মডেল টাউনে ‘মডেল ভোট’ সম্ভাবনা কতটুকু?

উত্তরা মডেল টাউন

» মুহাম্মদ গাজী তারেক রহমান | উত্তরা নিউজ, স্টাফ রিপোর্টার | সর্বশেষ আপডেট: ১৭ জানুয়ারি ২০২০ - ০৯:২১:২৩ অপরাহ্ন

যতই দিন গড়াচ্ছে বাড়ছে ভোটের উত্তাপ। নির্বাচনের এই গরম ঢাকা শহরের প্রতিটি অলিগলিতে বিদ্যমান। ফজর হলেই শুরু হয় কর্মী-সমর্থক ও প্রার্থীদের কর্মযজ্ঞ। মসজিদের সামনে দাঁড়িয়ে ওয়ার্ডের বাসিন্দাদের সাথে মুসাফাহা-মোলাকাতসহ ওয়াকওয়েগুলোতে চলতে চলতে কুশল বিনিময় সেরে নিচ্ছেন প্রার্থীরা। প্রার্থী হিসেবে মেয়র থেকে শুরু করে কাউন্সিলর, সকলেই যেন ভোটারদের মন জয় করে নিতে দিয়ে যাচ্ছেন উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি। আওয়ামী লীগ-বিএনপি-ইসলামী আন্দোলন কিংবা স্বতন্ত্র থেকে দাঁড়ানো সকল প্রার্থী এবং কর্মী-সমর্থকরা এখন পর্যন্ত বেশ আনন্দের সাথেই মাঠে রয়েছেন। চালিয়ে যাচ্ছেন নির্বাচনী প্রচারণা ও গণসংযোগ। উত্তরার ১ থেকে ১০নং সেক্টর নিয়ে গঠিত ডিএনসিসি ১নং ওয়ার্ড ও ১১ থেকে ১৪নং সেক্টর নিয়ে ৫১নং ওয়ার্ডের সৃষ্টি।


নির্বাচনের আরও খবর পড়ুন


দেশের সর্বপ্রথম মডেল টাউন হিসেবে উত্তরা জনপদের সুখ্যাতি রয়েছে অনেক আগ থেকেই। কথিত আছে, এখানে বসবাস করেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, রাজনীতিবীদ, শিক্ষক, সমাজসেবক থেকে শুরু করে দেশের গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোতে অবদান রাখা ব্যক্তিত্বরা। তাই আসন্ন ডিএনসিসি নির্বাচনে সিটির অন্যান্য ওয়ার্ডগুলো থেকে এই দুটি ওয়ার্ড যথাক্রমে ১ ও ৫১ তে শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে মনে করছেন অনেকেই।

ডিএনসিসি ১নং ওয়ার্ডে এবার আওয়ামী লীগ থেকে মনোনীত প্রার্থী হিসেবে ঝুড়ি প্রতীক নিয়ে মাঠে রয়েছেন গতবারের নির্বাচিত কাউন্সিলর আফসার উদ্দিন খান ও বিএনপির মনোনীত প্রার্থী মোস্তফিজুর রহমান সেগুন ঠেলাগাড়ি প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। অপরদিকে, ৫১নং ওয়ার্ডে ব্যাডমিন্টন প্রতীকে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মোহাম্মদ শরীফুর রহমানও গতবারের নির্বাচিত কাউন্সিলর হিসেবে এবারও প্রার্থী হয়েছেন এবং ঘুড়ি প্রতীকে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন আফাজ উদ্দিন।

মডেল টাউন হিসেবে যেকোন সময় উত্তরার পরিস্থিতি শান্ত থাকবে এমনটাই এখানকার ভোটারদের একান্ত কাম্য। তবে নির্বাচনের মাঠে এমন প্রত্যাশা কিছুটা হলেও যেন বিঘ্ন ঘটছে। ৪ সেক্টর নিয়ে গঠিত ৫১নং ওয়ার্ডে এখন পর্যন্ত সংঘাত কিংবা হানাহানির ঘটনা ঘটেনি। তবে এমনটা ধরে রাখতে পারেনি ১নং ওয়ার্ড। সম্প্রতি এ ওয়ার্ডে বিএনপির প্রার্থীর উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। হামলায় ৪জনের অবস্থা গুরুতর বলেও খবর পাওয়া গেছে। এমনকি সেক্টরের বিভিন্ন স্থানে পোস্টার ছিঁড়ে ফেলা হচ্ছে বলে জানিয়েছে মোস্তাফিজুর রহমান সেগুন। উত্তরাস্থ ডিএনসিসির ওয়ার্ডটিতে যখন এই অবস্থা ঠিক তার বিপরীতে ৫১নং ওয়ার্ড। ওয়ার্ডের প্রতিটি স্থানে আওয়ামী লীগ-বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের পোস্টার ঝুলছে সমানতালে। বেশিরভাগ স্থানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোহাম্মদ শরীফুর রহমানের ব্যাডমিন্টন প্রতীকের ছবি সম্বলিত পোস্টার দৃশ্যমান হলেও বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ঘুড়ি প্রতীকের আফাজ উদ্দিনের প্রচারণাও বেশ চোখে পড়ার মত। এছাড়াও ওয়ার্ডটিতে অংশগ্রহণকারী সংরক্ষিত আসনের একাধিক প্রার্থীরাই নির্বিঘ্নে  চালিয়ে যাচ্ছেন প্রচার-প্রচারণা।

আসন্ন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে উত্তরা নিয়ে গঠিত এই ওয়ার্ড দুটিতে এখন পর্যন্ত সংঘাত বা বড় ধরনের হানাহানি ব্যতিরকে প্রার্থীদের প্রচারণা আশপাশের অন্যান্য ওয়ার্ডগুলোর তুলনায় শান্তিপূর্ণ অবস্থানে থাকলেও ভোটের দিন শেষ পর্যন্ত মডেল টাউনে ‘মডেল ভোট’ কতটুকু সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হবে সেটিই এখন দেখার বিষয়।