প্রাণে বাঁচতে রাখাল সেজে ঘুরে বেড়ান বাগদাদি


» কামরুল হাসান রনি | ডেস্ক ইনচার্জ | | সর্বশেষ আপডেট: ০৬ নভেম্বর ২০১৯ - ০৪:৪৮:৪৭ অপরাহ্ন

ইরাকের মসুলে আল নুরি মসজিদে দাঁড়িয়ে একটা মাত্র জ্বালাময়ী ভাষণ। আর তাতেই সাড়া পড়ে গিয়েছিল পুরো বিশ্বে। পরিবার পরিজনদের ছেড়ে তার দলে ভিড়েছিল হাজার হাজার ছেলে-মেয়ে। কোথাও আবার একাই রক্তগঙ্গা বইয়ে দিয়েছিল কেউ কেউ। কিন্তু জীবনের শেষ দিনগুলোতে সেই প্রতাপ ধরে রাখতে পারেননি জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) প্রধান আবু বকর আল-বাগদাদি।

বরং সারাক্ষণ শত্রুপক্ষের হাতে ধরা পড়ে যাওয়ার আতঙ্ক তাড়া করে বেড়াতো তাকে। তাই মাঝেমধ্যেই মেষপালকের ভান ধরতেন তিনি। তার সন্দেহ ছিল, যে কোনও সময়, যে কোনও দিক থেকে আক্রমণ হতে পারে। মানসিক অবস্থা এমন পর্যায়ে পৌঁছেছিল যে খুব কাছের লোকদের প্রতিও অবিশ্বাস জন্মেছিল। বাগদাদির সহযোগীদের জিজ্ঞাসাবাদ করে এমন তথ্য উঠে এসেছে।

গত ২৬ অক্টোবর সিরিয়ার ইদলিব প্রদেশের বারিশা এলাকায় বাগদাদির গোপন আস্তানায় হানা দেয় মার্কিন বাহিনীর অভিজ্ঞ ডেল্টা এবং ৭৫তম রেঞ্জার রেজিমেন্ট। হঠাৎ এই হামলায় কোণঠাসা হয়ে পড়েন বাগদাদি। তিন সন্তানকে নিয়ে একটি সুড়ঙ্গের মধ্যে আশ্রয় নেন। সেখানেই আত্মঘাতী জ্যাকেটের বোতাম টিপে তিন সন্তান ও নিজেকে উড়িয়ে দেন বাগদাদি।

সেই সময় তার কয়েকজন অনুচরও ওই আস্তানায় ছিলেন। তাদের মধ্যে কয়েকজন মার্কিন সেনাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে মারা যায়। আত্মসমর্পণও করে কয়েকজন।

বার্তাসংস্থা এপি বলছে, আত্মসমর্পণকারী ওই আইএস জঙ্গিরাই মার্কিন কর্মকর্তাদের কাছে বাগদাদির জীবনের শেষ দিনগুলোর বর্ণনা দিয়েছেন। মার্কিন যৌথ বাহিনীর লাগাতার হামলায় ক্রমশ কোণঠাসা হয়ে পড়েছিল আইএস। তাদের দখলে থাকা একাধিক এলাকাও একে একে হাতছাড়া হচ্ছিল। আর এতেই নিরাপত্তাহীনতা গ্রাস করেছিল বাগদাদিকে।

ইরাক সীমান্তে পূর্ব সিরিয়ার যেটুকু অংশ তাদের নিয়ন্ত্রণে ছিল, সেখানেই নিরাপদ আশ্রয় খুঁজে বের করতে মরিয়া হয়ে উঠেছিল। একসময় নিজেকে ইসলামিক স্টেটের ‘খলিফা’ হয়ে উঠতে চাইলেও, শেষমেশ আল-কায়েদাসহ প্রতিদ্বন্দ্বী জঙ্গি সংগঠনগুলো উত্তর-পশ্চিম সিরিয়ার ইদলিবেই আস্তানা গড়ে। হাতেগোনা কয়েকজন ছাড়া আর কারও সেখানে আসার অনুমতি ছিল না।

