বৈদ্যুতিক সর্ট সার্কিট থেকে আগুন; ভষ্মিভূত কাপড় ব্যবসায়ীর বেঁচে থাকার অবলম্বন কি?


» কামরুল হাসান রনি | ডেস্ক ইনচার্জ | | সর্বশেষ আপডেট: ০২ মার্চ ২০২০ - ১২:৩৯:৪৪ অপরাহ্ন

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহঃ এক ছেলে এক মেয়ে আর স্ত্রী নিয়ে ফারুক হোসেনের সংসার। তার ছেলে ফাইয়াজ আহমেদ ৫ম শ্রেণীতে পড়ে আর মেয়ে ফারিন আক্তার প্লে তে পড়ছে।

শৈলকুপার আসাননগরের আনছার মন্ডলের ছেলে দারিদ্র ফারুক হোসেনের নেই কোন মাঠান জমাজমি, সম্পদ-সম্পত্তি। মাত্র ৫কাঠা জমির উপর তার বাড়ি-ঘর। গত ২০ বছর ধরে অন্যের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী হিসাবে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন। মূলত তিনি বিভিন্ন কাপড়ের দোকানে কাজ করতেন। তবে স্বল্প পুঁজি হাতে নিয়ে গত ৫ বছর আগে নিজেই একটা গার্মেন্টেসর দোকান দেন। ছেলে ফাইয়াজ এর নামে ভাটই বাজারে গড়ে তোলেন তার পরিশ্রমের ফাইয়াজ ফ্যাশান হাউজ নামের গার্মেন্টসটি।

শার্ট, প্যাান্ট, লুঙ্গি সহ নানা ধরেনের পোষাক দিয়ে সাজিয়েছিলেন কাপড়ের দোকানটি। এই ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নিয়ে ভালই চলছিল তাদের সংসার। গত ২১ জানুয়ারী মাসের মধ্য রাতে বৈদ্যুতিক সর্ট সার্কিট থেকে আগুন লেগে সম্পূর্ণ ভষ্মিভূত হয় তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটি। ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে সমস্ত গার্মেন্টস মালামাল সহ অবকাঠামোটিও ধ্বংস হয়ে যায়। ক্ষতি হয় প্রায় ৫০ লাখ টাকার। এমন অবস্থায় রুটি-রোজগারের একমাত্র অবলম্বন গার্মেন্টস টি হারিয়ে পথে বসেছে এই প্রান্তিক ব্যবসায়ী।

ঘুরে দাঁড়ানোর মতো কোন পূঁজিও তার হাতে অবশিষ্ট্য নেই। ব্যবসায়ী ফারুক হোসেন জানান, ছেলে-মেয়ের লেখাপড়া সহ সাংসারিক খরচ কিভাবে চালাবেন তাই এখন চিন্তার বিষয়। ভাটই বাজার কমিটির সভাপতি বাদশা আলমগীর জানান, ফারুক হোসেন সর্বশান্ত হয়ে গেছেন। তাকে সহযোগীতা না করলে তার পক্ষে ঘুরে দাঁড়ানো বা নতুন করে ব্যবসা-বানিজ্য করা সম্ভব নয়।