বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনৈতিক দর্শন


» কামরুল হাসান রনি | ডেস্ক ইনচার্জ | | সর্বশেষ আপডেট: ১৬ মার্চ ২০২০ - ০৪:০০:৪৩ অপরাহ্ন

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একজন সাধারণ মানুষ ছিলেন না। তিনি একটি প্রতিষ্ঠান, একটি আন্দোলন থেকে একটি সংগ্রাম এবং সংগ্রাম থেকে স্বাধীনতা অর্জনকারী বাংলাদেশের স্থাপতি। তিনি একটি অনবদ্য ইতিহাস। তিনি সকল অর্থেই আমাদের এক মহাপূজনীয় ব্যক্তি।

কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বলেছেন, “স্বদেশকে একটি বিশেষ ব্যক্তির মধ্যে আমরা উপলদ্ধি করতে চাই। এমন একটি লোক চাই, যিনি আমাদের সমস্ত সমাজের প্রতিমা স্বরূপ হবেন। তাকে অবলম্বন করেই আমরা আমাদের বৃহৎ স্বদেশীয় সমাজকে ভক্তি করবো, সেবা করবো। তার সঙ্গে যোগ রেখেই সমাজের প্রত্যেক ব্যক্তির সঙ্গে আমাদের যোগ রক্ষিত হবে।” (রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর : স্বদেশী সমাজ, রবীন্দ্রনাথ-রচনাবলী, ২য় সংস্করণ, বিশ্বভারতী ১৩৯৩, পৃষ্ঠা:- ৬৩৮)। রবীন্দ্রনাথ যেমন মানুষটির খোঁজ করেছিলেন তার সন্ধান পেতে আমাদের দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়েছে।

এখন থেকে প্রায় শত বছর আগে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন শেখ মুজিবুর রহমান। ডাক নাম খোকা। সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে তিনি হয়ে ওঠেন মুক্তিপাগল এক সংগ্রামী মানুষ। সময় যত গড়িয়েছে তত তার নেতৃত্বশৈলীর পরিচয় পেয়েছে বাঙালি জনগণ।

তিনি ছিলেন পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠীর জন্য এক ত্রাসের নাম। ছাত্র অবস্থা থেকে তিনি প্রত্যক্ষ রাজনীতির সাথে জড়িয়ে যান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণীর কর্মকর্তা, কর্মচারীদের আন্দোলনে যেমন তার অংশগ্রহণ দৃশ্যমান হয়েছে, তেমনি তার দৃপ্ত পদাচরণা ছিল ভাষা আন্দোলনের মত জাতীয়তাবাদী চেতনার আন্দোলনে। ধীরে ধীরে তিনি চলে এসেছেন রাজনীতির উচ্চ শিখরে। পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠীর অমানবিক অন্যায়, অত্যাচার, বৈষম্যের বিরুদ্ধে তার প্রতিবাদ ছিল দিক নির্দেশনা স্বরূপ।

১৯৬৬ সাল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার নেতৃত্বগুনের বড় পরিচয় দিলেন “ছয়দফা দাবি” উত্থাপনের মাধ্যমে। যার মাধ্যমে পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠীর অন্যায় শাসন থেকে তিনি বাঙালিদেরকে মুক্তির পথ দেখান। যার প্রত্যেক দফায় তিনি স্বাধীনতা ও সার্বভৌমের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। পরবর্তীতে, ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানী শাসকদের শোষণ থেকে বাঙালিদেরকে মুক্ত করার জন্য এক দিক নির্দেশনামূলক বক্তব্য দেন। যা বর্তমানে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ নামে পরিচিত। তার দিক নির্দেশনামূলক এই বক্তব্যে অনুপ্রাণিত হয়ে ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে উঠেছিল, সারাদেশে প্রতিরোধ শুরু হয়ে গিয়েছিলে। এভাবেই তিনি তার সম্মোহনী নেতৃত্বের অনন্য পরিচয় দিয়ে যান। এই মহান নেতার নেতৃত্বের পরশে ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর বাঙালি জাতি স্বাধীনতার রক্তিম সূর্যের দেখা পায়।

বঙ্গবন্ধুর গোটা জীবন কেটেছে আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে। তিনি ছিলেন সাধারণ মানুষের নেতা। মানুষের ওপর আস্থা অর্জন করার মতো মহৎগুনের অধিকারী ছিলেন, এই কালজয়ী নেতা। তিনি সবসময় একটি আসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখতেন, যেখানে মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান একত্রে বসবাস করবে, পারস্পারিক সম্প্রীতির মাধ্যমে। পাশাপাশি একটি ধর্ম নিরপেক্ষ রাষ্ট্র উপহার দেওয়ার চিন্তা-চেতনা তার মধ্যে ছিল। তার রাজনৈতিক দর্শন ছিল বাঙালি জাতিকে আত্মনির্ভরশীল হিসেবে গড়ে তোলা। এজন্য তিনি স্বাধীনতার পর অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য “দ্বিতীয় বিপ্লবের” ডাক দেন। এই উদ্দেশ্য তিনি ২৬ মার্চ, ১৯৭২ সালে বেতার ও টেলিভিশনের ভাষনে বলেন, “শ্মশান বাংলাকে আমরা সোনার বাংলা করে গড়ে তুলতে চাই। যে বাংলায় আগামী দিনের মায়েরা হাসবে, শিশুরা খেলবে। আমরা শোষনমুক্ত সমাজ গড়ে তুলব।

সারাবিশ্বে বাঙালি জাতির স্বাধীন সত্তাকে সম্মানের সঙ্গে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য এবং অর্থনৈতিক ভাবে স্বাবলম্বী করে গড়ে তুলতে তিনি চেয়েছিলেন। সেই লক্ষ্যে সারাজীবন নির্যাতন সহ্য করেছেন। ফাঁসির দঁড়ি তাকে তার লক্ষ্য থেকে এক চুল নড়াতে পারেনি।

তার সুদক্ষ নেতৃত্বে বাংলাদেশ যখন এগিয়ে যেতে শুরু করেছেন, তখন সেনাবাহিনীর কিছু বিপথগামাী সৈন্য সপরিবারে হত্যা করে এই সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি নেতাকে। এই ঘাতক বাহিনী ভুলে গিয়েছিল যে, বঙ্গবন্ধু চিরঞ্জীব। বঙ্গবন্ধুর শুধু শারীরিক মৃত্যু ঘটেছে, মৃত্যু ঘটেনি তার আর্দশের, লক্ষ্যের। তিনি তার কর্মের মাধ্যমে বেঁচে থাকবেন, যতদিন বাঙালি ও বাংলাদেশ থাকবে।

লেখকঃ- মোঃ হাসান তারেক