বান্দরবানে রাস্তা দেখিয়ে দিতে গিয়ে ৯ বছরের এক কিশোরী ধর্ষণে শিকার, ধর্ষক গ্রেফতার


» এইচ এম মাহমুদ হাসান | | সর্বশেষ আপডেট: ১০ অগাস্ট ২০২০ - ১০:১৮:৫৬ পূর্বাহ্ন

পানোয়াম বম, বান্দরবান (রুমা)প্রতিনিধি

বান্দরবান জেলার লামা উপজেলায় ৯ বছরের এক কিশোরীকে রাস্তা দেখিয়ে দিতে বলে মুখ চেপে জঙ্গলে নিয়ে জুঁরপূর্বক ধর্ষণে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে, গত (৮ আগষ্ট) শনিবার দুপুর অনুমানিক ১২ টার দিকে লামা উপজেলাধীন ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের পূর্ব ঘিলাতলী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।  এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শিরা জানান, ধর্ষিতা পরিবার সন্ধ্যা দিকে লামা উপজেলা থানায় এসে ঘটনার বিষয়টি অভিযোগ দায় করে।

সংশিষ্ট সূত্রের জানা গেছে, ধর্ষক মোঃ কাদের ঘটনার দায় এড়াতে ঘটনাস্থল থেকে পালানো চেষ্টা করলে এলাকার লোকজন তাকে আটক করে পরে ফাসিয়াখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কাছে নিয়ে যাওয়া হয় এবং পরে লামা থানায় খবর দেওয়া হলে লামা থানায় পুলিশ সদস্যরা ফাসিয়াখালী ইউনিয়নে ঘটনাস্থলে গিয়ে ধর্ষক মোঃ কাদের কে গ্রেফতার করে লামা থানায় নিয়ে আসে। সূত্রের মতে, ওই কিশোরী ধর্ষক মোঃ কাদের লামা উপজেলা পার্শ্ববর্তী চকুরিয়া উপজেলার ডলহাজারা ইউনিয়নের রংমহল এলাকায় বাসিন্দা মোঃ হাসেম ছেলে বলে জানা গেছে। ঘটনা ধর্ষিতা ওই কিশোরী বাবা জানান, গত (৮আগষ্ট) শনিবার অনুমানিক ১২ টার দিকে আমার মেয়ে বাড়ির রাস্তা আশেপাশে এলাকায় গরু চড়াতে যায়, এমন সময় ওই নরপশু মোঃ কাদের আমার মেয়েকে একা দেখে  তাকে বনপুর যাওয়ার রাস্তা দেখায় দিতে বলে কিছু দুরে নিয়ে গেলে জনশূন্যতা পেয়ে হঠাৎ আমার মেয়েকে মুখে চেপে ধরে কিছু দুরে জঙ্গলের নিয়ে জুঁরপূর্বক ভাবে  ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়,

পরে ঘটনাস্থল থেকে তাকে অঞ্জান অবস্থায় আমর মেয়েকে উদ্ধার করা হয় বলে তিনি জানিয়েছেন। জানা গেছে, ওই কিশোরী ধর্ষক মোঃ কাদের উক্ত ঘটনা থেকে দায় এড়াতে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন পরে স্থানীয় লোকজন অনেক খোঁজাখোঁজি  করার পর তাকে আটক করে প্রথমে ইউপি চেয়ারম্যান নিকট নিয়ে যাওয়া হয় এবং পরে লামা থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। এদিকে ঘটনা সত্যতা শিকার করে লামা থানায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জনাব মোঃ মিজানুর রহমান বলেছেন, ধর্ষিতা পরিবারের অভিযোগ সত্য ও ধর্ষক মোঃ কাদের বিরোধে আইনুগত ভাবে কঠোর ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানিয়েছে।