প্রতিষেধক না এলে আগামী বছরও অলিম্পিক অনিশ্চিত


» উত্তরা নিউজ | অনলাইন রিপোর্ট | সর্বশেষ আপডেট: ১৯ এপ্রিল ২০২০ - ০৪:১৮:৩৬ অপরাহ্ন

করোনাভাইরাসের কারণে এক বছর পিছিয়ে গেছে অলিম্পিক গেমস। এই সপ্তাহেই আইওসি ও টোকিওর আয়োজকেরা পরের বছর সুষ্ঠু ভাবে অলিম্পিক আয়োজনের ব্যাপারে নতুন করে আশার কথা শুনিয়েছেন। কিন্তু আগামী বছরও টোকিওতে অলিম্পিক বা প্যারালিম্পিক হওয়ার সম্ভাবনা দেখছেন না বিশ্বের প্রথম সারির স্বাস্থ্যবিজ্ঞানী দেবী শ্রীধর। তার মতে, একমাত্র কার্যকরী ও সাশ্রয়ী মূল্যের চিকিৎসার সন্ধান পাওয়া গেলেই সেটা সম্ভব।

এডিনবরা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্লোবাল হেলথ বিভাগের প্রধান শ্রীধর বলেছেন, ‘সবকিছুই নির্ভর করবে সস্তার প্রতিষেধক আবিষ্কার হল কিনা তার ওপর। আমরা বিজ্ঞানীদের মুখে শুনছি, আগামী কিছুদিনের মধ্যে প্রতিষেধক আবিষ্কার হয়ে যেতেও পারে। তবু মনে হয়, তার জন্য এক থেকে দেড় বছর সময় লেগে যাবে। যদিও অনেকে বলছেন, সে দিন নাকি খুব দূরে নয়। সেটা হলে অবশ্যই ভালো এবং সে ক্ষেত্রে পরের বছর টোকিওয় অলিম্পিক করার ভাবনা অবাস্তব কিছু নয়।’

জাপান কিন্তু করোনাভাইরাস মহামারীর কবল থেকে এখনও মুক্ত নয়। সংক্রমণ রুখতে সে দেশে আগামী ৬ মে পর্যন্ত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে। টোকিও অলিম্পিক আয়োজক কমিটির প্রধান ইয়োশিরো মোরি জানিয়েছেন, এই বছরের অলিম্পিক বাতিল হওয়ার পরে করোনা-পরিস্থিতির সঙ্গে লড়াই করতে তারা নতুন করে একটি টাস্কফোর্স গঠন করেছেন। শ্রীধর আরও বলেছেন, ‘করোনার প্রতিষেধক বা ওষুধের দামও যেন সাধারণ মানুষের ধরাছোঁয়ার মধ্যে থাকে। আর তা সহজলভ্যও হতে হবে। প্রতিষেধক আবিষ্কার না হলে পরের বছরও অলিম্পিক হওয়া নিয়ে গভীর সংশয় আছে।’