‘দেশকে ডেঙ্গুমুক্ত না করা পর্যন্ত আওয়ামী লীগ মাঠে থাকবে’


» মোহাম্মদ তারেকউজ্জামান খান | সম্পাদক ও প্রকাশক | সর্বশেষ আপডেট: ০৪ অগাস্ট ২০১৯ - ০৩:৫৬:১৩ অপরাহ্ন

বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষকে ডেঙ্গুমুক্ত না করা পর্যন্ত আওয়ামী লীগের সকল নেতাকর্মী ডেঙ্গুবিরোধী অভিযানে মাঠে থাকবে বলে জানিয়েছেন দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নিয়েছি, যতদিন না ভয়ংকর এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে না আসবে, যতদিন পর্যন্ত আমরা প্রাণঘাতি ডেঙ্গু জ্বর থেকে মানুষকে রক্ষা করতে না পারব ততদিন পর্যন্ত আমাদের এই পরিচ্ছন্নতা অভিযান অব্যাহত থাকবে।

আজ রবিবার রাজধানীর শান্তিনগর মোড়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ডেঙ্গু নিধন অভিযান কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

ডেঙ্গু পরিস্থিতি মোকাবেলায় সবাইকে সম্মিলিতভাবে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ডেঙ্গু মোকাবিলা করতে প্রতিটি ঘরের আঙ্গিনা পরিষ্কার রাখতে হব। সেজন্য প্রতিটি মানুষের আন্তরিকতা ও সহযোগিতা দরকার।

ডেঙ্গু মুক্ত ও এডিস মশা নিধনে দুই সিটি করপোরশনের মেয়র, স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়কে সমন্বিতভাবে কাজ করার অনুরোধ জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, আমি আপনাদেরকে অনুরোধ করব, আপনারা যা বলবেন, একত্রে বসে সমন্বিতভাবে ঠিক করে নেবেন। কি বক্তব্য, কোনদিন কি হচ্ছে, এটা আপনারা জনগণকে জানাবেন। এমন কোনো বিষয়ে একেক জন একেক রকম বলবেন না, যাতে করে আজকে জনমনে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়, বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়।

ঢাকা সিটি করপোরেশনসহ মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্টদের উদ্দেশ্যে ওবায়দুল কাদের বলেন, কার্যকর ওষুধের জন্য দুই সিটি করপোরেশন চেষ্টা করছে। আমরা আশা করছি, অনতিবিলম্বে এতো বেশি পরীক্ষা-নিরীক্ষায় না গিয়ে এখন এডিস মশার যে বিস্তার ঘটেছে তা প্রতিরোধে তাৎক্ষণিক যা যা করণীয় আপনাদের করতে হবে।

একটা মহল ডেঙ্গু নিয়ে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে দাবি করে সেতুমন্ত্রী বলেন, যাতে ঈদের সময় মানুষ বাড়ি-ঘরে না যায়। এজন্য তারা আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। মানুষ কেন বাড়ি-ঘরে যাবে না! সবার ইচ্ছা আছে পরিবার-পরিজন, আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে ঈদ উৎযাপন করার। সবাই যাবেন তবে সর্তক থাকবেন। এটাই হলো আমাদের অনুরোধ, সর্তক থাকবেন। কারো জ্বর হলে রক্ত পরীক্ষা করে বাড়ি যাবেন, তা নাহলে বড় ধরনের বিপদের আশঙ্কা থাকতে পারে।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য রাশেদ খান মেনন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম, শ্রম ও জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, কার্যনির্বাহী সদস্য মির্জা আজম ও এস এম কামাল হোসেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।