যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তান থেকে আরও সেনা সরিয়ে নিচ্ছে।


» এইচ এম মাহমুদ হাসান | | সর্বশেষ আপডেট: ১৫ জুলাই ২০২০ - ১২:৫৩:০০ অপরাহ্ন

আফগানিস্তান থেকে আরও সেনা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে অবস্থিত পাঁচটি মার্কিন ঘাঁটি থেকে মার্কিন সেনাদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।
 
যুক্তরাষ্ট্রের আফগান-বিষয়ক বিশেষ দূত জালমাই খালিলজাদ সেনা প্রত্যাহারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, কাতারের রাজধানী দোহায় তালেবানের সঙ্গে স্বাক্ষরিত শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে এসব ঘাঁটি থেকে মার্কিন সেনা সরিয়ে নেয়া হয়েছে।
আফগানিস্তানে মোতায়েন মার্কিন সেনার সংখ্যা উল্লেখযোগ্য মাত্রায় কমে এসেছে বলেও এক টুইট বার্তায় দাবি করেছেন খালিলজাদ। তবে কোন পাঁচটি ঘাঁটি থেকে সেনা প্রত্যাহার করা হয়েছে তা উল্লেখ করেননি তিনি।
 
এদিকে, আফগানিস্তানের গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, এসব ঘাঁটি দেশটির উরুজগান, হেলমান্দ, পাকতিকা ও লাগমান প্রদেশে অবস্থিত। এসব ঘাঁটি আফগান সেনাবাহিনীর কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে নাকি ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে তাও জানাননি ওই মার্কিন কর্মকর্তা। এমনকি তিনি প্রত্যাহার করে নেওয়া মার্কিন সেনার সংখ্যাও নিশ্চিত করেননি।
 
জালমাই খালিলজাদ এমন সময় আফগানিস্তান থেকে উল্লেখযোগ্য সংখ্যায় মার্কিন সেনা সরিয়ে নেয়ার দাবি করলেন যখন মার্কিন সরকার দোহা চুক্তি বাস্তবায়ন না করায় তালেবানও তাদের পক্ষ থেকে দেয়া প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন থেকে বিরত রয়েছে।
 
২০০১ সালে মার্কিন বাহিনী আফগানিস্তানে অভিযান শুরু করলে তালেবানের পতন ঘটে। গত ফেব্রুয়ারিতে তালেবানের সঙ্গে এক চুক্তি স্বাক্ষরের পর যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তান থেকে সেনা সরিয়ে নেয়ার বিষয়ে সম্মতি জানায়।
 
গত কয়েক মাসে দেশটি থেকে বিপুল সেনা সরিয়ে নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। প্রায় এক তৃতীয়াংশের বেশি সেনা প্রত্যাহার করা হয়েছে। এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট্রাল কমান্ডের প্রধান জেনারেল কেনেথ ম্যাকেনজি জানিয়েছিলেন যে, চুক্তি অনুযায়ী তারা শর্ত পূরণ করেছেন।
 
তিনি বলেন, চুক্তি অনুযায়ী, সেনা সরিয়ে নেওয়ার কথা। আমরা আফগানিস্তান থেকে সেনা সরিয়ে নিচ্ছি। তালেবানের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী, ২০২১ সালের মাঝামাঝি পর্যন্ত আফগানিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্র ও অন্য সব বিদেশি সেনা সরিয়ে নেয়া হবে।