ভৈরবের মিন্টু কমিশনারের দুই ছেলে মাদকসহ আটক


» উত্তরা নিউজ I সারাবাংলা রিপোর্ট | | সর্বশেষ আপডেট: ১৯ নভেম্বর ২০২০ - ১১:৫৩:৪০ অপরাহ্ন

শামসুল হক মামুনঃ  ভৈরব র‌্যাব ক্যাম্পের স্কোয়াড কমান্ডার এএসপি মোহাম্মদ বেলায়েত হোসাইন এর নেতৃত্বে একটি আভিযানিক দল ১৮ নভেম্বর রাত সোয়া ১০টায় ভৈরবের ৬নং ওয়ার্ডের মিন্টু কমিশনারের দুই ছেলে ও কথিত সাংবাদিক হৃদয় আজাদসহ মোট ৪জনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-১৪, ভৈরব ক্যাম্প।

র‌্যাব-১৪, সিপিসি-৩, ভৈরব ক্যাম্প সূত্রে জানা যায়, একটি মাদক ব্যবসায়ী চক্র নিয়মিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিজয়নগর সীমান্ত এলাকা থেকে মাদকদ্রব্য সংগ্রহ করে জীপ গাড়ীতে করে জেলার বিভিন্ন এলাকায় পাইকারি/খুচরা বিক্রয় করে আসছে অনেক দিন ধরে। উক্ত তথ্যের সত্যতা যাচাইয়ের জন্য উক্ত মাদক ব্যবসায়ী চক্রের উপর র‌্যাবের নিরবিচ্ছিন্ন গোয়েন্দা নজরদারী চালানো হয় এবং তথ্যের সত্যতা পাওয়া যায়। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে আরো জানা যায় যে, উক্ত মাদক ব্যবসায়ী চক্র ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আশুগঞ্জ গোলচত্বর এলাকায় মাদকদ্রব্যের একটি বড় চালান নিয়ে কিশোরগঞ্জ যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করছিল। এরই প্রেক্ষিতে ভৈরব র‌্যাব ক্যাম্পের স্কোয়াড কমান্ডার এএসপি মোহাম্মদ বেলায়েত হোসাইন এর নেতৃত্বে একটি আভিযানিক দল ১৮/১১/২০২০ ইং তারিখ ২২.১৫ ঘটিকায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আশুগঞ্জ থানাধীন সৈয়দ নজরুল ইসলাম সেতুর ২০০ গজ পূর্বে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ঢাকাগামী লেনের উপর তাৎক্ষনিক তল্লাশী চৌকি স্থাপন করে পূর্বের সংবাদের ভিত্তিতে একটি জিপ গাড়ীতে তল্লাশী চালিয়ে জীপ গাড়ীটি’সহ নাঈম হোসেন (২০), আবিদ হোসেন (১৯), মহিশীনুর রহমান হৃদয় ওরফে কথিত সাংবাদিক হৃদয় আজাদ (২৩) ও মোঃ রুবেল মিয়া (২১)’কে গ্রেফতার করে র‍্যাব-১৪। উক্ত আসামীদের নাঈম ও আবিদ দুইজন ভৈরব পৌর শহরের লক্ষীপুর এলাকার ৬নং ওয়ার্ড কমিশনার মিন্টু মিয়ার ছেলে। আরেক আসামী হৃদয় অনেক বছর ধরে সাংবাদিকতার জড়িত। বিভিন্ন সূত্রে জানা যায় সাংবাদিকতার লেবাশ ধরে অনেক দিন ধরেই এই মাদক পাচারের সাথে জড়িত আসামী কথিত সাংবাদিক হৃদয় আজাদ। তাকে পেছন থেকে সেল্টার দিয়ে আসছিল মিন্টু কমিশনারের দুই ছেলে আসামী নাঈম ও আবিদ। এছাড়া আরেক আসামী রুবেলের বাড়ি কমলপুরে। উক্ত আসামীদের ০১ টি স্কুল ব্যাগ তল্লাশী করে ৬৬ বোতল ফেন্সিডিল, ০১ টি ব্যবহৃত জীপ ০১ টি ওয়াকিটকি, ষ্টীলের লাঠি, মাদক বিক্রর নগদ ৭০,০০০/-টাকা’সহ উদ্ধার করে জব্দ করে র‍্যাব। উদ্ধারকৃত আলামতের আনুমানিক মূল্য ৩৫,২০,০০০/- টাকা। ধৃত আসামীদের বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আশুগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে র‍্যাব-১৪, ভৈরব ক্যাম্প সূত্রে জানা গেছে।