বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ০৯:৩৮ পূর্বাহ্ন

ভারতীয়রা কেন টয়লেটে যায় না?

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম: শনিবার, ২৭ জুন, ২০২০

ভারতের অন্যতম বৃহৎ রাজ্য মহারাষ্ট্র সরকার ঘোষণা দিয়েছিলো যে সেই রাজ্যে কাউকে আর খোলা আকাশের নিচে মল-মূত্র ত্যাগ করতে দেয়া হবে না। কারণ গোটা রাজ্যে সবার হাতের নাগালে বানানো হয়েছে শৌচাগার।

গত কয়েক বছরে ভারতে অনেক রাজ্যই নিজেদের ‘ওপেন ডিফেকেশেন ফ্রি’ বা ওডিএফ বলে ঘোষণা করেছে। কিন্তু দেখা যাচ্ছে বহু জায়গাতেই শৌচাগারে যাওয়ার সুযোগ থাকা সত্ত্বেও ভারতীয়রা এখনও উন্মুক্ত জায়গায় মল-মূত্র ত্যাগ করতেই বেশি পছন্দ করে।

কিন্তু কেন এই পরিস্থিতি? কেন শৌচাগার বানানোর পরও মানুষ সেখানে যেতে চাইছেন না?

ভারতে নরেন্দ্র মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর যে ‘স্বচ্ছ ভারত অভিযান’ শুরু হয়েছিল, তার আওতায় দেশ জুড়ে ইতিমধ্যে বেশ কয়েক কোটি শৌচাগার তৈরি করা হয়েছে। কিন্তু তারপরও ভারতীয়দের উন্মুক্ত জায়গায় শৌচ করার অভ্যাস পাল্টানো যায়নি।

কেন তারা শৌচাগারে যাচ্ছেন না, এ প্রশ্নের জবাবে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বিবিসিকে অনেকেই বলেছেন, দেওয়ালে ঘেরা বদ্ধ জায়গায় শৌচ করতে তাদের ভাল লাগে না। গরম লাগে, গ্যাসে-দুর্গন্ধে নাকি বমি-বমি পায়। গ্রামীণ মহিলাদের অনেকের আবার বলেছেন পানির অভাবের কথা।

উত্তরপ্রদেশের এক নারী জানিয়েছিলেন, চাষের ক্ষেতে গেলে এক লোটা পানিতেই কাজ সারা যায়। কিন্তু শৌচাগারে গেলে লাগে পুরো এক বালতি পানি। এলাকায় পানির সমস্যা এতোই বেশি যে শৌচের জন্য এত পানি খরচ করা যায় না। কাজেই ভোরবেলায় কেউ ওঠার আগে আমি নিজের মায়ের সঙ্গে গিয়ে ক্ষেতেই কাজ সেরে আসি।

গ্রামীণ স্যানিটেশন নিয়ে কাজ করেছেন সুস্নাত চৌধুরী। বিবিসিকে তিনি জানিয়েছিলেন, একটা টয়লেট বানানোর পর তার প্রয়োজনীয় রক্ষণাবেক্ষণ অনেক সময়ই থাকে না আর সেটাই মানুষকে টয়লেট থেকে দূরে ঠেলে দিচ্ছে।

ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে গ্রামে গ্রামে ভোররাতে এখন স্বেচ্ছাসেবীরা টহল দিচ্ছেন যাতে খোলা জায়গায় কেউ মল ত্যাগ করতে না পারেন। শৌচাগার থাকা সত্ত্বেও যারা ক্ষেতে যাচ্ছেন তাদের বুঝিয়ে-সুঝিয়ে পাঠিয়ে দেয়া হচ্ছে। চেষ্টা করা হচ্ছে কিছুটা লজ্জায় ফেলারও।

বিহারে একজন স্বেচ্ছাসেবী জানিয়েছেন, আমরা যখন তাদের বলি তোমার বউ-মেয়ে লোটা নিয়ে সকালে ক্ষেতে যাচ্ছ, তখন তার শরীরের এমন সব অংশ গোটা গ্রাম দেখতে পায়, যা স্বামী ছাড়া কারুর দেখার কথা নয়। তখন তোমাদের লজ্জা-শরম কোথায় যায়?”

শৌচাগার আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত ভারতের বৃহত্তম এনজিও সুলভ ইন্টারন্যাশনাল অবশ্য মনে করে, ভারতের আবহমান সংস্কৃতি যেহেতু বলে শৌচের কাজ বসতবাড়ি থেকে দূরে হওয়া উচিত – তাই বাড়ির ভেতরে বা লাগোয়া শৌচাগার ব্যবহারের অভ্যাস তৈরি হতে আরও সময় লাগবে।

সূত্র: বিবিসি

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩-২০২১
Technical Support: Uttara IT Soluation
themesba-lates1749691102

fethiye bayan escort yalova escort yalova escort bayan van escort van escort bayan uşak escort uşak escort bayan trabzon escort trabzon escort bayan tekirdağ escort tekirdağ escort bayan şırnak escort şırnak escort bayan sinop escort sinop escort bayan siirt escort siirt escort bayan şanlıurfa escort şanlıurfa escort bayan samsun escort samsun escort bayan sakarya escort sakarya escort bayan ordu escort ordu escort bayan niğde escort niğde escort bayan nevşehir escort nevşehir escort bayan muş escort muş escort bayan mersin escort mersin escort bayan mardin escort mardin escort bayan maraş escort maraş escort bayan kocaeli escort kocaeli escort bayan kırşehir escort kırşehir escort bayan www.escortperl.com