সেইসময় দাশিসাতেই নিজের শ্বশুরবাড়িতে ওই মেয়েটিকে রাখার বন্দোবস্ত করেন। অভিযোগ, মাঝে মধ্যে সেখানে গিয়ে ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে আসতেন এই আইএস নেতা। গত মে মাসে ওই কিশোরীকে উদ্ধার করে মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক বাহিনী।

বার্তাসংস্থা এপিকে দেয়া স্বাক্ষাৎকারে ওই কিশোরী বলেন, ২০১৭ সালে ইদলিব ছেড়ে পালানোর চেষ্টা করেছিলেন বাগদাদি। পরিকল্পনা অনুযায়ী তিনটি গাড়ির ব্যবস্থা করা হয়। স্ত্রী, নিরাপত্তারক্ষী এবং ওই কিশোরীকে নিয়ে তাতে চেপে পালানোর চেষ্টা করেন বাগদাদি।

কিন্তু মার্কিন বাহিনীর হামলা করতে পারে ভেবে মাঝ রাস্তা থেকে ফিরে যান। এরপর ২০১৮ সালের বসন্তের সময় ওই কিশোরীকে অন্য এক পুরুষের হাতে তুলে দেন বাগদাদি। এ ঘটনার পর আর কখনও দেখা হয়নি তাদের মধ্যে। শুধুমাত্র একবার তাকে একটি গহনা উপহার পাঠিয়েছিলেন আইএসের এই নেতা।

গত সপ্তাহে সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেল আল-আরবিয়াকে সাক্ষাৎকার দেন বাগদাদির আত্মীয় মোহাম্মদ আলী সাজিদ। তিনি বলেন, মৃত্যুর আগের কয়েক মাস সর্বদা উৎকণ্ঠায় ভুগেছেন বাগদাদি। নিজের নিরাপত্তা নিয়েও আগের চেয়ে অনেক বেশি খুঁতখুঁতে হয়ে উঠেছিলেন তিনি।

সাজিদ বলেন, রাতের অন্ধকার ছাড়া বাইরে বের হতেন না। একান্তই বের হতে হলে কালো কাপড়ে মুখ ঢেকে, নিরাপত্তারক্ষী নিয়ে যেতেন। সেইসময় তাকে ‘হাজি’ বা ‘শেখ’ বলেই ডাকতো নিরাপত্তারক্ষীরা। এমনকি নিজের অনুচরদের প্রতিও অবিশ্বাস জন্মেছিল তার। যে কোনও মুহূর্তে কেউ বিশ্বাসঘাতকতা করতে পারে বা আইএস জঙ্গি সেজে কেউ বাইরে থেকে দলে ঢুকে পড়তে পারে বলে সর্বদা আতঙ্কে ভুগতেন।

তিনি বলেন, এজন্য সর্বদা নিজের সঙ্গে আত্মঘাতী জ্যাকেট বা বেল্ট রাখতেন বাগদাদি। এমনকি ঘুমানোর সময়ও বিছানায় আত্মঘাতী বেল্ট রাখতেন, যাতে কোনোভাবেই শত্রুপক্ষের হাতে ধরা না পরেন। নজরদারি এড়াতে মাঝেমধ্যে মেষপালকের ছদ্মবেশও নিতেন বাগদাদি। নিজে মোবাইল ব্যবহার না করলেও তার সহযোগীদের মধ্যে কেউ কেউ মোবাইল ফোন ব্যবহার করত।

মোহাম্মদ আলী সাজিদের দাবি, সারাক্ষণ উৎকণ্ঠায় ভুগতেন বাগদাদি। তার ডায়াবেটিসের সমস্যাও আচমকা অনেকটা বেড়ে গিয়েছিল। এজন্য সারাক্ষণ ব্লাড সুগারের ওপর নজর রাখতে হতো। নিতে হতো ইনসুলিনও। তবে এত কিছুর পরও শেষরক্ষা হয়নি আইএসের এই নেতার।

 

জাগো নিউজ