রাজউক উত্তরা প্রকল্প কতটুকু নিরাপদ?


» শিপার মাহমুদ (জুম্মান) | স্টাফ রিপোর্টার, উত্তরা নিউজ | সর্বশেষ আপডেট: ১০ নভেম্বর ২০১৯ - ০৫:০৯:২৭ অপরাহ্ন

সাম্প্রতিক সময়ে একটি বড় ধরনের অভিযোগ উঠেছে রাজউক উত্তরা অ্যাপার্টমেন্ট প্রজেক্টের ব্যাপারে। কোনো ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত না করেই রাজউকের কর্মকর্তারা এখানে বরাদ্দৃকত অ্যালোটিদের নিজ নিজ ফ্ল্যাটে উঠতে বাধ্য করছেন।

একটি পুলিশ ফাঁড়ির প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। ওই প্রতিশ্রুতি কাগজে-কলমেই রয়ে গেছে। এখানে যারা থাকেন, তারা প্রচণ্ড একটা নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে থাকেন। প্রকাশ্য দিবালোকে ফ্ল্যাটে ডাকাতির ঘটনাও ঘটেছে। গাড়ি ছিনতাইয়ের চেষ্টা হয়েছে। আমি নিজে এর ভুক্তভোগী।

অথচ রাজউক এক্ষেত্রে নির্বিকার। ফ্ল্যাটে বসবাসকারীদের নিরাপত্তা ঝুঁকি এ অ্যাপার্টমেন্ট প্রকল্পের ভবিষ্যৎকে একটি প্রশ্নের মুখে ঠেলে দিয়েছে। অনেকেই ফ্ল্যাট বিক্রি করে অন্যত্র ক্রয় করার কথা ভাবছেন। পত্রিকায় বিজ্ঞাপনও দিয়েছেন অনেকে। আমি নিজেও এমনটি ভাবছি।

৯০৩০ কোটি ৭১ লাখ ৮৭ হাজার টাকার প্রকল্প এটি। উত্তরা ১৮নং সেক্টর হিসেবে এটি পরিচিত হলেও এলাকাটি আশুলিয়ার কাছাকাছি বালুরমাঠ (পঞ্চবটি নামেও পরিচিত) নামক স্থানে অ্যাপার্টমেন্ট প্রকল্পটি গড়ে উঠছে। বলা হচ্ছে, এটি প্রধানমন্ত্রীর একটি স্বপ্নের প্রকল্প।

এখানে মোট ৭৯টি ভবনে ৬ হাজার ৬৩৬টি ফ্ল্যাট তৈরি করা হয়েছে বিশাল এক এলাকা নিয়ে। ভবনগুলোতে ইতিমধ্যে ফ্ল্যাট বরাদ্দ দেয়া হয়ে গেছে এবং গত নভেম্বর থেকে মানুষ এখানে বসবাস করতে শুরু করেছে। গত এক বছরে গুটিকয়েক পরিবার বসবাস শুরু করা ছাড়া শতকরা ৯০ ভাগেরও বেশি ফ্ল্যাট খালি পড়ে রয়েছে।

ফ্ল্যাট মালিকরা উঠছেন না। এর মূল কারণ নিরাপত্তাহীনতা ও যোগাযোগের অভাব। আমি অনেককে চিনি, যারা এখানে ফ্ল্যাট কিনেছেন। কিন্তু থাকছেন অন্যত্র। তাদের সবার অভিযোগ- কোনো নিরাপত্তা ব্যবস্থা না করেই দ্রুত ফ্ল্যাট মালিকদেরকে নিজ নিজ ফ্ল্যাটে উঠতে বাধ্য করেছে রাজউক!

অনেকেই অভিযোগ করেছেন, দুষ্কৃতকারীরা যদি কাউকে এখানে ‘খুন’ করে ফেলে রেখে যায়, তা দেখারও কেউ নেই! আরও একটা অভিযোগ- জঙ্গিদের অভয়ারণ্যে পরিণত হতে পারে এই অঞ্চলটি।

পরিত্যক্ত ফ্ল্যাটগুলো জঙ্গিরা ভাড়া নিতে পারে। এখানে বসে জঙ্গি কার্যক্রম চালাতে পারে তারা, যা দেখার কেউ নেই। সিসি ক্যামেরা লাগানোর কথা বলা হলেও আজ অব্দি কোনো ভবনে, এমনকি পুরো কম্পাউন্ডের কোথাও কোনো সিসি ক্যামেরা লাগানো হয়নি। ফলে এলাকায় বড় ধরনের নিরাপত্তাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে।

২.

