রাজনীতিবিদ ও সমাজ সেবক লায়ন ডা: মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ


» উত্তরা নিউজ ডেস্ক জি.এম.টি | | সর্বশেষ আপডেট: ১৯ জানুয়ারি ২০২০ - ০৩:২৮:২৫ অপরাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক:


ব্যক্তি ও পেশাজীবনে অত্যন্ত সৃশৃঙ্খল, আদর্শবাদী, গতিশীল ও কর্মপ্রিয় ব্যক্তিত্ব লায়ন ডা: মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ। ডা: হামিদ ৩০ নভেম্বর ১৯৬২ সালে ধামরাই থানার অন্তর্গত চাপিল গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। ১৯৭৮ সালে এস, এস, সি ও ১৯৮০ সালে এইচ, এস, সি অত্যন্ত কৃতিত্বের সাথে প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন। তিনি ১৯৮৫ সালে ঢাকা ডেন্টাল কলেজ থেকে বি,ডি,এস ডিগ্রী অর্জন করেন। ১৯৮৭ সালে ইন্টানিশীপ শেষ করে ১৯৮৯ সালে উচ্চতর ডিগ্রী অর্জনের লক্ষে জাপানের একটি ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হন। ১৯৯০ সালে পোষ্ট গ্রাজুয়েশন এবং ১৯৯৪ সালে মাত্র ৩২ বছর বয়সে বিশ্বের সর্বোচ্চ ডিগ্রী পি,এইচ, ডি অর্জন করেন। পি,এইচ,ডি ডিগ্রী অর্জন শেষ হতে না হতেই আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়া ইউনিভার্সিটির সানফ্রান্সিসকোর ডেন্টাল ফ্যাকালটিতে পোস্ট ডক্টরাল ফেলোশিপ করার জন্য মনোনিত হন।

১৯৯৭ সালে ফেলোশিপ শেষ করে নিজ দেশে ফিরে আসেন এবং সিটি ডেন্টাল কলেজে বিভাগীয় প্রধান ও সহকারী অধ্যাপক হিসাবে যোগদান করেন। ২০০০ সালে সৌদি আরব স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে বিভাগীয় প্রধান ও সিনিয়র কন্সালটেন্ট হিসাবে যোগদান করেন। ২০১৩ সালে দেশে ফিরে আসেন এবং উত্তরায় অবস্থিত লুবানা জেনারেল হাসপাতালের একজন পরিচালক নিযুক্ত হন।

১৯৮০ সাল থেকে ছাত্র রাজনীতির সাথে জড়িত থেকে ১৯৮৩ সালে ঢাকা ডেন্টাল কলেজ শাখার ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি এবং কলেজ ছাত্র সংসদের ক্রীড়া সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। তৎকালিন এরশাদ সরকারের সৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহন করেন। বি এন পি জামাত জোটের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়ে মিথ্যা মামলার শিকার হন এবং ওয়ারেন্ট জারি হয়। ১৯৯৬ সাল থেকে মোহাম্মদপুর থানার অন্তর্গত ৩৩ নং ওয়ার্ডের অন্তর্গত কাদেরাবাদ হাউজিংয়ে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন৷ বর্তমানে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সোনার বাংলা গড়ার লক্ষে মোহাম্মদপুর থানা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক এবং বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

এ ছাড়া স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ ও বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের স্থায়ী সদস্যপদ লাভ করেন। অত্যন্ত বিনয়ী, সদালাপী, মৃদুভাষী ডা: হামিদ রাজনীতির পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথেও জড়িত রয়েছেন। লায়ন্স ক্লাব অব ঢাকা সেন্ট্রালের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও ডিস্ট্রিক্ট ৩১৫বি২ এর চেয়ারপার্সনের হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। ঢাকা উত্তরায় অবস্থিত গ্রীন গোল্ড সোসাইটি নামক একটি এনজিওর ম্যানেজিং ডিরেক্টর হিসাবে নিয়োজিত রয়েছেন। এনজিওটির শিশু বন্ধু কর্মসূচীর আওতায় ‘ড. হামিদ শিশু বৃত্তি’ নামে প্রতি বছর ধামরাই থানার ১৭৩ টি প্রাইমারী এবং ৩৮ টি মাধ্যমিক স্কুলের প্রতিটি থেকে ২ জন করে সর্বমোট ৪২২ জনকে সম্পুর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে এতিম, অসহায়, হত দরিদ্র ও মেধাবী ছাত্র/ছাত্রীদের মাঝে বিগত ২০১৪ সাল থেকে শিক্ষা বৃত্তি প্রদান করে আসছেন। ঢাকার আদাবর ও উত্তরায় দুইটি পথ শিশুদের স্কুল প্রতিষ্ঠা ও পরিচালনা করছেন। তাছাড়া গ্রীনগোল্ড সোসাইটির মাধ্যমে সামাজিক নানাবিদ কর্মসুচী (যৌতুক ও বাল্যবিবাহ বিরোধী আন্দোলন, বৃক্ষরোপণ, পরিবেশ দুষন রোধে প্রচারনা, শীতববস্ত্র বিতরন, অসমর্থ লোকদের মাঝে হুইল চেয়ার বিতরন ইত্যাদি) বাস্তবায়নে অগ্রণী ভুমিকা রেখে চলেছেন। লায়ন্স ক্লাবের উদ্যোগে অসংখ্য বৃদ্ধ হতদরিদ্রদের মাঝে খাবার ও শীতকালিন বস্র বিতরন করে আসছেন। এ ছাড়াও দি ইভিনিং নিউজের একজন সিনিয়র রিপোর্টারের দায়িত্ব নিবেদিত ভাবে পালন করছেন।

তিনি ব্যক্তিগত ও দাপ্তরিক প্রয়োজনে আমেরিকা, ইংল্যান্ড, জাপান, কানাডা, সিঙ্গাপুর, ব্যাংকক, সৌদি আরব, মালয়েশিয়া, ভুটান, ভারতসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ ভ্রমন করেছেন। তিনি বিবাহিত এবং দুই ছেলে ও এক কন্যা সন্তানের গর্বিত জনক।

এই গুণী ব্যক্তি বহুমুখী প্রতিভার ধারক-মানুষের স্বাস্থ্যসেবা, সামাজিক দায়বদ্ধতা, রাজনীতিসহ বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রমের ধারায় নিজেকে সম্পৃক্ত করতে সক্ষম হয়েছেন। এ দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন। ডা. হামিদ এর উন্নয়ন চিন্তা তাকে মানুষ হিসেবে আলোকিত করেছে এতে কোন সন্দেহ নেই।