মুহাম্মদ গাজী তারেক রহমান মুহাম্মদ গাজী তারেক রহমান
উত্তরা নিউজ, স্টাফ রিপোর্টার


বাঁশ-লাল কাপড়ে সড়কে বিভাজক! চরম ঝুঁকিতে উত্তরখান (ভিডিও সহ)







মুহাম্মদ গাজী তারেক রহমান: উত্তরার ৬ নং সেক্টর সংলগ্ন ডিএনসিসিভুক্ত নবগঠিত ৫০ নং ওয়ার্ড এলাকা উত্তরখান। উত্তরার আজমপুর রেলগেট হয়ে উত্তরখানে প্রবেশের একমাত্র সড়ক শাহ কবির মাজার রোড। উত্তরখানের প্রায় কয়েক লক্ষ মানুষের চলাফেরা এই রাস্তাটি ধরে। প্রতিদিনই এই রাস্তাটি ধরে চলাচল করে প্রায় কয়েক হাজার যানবাহন- ট্রাক, কাডার্ভ ভ্যান, রিক্সা, অটোরিক্সা সহ বিভিন্ন ধরনের যানবাহন। উত্তরখান এলাকাবাসী ও যানচলাচলের একমাত্র সড়ক হওয়া সত্বেও বিগত কয়েক বছর ধরে শাহ কবির মাজার রোডসহ উত্তরখানের প্রায় সবগুলো এলাকার রাস্তাঘাটগুলো নানা খানাখন্দে ভরপুর। ফলে এলাকাবাসীকে পোহাতে হচ্ছে চরম দুর্ভোগ। অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও সত্য যে, এই এলাকায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতা-নেত্রীদের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হলেও এলাকার রাস্তাঘাট উন্নয়নে চরমভাবে অবহেলিত ঢাকা-১৮ আসনের অন্যতম এলাকা উত্তরখান।


উত্তরখানের শাহ কবির মাজার রোডটি প্রশস্ততায় তুলনামূলকভাবে স্বল্প আয়তনের হলেও এই রোডটিতে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে এলাকাবাসীর পায়ে হেটে চলাচল অনেকটা দুর্বিষহও বটে।
অন্যদিকে, সড়কটিতে বিভাজক তৈরির কোনরূপ উদ্যোগ গ্রহণের ব্যবস্থাটুকুও না থাকায় মারাত্মক ঝুঁকি নিয়েই পাড়ি দিতে হচ্ছে এই রোডটিতে চলাচলকৃত যানবাহনের চালকদের। ফলে সড়ক দূর্ঘটনার ঝুঁকি থেকে মুক্ত নয়, উত্তরখানের শাহ কবির মাজার রোড। তবে এলাকাবাসীর উদ্যোগে রাস্তাটির বিভিন্নস্থানে বাঁশের লাটিতে লাল কাপড় পেঁচিয়ে বিভাজক সংকেত তৈরি করা হয়েছে।


সরেজমিন পর্যবেক্ষন করে দেখা যায়, উত্তরখানের অন্যতম প্রধান সড়ক শাহ কবির মাজার রোডটিতে যান চলাচল স্বাভাবিক ও সড়কে শৃঙ্খলা বজায় রাখতে ওয়ার্ড কাউন্সিলর ডি এম শামীমের উদ্যোগে কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবককর্মীকে দেখা গিয়েছে। তাদের মধ্যে মোহাম্মদ কামাল হোসেন নামের একজন জানান, “আমরা এই রাস্তায় বিনা অর্থে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে যাচ্ছি। এই এলাকার মানুষজন চরম কষ্টে রাস্তাটি দিয়ে চলাচল করছে। আমরা চেষ্টা করছি যাতে করে রাস্তাটিকে এলাকাবাসীর জন্য চলাচলের উপযোগী করে গড়ে তোলা যায়।” এসময় এই স্বেচ্ছাসেবককর্মী আক্ষেপ করে জানান, সরকার যদি আমাদেরকে একটু প্রশিক্ষণ ও নির্দিষ্ট বেতন দিয়ে এই কাজে নিয়োজিত রাখতো তাহলে হয়তো আমার মত আরও যারা আছে, তারা সকলেই আরও ভালোভাবে কাজটি করতে পারত। আমরা আশা করি আমাদের নতুন মেয়র দ্রুতই এই কাজটি করে এই এলাকার মানুষদের জন্য একটি ভালো উদ্যোগ গ্রহণ করবেন”।