নিরাপত্তাহীনতা কোন্ পর্যায়ে তার তিনটি দৃষ্টান্ত দেই। এক. রাজউক অ্যাপার্টমেন্ট প্রজেক্টে বসবাসরত একজন কর্মজীবী নারী পঞ্চবটি বাসস্ট্যান্ডে নেমে হেঁটে তার ফ্ল্যাটে যাচ্ছিলেন। তখন সন্ধ্যা। মাঝপথে তিনি আক্রান্ত হন। তার সবকিছু ছিনতাই হয়ে যায়।

দুই. দিনদুপুরে ‘দোলনচাঁপা’ ভবনে ডাকাতি হয়। ডাকাতরা মালিকের অবর্তমানে তার ফ্ল্যাটের লক/ সিকিউরিটি লক কেটে গুরুত্বপূর্ণ জিনিসপত্র নিয়ে যায়। এবং পরে ওই ডকুমেন্ট (গাড়ির কাগজপত্র, ব্লু বুক, চাবি, ফিটনেসের কাগজ ইত্যাদি) দেখিয়ে গাড়ি চুরির চেষ্টা করে।

তিন. ‘সুরমা’ ভবনে রাতের বেলা বিদেশ প্রত্যাগত ফ্ল্যাট মালিকের আত্মীয় এসেছে এই খবর পেয়ে ডাকাতরা ওই ভবনে চড়াও হয়। একাধিকবার কলিংবেল বাজিয়ে ফ্ল্যাটে প্রবেশ করার চেষ্টা করে। এমনকি ফ্ল্যাট মালিক ফ্ল্যাটে থাকা সত্ত্বেও ডুপ্লিকেট চাবি দিয়ে রুম খোলার চেষ্টা করে।

ওই এলাকায় নিরাপত্তাহীনতা কোন্ পর্যায়ে নেমেছে, এ তিনটি ঘটনা এর বড় প্রমাণ। প্রতিটি ঘটনা রাজউক ও পুলিশকে জানানো হয়েছে। দ্বিতীয় ঘটনায় তুরাগ থানায় মামলা হয়েছে। তুরাগ থানার তদন্ত কর্মকর্তাকে গাড়ি চোরের ছবি, তার ফোন নম্বর, এমনকি এনআইডি নম্বর পর্যন্ত দেয়া হয়েছে। কিন্তু ওই পর্যন্তই! অগ্রগতি খুব একটা নেই।

রাজউক চাচ্ছে বিভিন্ন ফ্ল্যাটে লোকজন আরও উঠুক। কিন্তু দিনের বেলা সংঘবদ্ধ ডাকাত দল যদি ডাকাতি করতে আসে, যদি প্রকাশ্য দিবালোকে গাড়ি চুরির চেষ্টা চালায়, তাহলে ওই এলাকায় কি মানুষ বসবাস করতে আসবে? যারা ফ্ল্যাট কিনেছেন, তারা এখন ফ্ল্যাট বিক্রি করে অন্যত্র চলে যাবেন।

এই এলাকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দায়িত্বটি কার? তুরাগ থানা কি তার দায়দায়িত্ব অস্বীকার করতে পারবে? মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কি এ ব্যাপারে কোনো নির্দেশনা দেবেন? ডিএমপি কিংবা উত্তরা ডেপুটি পুলিশ কমিশনারের দায়িত্বও রয়েছে। এ দায়িত্ব পুলিশ কর্মকর্তারা উপেক্ষা করতে পারেন না।

৩.

সরকার জনস্বার্থে অনেক ভালো ভালো কাজ করছে। একাধিক মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। এজন্য সরকার সাধুবাদ পাওয়ার যোগ্য। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, ওইসব পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সঙ্গে যারা জড়িত, তাদের শৈথিল্যে, অদক্ষতায় অনেক মহাপরিকল্পনা শেষ অব্দি সফল হবে না।

রাজউক অ্যাপার্টমেন্ট প্রকল্প (উত্তরা ১৮নং সেক্টর) এমন একটি মহাপরিকল্পনা, যা এখন শুধু বিতর্কেরই জন্ম দিচ্ছে। রাজউক তার দক্ষতা প্রমাণ করতে পারেনি। পঞ্চবটির এই এলাকা, যা বালুরমাঠ নামে পরিচিত, তা ছিল কিছুদিন আগ পর্যন্ত ডাকাতদের অভয়ারণ্য।

দিয়াবাড়ী-পঞ্চবটি এলাকায় একাধিক খুনের ঘটনা ঘটেছে। মানুষ হত্যা করে লাশ ফেলে রাখা হয়েছে- এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে একাধিকবার। শুধু তাই নয়, মিরপুর-বেড়িবাঁধ সড়কে একাধিকবার ডাকাতি হয়েছে এবং এখনও হচ্ছে।

সুতরাং এমন একটি এলাকায় যখন রাজউক বসতি গড়ার উদ্যোগ নেয়, যখন হাজার হাজার ফ্ল্যাট নির্মাণ করে, তখন প্রথমেই উচিত ছিল এলাকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। কিন্তু রাজউক তা করেনি। অদক্ষতা, সুশাসনের অভাব এই প্রজেক্টের ভবিষ্যৎকে এখন প্রশ্নবিদ্ধ করেছে।

রাজউক কর্মকর্তারা এই প্রজেক্ট নিয়ে গর্ব করেন। তারা এ প্রজেক্টকে বিদেশের সঙ্গে তুলনা করতে চান। কিন্তু দিনদুপুরে যখন গাড়ি চুরির চেষ্টা চালানো হয়, রাতের বেলায় যখন কোনো স্ট্রিটলাইট থাকে না এবং পুরো এলাকাটি ডাকাতদের ‘স্বর্গরাজ্যে’ পরিণত হয়, তখন কি রাজউক কর্মকর্তারা কোনো প্রশংসা আশা করতে পারেন? এখন কি তারা এই প্রজেক্টকে বিদেশের সঙ্গে তুলনা করতে পারবেন?

