Avatar উত্তরা নিউজ টোয়েন্টিফর ডটকম ডেস্ক রিপোর্ট


বিদেশী সাংবাদিকদের বাংলাদেশের ইতিবাচক দিক তুলে ধরতে বললেন তথ্যমন্ত্রী






তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বিদেশি সাংবাদিকদের বলেছেন, বাংলাদেশ সম্পর্কে ইতিবাচক দিকগুলো বিশ্বের সামনে তুলে ধরুন।

সোমবার বিকেলে ২৫ দেশের সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ এখন এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে গেছে। আপনারা বাংলাদেশের ইতিবাচক দিকগুলো তুলে ধরবেন। ইতোপূর্বে বিদেশি গণমাধ্যমে বাংলাদেশের বন্যা, সাইক্লোনের সংবাদগুলো তুলে ধরতো। এখন আর তা নেই বললেই চলে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের এখন উন্নয়নশীল শীর্ষ পাঁচটি দেশের মধ্যে অবস্থান রয়েছে। বাংলাদেশের বর্তমান জিডিপির হার শতকরা ৮ দশমিক ১৫। শেষ দশ বছরে বাংলাদেশ অনেক এগিয়েছে। ফলে এখন বাংলাদেশ যেসব ইতিবাচক অগ্রগতি আছে সেগুলো বিশ্বের সামনে তুলে ধরুন।

বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতির সম্মুখীন উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী জানান, সেক্ষেত্রে বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে তেমন সুবিধা না পেলেও সসম্যা সামাধানে কাজ চলছে। বাংলাদেশের নিজস্ব তহবিল দিয়ে এ সমস্যা সমাধান করা হচ্ছে। বাংলাদেশের বিজ্ঞানীরা এ ক্ষেত্রে সফলতার সঙ্গে কাজ করছে।

হাছান মাহমুদ বলেন, বিগত ১০ বছরে গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় বাংলাদেশ ব্যাপক উন্নতি করছে। দেশে বর্তমানে ৩৩টি স্যাটেলাইট চ্যানেল সম্প্রচারে আছে। ৪৪টি টিভি চ্যানেলের লাইসেন্স দেয়া হয়েছে। ১৯৯৬ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথম বেসরকারি টিভি চ্যানেলের অনুমোদন দেন। বতমানে চারটি সরকারি চ্যানেল সম্প্রচারে আছে।

বাংলাদেশে ২১ রেডিও স্টেশনের অনুমোদন দেয়া হয়েছে, যার মধ্যে ১৭টি রেডিও স্টেশন চালু রয়েছে। এছাড়াও ১৭টি কমিউনিটি রেডিও চালু রয়েছে। ফলে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে বাংলাদেশে গণমাধ্যমের অভূপূর্ব অগ্রগতি হয়েছে। যোগ করেন তথ্যমন্ত্রী।

তিনি আরো জানান, আমাদের সারাদেশে সাতশ’র বেশে দৈনিক পত্রিকা রয়েছে। এছাড়াও তিন হাজার অনলাইন নিউজ পোর্টাল চালু রয়েছে। আমারা গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় সবকিছুই করছি। এটি অব্যাহত থাকবে। এর মাধ্যমে বাংলাদশের গণমাধ্যমের স্বাধীনতা অনেকটাই প্রতিয়মান হয়।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা করেছি। ২০০৯ সালে দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর তথ্য কমিশন গঠন করা হয়েছে। ইতোপূর্বে বাংলাদেশে কোনো তথ্য কমিশন ছিল না। প্রেস ইন্সটিটিউট দক্ষতা উন্নয়নে প্রফেশনাল মাস্টার্স কোর্স চালু করেছে। এছাড়াও ইতোমধ্যে ন্যাশনাল প্রেসক্লাব ৩১ তলা বিল্ডিংয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছে।

দেশের গণমাধ্যমগুলোর সংবাদকর্মীদের জন্য সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন করা হয়েছে। যার মাধ্যমে সাংবাদিকরা এবং তাদের পরিবার সুবিধা নিতে পারেন বলে জানান মন্ত্রী।