দ্বন্ধের খেলা বনাম বুদ্ধির মাইর


» উত্তরা নিউজ ডেস্ক জি.এম.টি | | সর্বশেষ আপডেট: ০৯ জুন ২০২০ - ০৪:৩৬:৪২ অপরাহ্ন

পৃথিবীর সূচনালগ্ন থেকে সত্যের সাথে মিথ্যের,উগ্রতার সাথে ভদ্রতার,নম্রতার সাথে নির্লজ্জতার,হকের সাথে বাতিলের দ্বন্ধ চলে আসছে।সত্য সদা সমাগত মিথ্যা হয়েছে পরাভূত । জীবনের সাথে জীবিকার, যৌবনের সাথে যৌনতার,হীনতার সাথে দীনতার,দরিদ্রের সাথে ধনীর,রাজার সাথে প্রজার,মালিকের সাথে শ্রমিকের দ্বন্ধ চলছে বিরামহীন। কার্ল মার্কস মালিকের সাথে শ্রমিকের দ্বন্ধকে শ্রেণি সংগ্রাম বলে অভিহিত করেছে।দিনে দিনে বাড়ছে দ্বন্ধের খেলা।দ্বন্ধের মাঝে চলে বুদ্ধির মাইর।

বিশ্বব্যাপি চলছে চিন্তাযুদ্ধ বা বুদ্ধির খেলা।এক জাতি অন্য জাতিকে, এক দেশ অন্যদেশকে,এক গোত্র অন্য গোত্রকে যতটা না সম্মুখ যুদ্ধে পরাজিত করছে এর চেয়ে বেশি পরাজিত করছে বুদ্ধি বা চিন্তা যুদ্ধের মাধ্যমে। মানুষের মধ্যকার দ্বন্ধ প্রকাশ পায় জাতিভেদে,ধর্ম,বর্ণ,শ্রেণি ভেদে।ধনী গরিবকে শোষণ করে, ক্ষমতাবান ক্ষমতাহীনকে,রাজা প্রজাকে,মালিক শ্রমিক কে শোষণ করে বলেই জগত জুড়ে দ্বন্ধ লেগে আছে।এই দ্বন্ধের অন্যতম কারণ নিজের ভালোটা অাগে চাওয়ায়।

ইসলাম শ্রমিক আর মালিকের মাঝে,রাজা আর প্রজার সাথে, ধনী আর দরিদ্রের মাঝে ভেদাভেদ দেখতে চায়না।মহান অাল্লার কাছে মালিক-শ্রমিক,রাজা– প্রজা,ধনী- দরিদ্রের মাঝে অালাদা বড়ত্ব নেই।দ্বন্ধের সূচনা হয়েছে মহান অাল্লাহর বিধান না মানার কারণে।বিশ্ব প্রতিপালক, রাজাধিরাজ, যিনি চিরঞ্জীব,চিরস্থায়ী জগতের মালিক,যার ক্ষয় নেই,যিনি অবিনশ্বর তিনি হলেন মহান অাল্লাহ সর্বক্ষমতার মালিক ও উভয় ভবের অধিপতি। জন্মলগ্ন থেকে মোরা যার করুণায় বড় হয়েছি সেই রাজাধিরাজকে ভুলে যাই পার্থিব জীবন,যৌবন জীবিকা,সম্পত্তির মোহে পড়ে।মত্ত হয়ে পড়ি নারী,বাড়ির আর গাড়ির মায়ায়।ক্ষণিকের এই নশ্বর দুনিয়ার মোহে মেতে উঠি নিত্য আহ্লাদে।

শখের বশে,সুখের সন্ধানে, কুপ্রবৃত্তির তাড়নায় করে বসি পাপাচার,অনাচার।ডুবে যায় পাপের সাগরে।বিসর্জন দিই নীতি নৈতিকতার।নিজেকে ব্যস্ত করে তুলি পার্থিব সুখ বিলাসে।সকাল থেকে সন্ধ্যা কাটে পাপাচারে।ধ্যানে,মনে,মননে,হৃদয় আর অাবেগ অনুভূতি জুড়ে থাকে দুনিয়ার চিন্তা।ঘুমে চেতনে,হাঁটতে বসতে জীবন জীবিকার চিন্তায় বিভোর হই।একটি বারও চিন্তা করিনা কে আমাদের সৃষ্টি করেছে? কেন করেছে?মৃত্যুর পর কোথায় যাব?পশ্চিমা আকাশ সংস্কৃতি, মুক্তাচিন্তা,বেহায়াপনা আমাদেরকে জীবন জীবিকার ধ্যানে লাগিয়ে দিয়েছে।

আল্লাহর বিধান পালনে করেছে অনাগ্রহী ।মানবিকতার বদলে মননে মস্তিস্কে জায়গা করে নিয়েছে পাশবিকতা।ভালোবাসার পরিবর্তে হৃদয়ে বীজ বপন করেছে ঘৃণা বিদ্বেষের। মার্কিন সাম্রাজ্যবাদীরা আমাদের মাঝে কৌশলে প্রবেশ করিয়ে দিয়েছে বর্ণ ও শ্রেণি বিদ্বেষ।সাহায্যের নামে শোষণ,ভালোবাসার নামে মারছে তিলে তিলে।বিশ্বব্যাপি মুসলিম নিধনযজ্ঞ তাদের প্রত্যক্ষ পরোক্ষ মদদে সম্পাদিত হচ্ছে।বাবার কোলে অবুঝ শিশুর নিথর দেহ,বুলেটের অাঘাতে ঝাঁঝরা বুক, রক্তাক্ত বাবার লাশ ছেলের কাঁধে বহন করা বড় কষ্টের,বড় বেদনার। মায়ের সামনে বোনকে,ছেলের সামনে মাকে বিবস্ত্র করে গণধর্ষণের বীভৎস দৃশ্য কোন মানুষ তো দূরের কথা কোন ইতর প্রাণীও সহ্য করার ক্ষমতা রাখেনা।

কাশ্মীর,ফিলিস্তিন,আফগানিস্তান,মিয়ানমার,সিরিয়া, লিবিয়া,ইরাকের মা বোনের ইজ্জত বাচানোর অার্তনাদ এখনো কানে আসে।তাদের কান্না আমার বুকে যেন বুলেট বিঁধেছে।এসব পশ্চিমাদের দ্বন্ধ আর বুদ্ধির মাইর।পশ্চিমা সাম্রাজ্যবাদী হায়েনাদার মানবতার বুলি চরম হাস্যকর ও নাটকের চেয়ে নাটকীয়।আজ মুসলমানরা অসহায় হয়ে কাঁদছে বিশ্ববিধাতার কাছে।আমরা অসহায়,অাঁধারে নিমজ্জিত , পাপের সাগরে পতিত।হে রহমান জালিম ও হায়েনাদের কবল থেকে মুসলিম উম্মাহকে রক্ষা করো।

লেখকঃনুর আহমেদ সিদ্দিকী