চাঁদা না পেয়ে প্রবাসীর স্ত্রীকে কুপিয়ে জখম! রামগঞ্জে কারা এই জুয়েল গ্রুপ?


» পারভেজ হোসাইন | রামগঞ্জ (লক্ষীপুর) প্রতিনিধি | | সর্বশেষ আপডেট: ০৬ অক্টোবর ২০১৯ - ০৮:৪৪:০৫ অপরাহ্ন

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার ৯নং ভোলাকোট ইউনিয়নের ভোলাকোট গ্রামে গতকাল (৫ অক্টোবর)শনিবার সন্ধ্যায় নির্দিষ্ট চাঁদা না পেয়ে দুই বছরের শিশু মনিকাকে মায়ের কোল থেকে তুলে নেওয়ার চেষ্টা করে। এতে বাধা দেওয়ায় চিহিৃত দৃস্কৃতিকারীরা শিশুকে ছুড়ে ফেলে দিয়ে শিশুর মা ও প্রবাসী আলাউদ্দিনের স্ত্রী ফাতেমা বেগম (৩২) কে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম ও মাথায় আঘাত করে। মুমুর্ষ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে রামগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
স্থানীয় সূত্র গণমাধ্যমকে জানান,উপজেলা ভোলাকোট গ্রামের ফরাজি বাড়ির প্রবাসী মোতাহের হোসেন বাড়িতে পাকা ভবন নির্মান করার সময় জুয়েল গ্রুপের লোকজন ৫ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে। শনিবার বিকেলে প্রবাসী বাড়িতে রয়েছে এমন সংবাদে জুয়েল তার শতাধিক লোকজন সহ বাড়িতে উপস্থিত হয়ে প্রবাসী মোতাহের হোসেনকে না পেয়ে তার আরেক প্রবাসী ভাই আলাউদ্দিনের দুই বছরের শিশু মনিকাকে তুলে নিয়ে যাওয়ার সময় শিশুর মা ফাতেমা বাধা দেয়। এ সময় জুয়েল শিশুকে ছুড়ে ফেলে দিয়ে প্রবাসী আলাউদ্দিনের স্ত্রী ও শিশুর মা ফাতেমাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে।
এ নিয়ে প্রবাসী মোতাহের সাংবাদিকদের বলেন, আমার ভাবি ফাতেমার চিৎকারে গ্রামের নাহিদ,মিরাজ,রিপন ও রহমত উল্যাহ ও কয়েকজন যুবক দৌড়ে আসলে জুয়েল ও তার লোকজন হকস্টিক ও লোহার রড় দিয়ে তাদেরকেও পিটিয়ে আহত করে। হামলা করে ফেরার পথে পূর্বে এ ধরনের চাঁদাবসজীতে বাধা দেওয়ায় সাফায়েত হোসেন বৃন্দকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে তার মোটরসাইকেল ও মোবাইল নিয়ে যায়। তাকেও রামগঞ্জ উপজেলা সরকারি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।
আহত ফাতেমা বেগম উত্তরা নিউজকে বলেন, ৩ বছর পূর্বে তার স্বামী ও পাকা ভবন নির্মান করতে এভাবে ৫ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করলে অবশেষে কোন উপায় না থাকায় জুয়েলকে ৩ লক্ষ টাকা দিতে হয়। তিনি আরো বলেন, হামলা করার সময় আমার গামে গলায় থাকা সোনার কানবালা,গলায় চেইন ও নেকলেস গুলো হাতিয়ে নিয়ে যান জুয়েল গ্রুপ।
এ ব্যাপারে থানায় হামলা ও চাঁদাবাজীর দুইটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। রামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আনোয়ার হোসেন জানান, আমি আহতদের হাসপাতালে দেখে এসেছি এবং মূল আসামি চাঁদাবাজ জুয়েলকে ধরতে রামগঞ্জ থানা পুলিশের সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে। আমি আশাবাদী চাঁদাবাজ ও হামলাকারী জুয়েল এবং তার সহকর্মীদেরকে যে কোন মুল্যে গ্রেফতার করে আইনের আওয়াতা আনা হবে।
অপরদিকে, রামগঞ্জে চাঁদার দাবীতে অপহরণ ও ব্যর্থ হয়ে কুপিয়ে জখম! করার সাথে জড়িত জুয়েল গ্রুপ কার? কে এই জুয়েল? এবং জুয়েল গ্রুপের পৃষ্ঠপোষক কারা? এসব নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে সচেতন রামগঞ্জবাসীদের মাঝে। সচেতন মহলের প্রত্যাশা রামগঞ্জের প্রশাসন শীঘ্রই এদের মুখোশ উন্মেচন করে সমাজের ন্যায়ের শাসন প্রতিষ্ঠা করবে।