ্রেণী থেকে ‘ক’ শ্রেণীতে উন্নীত হয় এই পৌরসভাটি। সে সময় পৌর শহরের সব গুলো রাস্তা পিচ ঢালাই করা হয়। এরপর মেয়র পদে পরিবর্তন হয়েছেন ৫ জন। কারো মেয়াদকালেই সড়কে লাগেনি উন্নয়নের আঁচড়।১৭ বছরেও সংস্কার হয়নি রামগঞ্জ পৌর শহরের রাস্তা গুলো।

সরেজমিনে দেখা যায়, রামগঞ্জ পৌরসভা কার্যালয়ের সামনে বাইপাস সড়কটিতে বড় গর্তের কারণে যানবাহন ও সাধারণের চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সামান্য বৃষ্টিতেই রাস্তা গুলো পানির নিচে তলিয়ে যাচ্ছে। এতে প্রতিনিয়ত ঘটছে ছোট বড় দুর্ঘটনা। রামগঞ্জ হাসপাতাল সড়ক, রামগঞ্জ থানা ও সাব রেজিস্ট্রি অফিস সড়ক, রামগঞ্জ সোনাপুর বাইপাস সড়ক, রামগঞ্জ হাজীগঞ্জ সড়ক, সোনাপুর থেকে  চিতৌষী চৌরাস্তা সড়ক, রামগঞ্জ সরকারি কলেজ ও রামগঞ্জ রাব্বানীয়া কামিলা মাদ্রাসা সড়ক, রামগঞ্জ ওয়াপদা সড়ক, রামগঞ্জ মাছ বাজার সড়কসহ প্রত্যেকটি সড়ক খানাখন্দকে ঝাঁঝরা। বাইপাস সড়কের ব্যবসায়ী আবুল কালাম, কয়েকজন অভিভাবকসহ শিক্ষার্থীরা জানান, সড়কটির দুই পাশে ১০/১২টি প্রাইভেট হাসপাতাল, ক্লিনিক এবং স্কুল কলেজ রয়েছে। বিশালাকৃতির গর্তের কারণে জরুরি প্রয়োজনে মুমূর্ষু রোগীদের স্থানান্তরে চরম সমস্যায় পড়তে হয়ে। এই সড়ক দিয়ে যেতে হয় রামগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্সে। রামগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় এ পথেই। আসতে যেতে নানা বিপত্তির সম্মুখীন হচ্ছে স্কুলের শিক্ষার্থীরা।

রামগঞ্জ পাট বাজার সড়কের ব্যবসায়ী মো. ইউসুফ, মাহমুদ মিয়া জানান, খুব প্রয়োজন ছাড়া এ পথে কেউ চলাচল করে না। একজন সরকারি চাকরিজীবী জানান, প্রথম শ্রেণীর পৌরসভার রাস্তাঘাট এতটা নাজুক হয়, ভাবাই যায় না। সামান্য বৃষ্টি হলে লোকজনকে হাঁটু পর্যন্ত জামা-কাপড় উপরে উঠিয়ে চলতে হয়। তিনি আরো জানান, বালুয়া চৌমুহনী থেকে কাশেম মাস্টার সড়ক, হাজি বাড়ির সড়ক, জামতলী বাজার সড়কগুলো ভেঙ্গেচুরে একাকার। বীমা কর্মী রহমত উল্যা পাটোয়ারী জানান, রামগঞ্জ কাঁচাবাজারের প্রধান সড়কটি সামান্য বৃষ্টিতেই হাঁটু সমান পানি জমে যায়। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক একজন ওয়ার্ড কাউন্সিলর জানান, স্থানীয় জনগণ আমাদের গালাগালি করেন। জনগণের পক্ষ থেকে সড়কগুলো মেরামতের জন্য বারবার মেয়রের কাছে আবেদন করলেও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। পৌর শহরের রাস্তাগুলো সংস্কার করা হলে পুরো শহরের চেহারা পাল্টে যাবে। এ ব্যাপারে রামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল খায়ের পাটওয়ারী জানান, কয়েকটা রাস্তার টেন্ডার হয়েছে এবং আরো কিছু রাস্তার টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন আছে। আসা করি এই বর্ষার আগে সকল রাস্তার সংস্কার কাজ সম্পন্ন হবে।

উত্তরা নিউজ/গাজী