প্রিয়া সাহার বক্তব্য নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর মনোভাব


» উত্তরা নিউজ | অনলাইন রিপোর্ট | সর্বশেষ আপডেট: ২১ জুলাই ২০১৯ - ০৭:০৯:০৪ অপরাহ্ন

প্রিয়া সাহার বক্তব্য নিয়ে তুমুল আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলারের সঙ্গে দেখা করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

রোববার দেখা করে তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বলা প্রিয়া সাহার বক্তব্যের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মনোভাব তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রী চোখের চিকিৎসা ও ইউরোপের দেশগুলোতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতদের একটি সম্মেলনে যোগ দিতে সরকারি সফরে বর্তমানে যুক্তরাজ্যে রয়েছেন।

রোববার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘ঢাকা মেট্রোরেল নেটওয়ার্কের সময়বদ্ধ পরিকল্পনার ব্র্যান্ডিং’ বিষয়ক সেমিনার ও লাইসেন্স হস্তান্তর শেষে ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের জানান, সকালে তিনি ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলারের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন।

তিনি বলেন, ‘তাকে (মিলার) প্রিয়া সাহা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য জানিয়েছি। আমাদের ভাবনার সঙ্গে তাদের ভাবনার মিল থাকায় বিষয়টিতে তিনি ইতিবাচক সাড়া দিয়েছেন।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘু নির্যাতন সম্পর্কে প্রিয়া সাহার অভিযোগ নিয়ে তড়িঘড়ি কোনো আইনি ব্যবস্থা না নিতে নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে প্রিয়া সাহার বাড়িঘর ও ব্যক্তিগত সম্পদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে নির্দেশ দিয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘প্রিয়া সাহার অভিযোগ বানোয়াট, কাল্পনিক ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। তবে তাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেয়া হবে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ- তড়িঘড়ি করে তার বিরুদ্ধে লিগ্যাল অ্যাকশন, লিগ্যাল প্রসিডিউর (আইনি কোনো ব্যবস্থা) নেয়া যাবে না।’

এক প্রশ্নের জবাবে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘প্রিয়া সাহার বক্তব্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। তিনি দেশের বাইরে গিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে কেন, কী উদ্দেশ্যে এমন মিথ্যা বক্তব্য দিয়েছেন, তা দেশে ফিরলেই জানতে চাওয়া হবে।’

ইতোমধ্যে ‘রাষ্ট্রদ্রোহীতার’ অভিযোগ এনে দেশের বিভিন্ন স্থানে মামলা করা বিষয়ে তিনি বলেন, ‘রাষ্ট্রদ্রোহীতার মামলা করতে রাষ্ট্রপক্ষের সম্মতি নিতে হয়। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পর আমি বিষয়টি নিয়ে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের সঙ্গে কথা বলেছি। মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী তো নিজেই মামলা করতে চেয়েছিলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে নিষেধ করেছি। এক ব্যারিস্টার রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করতে গিয়েছিলেন, সেটিও অগ্রাহ্য করা হয়েছে।’

উত্তরা নিউজ/এস,এম,জেড