ভোটের মাঠে কিভাবে লড়ছেন আবুল হোসেন?

ডিএনসিসি ৫১ নং ওয়ার্ড

» উত্তরা নিউজ ডেস্ক জি.এম.টি | | সর্বশেষ আপডেট: ১৬ জানুয়ারি ২০২০ - ০৯:৪৪:২৮ পূর্বাহ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক


ডিএনসিসি কাউন্সিলর নির্বাচনের প্রতিযোগিতায় দল থেকে পায়নি মনোনয়ন। উত্তরার ১১ থেকে ১৪ নং সেক্টরগুলো পূর্বে হরিরামপুর ৭নং ওয়ার্ডভূক্ত থাকাকালীন সময়ে মেম্বার হিসেবে জনগণের প্রতিনিধিত্ব করেছেন তিনি। গতবারের উপ-নির্বাচনে সেক্টরগুলো নিয়ে গঠিত হয় ডিএনসিসি ৫১নং ওয়ার্ড। সেবারের নির্বাচনে কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও পেরে উঠতে পারেননি আবুল হোসেন। তবে, আসন্ন উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীকে প্রার্থী হয়েছেন ওয়ার্ডটির গরীবের বন্ধুখ্যাত দীর্ঘদিনের জনপ্রতিনিধি আবুল হোসেন মেম্বার। দল থেকে মনোনয়ন না পেলেও ওয়ার্ডবাসীর অনুপ্রেরণায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

নির্বাচনের আরও খবর পড়ুন:

এবারের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী থাকার পরও নিজের প্রার্থীতার বিষয়ে জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে নিজেকে এগিয়ে রেখেছেন আবুল হোসেন। এ বিষয়ে তিনি উত্তরা নিউজকে বলেন, ‘দীর্ঘ দিন আমি এ ওয়ার্ডের জনগণের সেবা করেছি। এলাকার বিভিন্ন রাস্তাঘাটগুলো উন্নয়নের জন্য আমি একাধিকবার এমপি মহোদয়ের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোতে আবেদন পাঠিয়েছি। নানান সময় এলাকাবাসীর বিপদে আপদে পাশে দাঁড়িয়েছি। তাই দল থেকে মনোনয়ন না দিলেও এলাকাবাসীর অনুপ্রেরণাতেই আমি প্রার্থী হয়েছি।’

আসন্ন কাউন্সিলর নির্বাচনে আবুল হোসেনের প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিএনপির প্রার্থীকে এ আসনে বাড়তি সুবিধা দিবে বলে মনে করছেন অনেকেই। তবে এ ব্যাপারে দুঃশ্চিন্তার কোন কারণ নেই বলে জানিয়েছেন আবুল হোসেন। নির্বাচনে জয়ী হলে এলাকার উন্নয়নে কমিউনিটি সেন্টার স্থাপন, সেক্টরের খেলার মাঠ সংস্কার, বস্তির গরীব ও মেহনতি মানুষদের পাশে দাঁড়ানো, বৃদ্ধাশ্রম নির্মাণসহ নানা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীকে অংশ নেয়া এই প্রার্থী। ভোটের দিন কোন প্রকার অনিয়ম না হলে জয়ের ব্যাপারে বেশ আশাবাদ ব্যক্ত করেন আবুল হোসেন।

এদিকে, নির্বাচনের শুরুর দিন থেকে প্রার্থী আবুল হোসেনের প্রচরণা পোস্টার তেমনভাবে লক্ষ্য না করা গেলেও গতকাল ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীকের পোস্টার টানাতে দেখা গেছে প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের। এবারের নির্বাচনে প্রতিপক্ষকে মোকাবেলায় নিজেদের সর্বোচ্চকে কাজে লাগানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন ওয়ার্ডটির অন্যান্য প্রার্থীরা।