দেশের উন্নয়ন ও বিনিয়োগে সবচেয়ে বড় বাঁধা বহুমাত্রিক দূর্নীতি: মোস্তফা


» উত্তরা নিউজ | অনলাইন রিপোর্ট | সর্বশেষ আপডেট: ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ - ০৮:০২:৩৩ অপরাহ্ন

বিশেষ সংবাদদাতা: দূর্নীতি বিরোধী অভিযানকে ইতিবাচক হিসেবে আখ্যায়িত করে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, দেশের উন্নয়ন ও বিনিয়োগে সবচেয়ে বড় বাঁধা বহুমাত্রিক দূর্নীতি। স্বাধীনতাকে অর্থবহ করতে হলে দূর্নীতির মূলোচ্ছেদ অপরিহার্য।

তিনি বলেন, দূর্নীতি বিরোধী অভিযানে আটক রাজনৈতিক অঙ্গনের বিশেষ কয়েকজনের দূর্নীতি উন্মোচন হওয়ায় আর্থিক হরিলুটের ভয়াবহ চিত্র ফুটে উঠেছে। তাই রাজনৈতিক দূর্বৃত্তায়ন বন্ধ করা গেলে আমলাতান্ত্রিক দূর্নীতির পথ রুদ্ধ হবে এবং সাধারণ মানুষের কাঙ্থিত একটি সূখী সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গড়ে উঠবে।

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের আবদুস সালাম মিলনায়তনে তৃনমূল জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন (তৃনমূল এনডিএম)’র ২য় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে “সমৃদ্ধির বাংলাদেশ এবং একজন শেখ হাসিনা”-শীর্ষক আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, দূর্নীতি দমনের মতো একটি জটিল কাজে জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলা প্রয়োজন । এক্ষেত্রে রাজনৈতিক নেতৃত্ব ও দেশবাসীর সুর, চিন্তা ও আকাঙ্খা একই হওয়া উচিৎ। কেননা দূর্নীতিবাজরা শক্তিশালী চক্র। রাজনীতি কিংবা আমলাতন্ত্র সকল ক্ষেত্রেই তাদের অবস্থান শক্তিশালী। তারা নিজস্ব বলয়ভুক্ত একটি বিত্তবানগোষ্ঠী গড়ে তুলেছে।

তিনি আরো বলেন, দুর্নীতি বিরোধী চলমান অভিযানে প্রধানমন্ত্রীর দূর্নীতি বিরোধী অবস্থানের প্রতিফলন ঘটেছে। এই অভিযান যদি পরিণতি না পায়, তবে দেশও জাতির জন্যে ভয়ংকর হতে পারে। তবে মানুষ চায় যে এই অভিযান সঠিক পথে ও শক্তভাবে অগ্রসর হোক এবং প্রধানমন্ত্রী সফল হোক।

তৃনমূল এনডিএম চেয়ারম্যান খোকন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে বীর, ভাষা সৈনিক মো. রেজাউল করিম। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন ভারতীয় জনতা পার্টি মজদুর ট্রেড ইউনিয়ন-পশ্চিমবঙ্গের সাধারণ সম্পাদক শ্রী সাধন তালুকদার, বাংলাদেশ এডিটরস ফোরাম সাধারণ সম্পাদক মো. রফিকুল আনোয়ার, কলকাতার সাপ্তাহিক মুক্তিযোদ্ধার সম্পাদক গৌতম ঘোষ। উদ্বোধন করেন ড. ওয়াজেদ মিয়া কল্যাণ পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মাকসুদুর রহমান মাসুদ, বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ হিন্দু মহাজোট সিনিয়র সহ-সভাপতি ডা. এস কে রায়, বঙ্গবন্ধু পেশাজীবি ফোরাম সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন, আওয়ামী লীগের দপ্তর উপ কমিটির সহ-সম্পাদক ইস্কান্দার মির্জা শামীম, দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মো. রাজ্জাকুল হায়দার, ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মো. নুরুল ইসলাম চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান কাজী শহিদ উল্লাহ, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এম এস চৌধুরী শুভ প্রমুখ।