৭৯টি হাইরাইজ ভবন উত্তরা রাজউক প্রজেক্টের ‘এ’ ব্লকে নির্মাণ করা হয়েছে। এরপর ‘বি’ ব্লকে নির্মাণ করা হবে ৭২টি ভবনে ৬ হাজার ৪৮টি ফ্ল্যাট। তারপর ‘সি’ ব্লকে ৭২টি ভবনে নির্মাণ করা হবে আরও ৬ হাজার ৬০৮টি ফ্ল্যাট। এর অর্থ, এ এলাকায় মোট ২২৩টি হাইরাইজ ভবনে মোট ১৮ হাজার ৭৩২টি ফ্ল্যাট নির্মাণ করা হবে।

ইতিমধ্যে শুধু ‘এ’ ব্লকে ৭৯টি ভবনে ৬ হাজার ৬৩৬টি ফ্ল্যাট নির্মাণ করে তা বিক্রি করা হয়েছে এবং সেখানে মানুষ বসবাস করছে। ‘বি’ ও ‘সি’ ব্লক এখনও নির্মাণাধীন। এক্ষেত্রে শুধু পরিকল্পনা নিয়ে ভবন নির্মাণ করলেই চলবে না, এ এলাকার নিরাপত্তার ব্যাপারটিও রাজউককে নিশ্চিত করতে হবে। না হলে এ প্রজেক্টে মানুষ বসবাস করবে না। সরকারি অর্থের অপচয় হবে মাত্র!

৪.

যেহেতু উত্তরা অ্যাপার্টমেন্ট প্রজেক্টে নিরাপত্তা ইস্যুটি প্রধান হয়ে দেখা দিয়েছে, সেক্ষেত্রে রাজউক নিুলিখিত সিদ্ধান্তগুলো নিতে পারে : ১. অনতিবিলম্বে এ এলাকায় একটি পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপন করার ব্যাপারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়া; ২. পুরো এলাকাটি সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা; ৩. প্রতিটি ভবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার নির্দেশ দেয়া; ৪. তুরাগ থানার কর্মকাণ্ড বাড়ানো।

রাজধানীর বাড্ডা এলাকায় গণপিটুনিতে তাসলিমা বেগম রেনুর হত্যা মামলায় প্রধান আসামি হৃদয়কে পুলিশ অতি দ্রুততার সঙ্গে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে। কিন্তু উত্তরা প্রজেক্টের ‘দোলনচাঁপা’ ভবনের গাড়ি চুরির সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের ছবি, তাদের ফোন নম্বর ও এনআইডি নম্বর তুরাগ পুলিশকে দেয়া হলেও এ ক্ষেত্রে তাদের তৎপরতা নেই কেন? এটা কি পুলিশের শৈথিল্য, নাকি অন্য কিছু? নাকি পুলিশ আদৌ এ ব্যাপারে উৎসাহিত হচ্ছে না? গাড়ি চুরির ব্যাপারে একটি মামলা হয়েছে। এই মামলার ভবিষ্যৎই বা কী?

প্রধানমন্ত্রীর অনেক ‘স্বপ্নের’ একটি হচ্ছে এই রাজউক অ্যাপার্টমেন্ট প্রজেক্ট। ঢাকা শহরে মানুষ বাড়ছে। জমি নেই। তাই হাইরাইজ ভবন নির্মাণ। সিদ্ধান্তটি নিঃসন্দেহে ভালো ও প্রশংসার যোগ্য। কিন্তু প্রকল্প বাস্তবায়নে যে দক্ষ জনশক্তি দরকার, তা রাজউকের নেই। তাদের মাঝে এক ধরনের শৈথিল্য ও দায়সারা ভাব লক্ষ করা যায়।

তাদের মাঝে এক ধরনের অনীহা রয়েছে। এই অনীহা, শৈথিল্য, অদক্ষতা এ প্রকল্পের ভবিষ্যৎকে হুমকির মুখে ঠেলে দিয়েছে। ৯০৩০ কোটি টাকার প্রকল্পের যদি সফল বাস্তবায়ন না হয়, তাহলে এটা সরকারের জন্য একটি নেতিবাচক ধারণার জন্ম দেবে, যা আমরা কেউই চাই না।

তারেক শামসুর রেহমান : প্রফেসর ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক

tsrahmanbd@yahoo.com

সুত্র : যুগান্তর