দুনিয়াতে স্বার্থ ছাড়া কেউ চলে না -লিখন রাজ


» কামরুল হাসান রনি | ডেস্ক ইনচার্জ | | সর্বশেষ আপডেট: ২৩ মে ২০২০ - ০১:৫৮:২৬ অপরাহ্ন

“প্রতিদিন খোঁজ রাখা মানুষটাও একদিন হারিয়ে যাবে যদি তুমি একদিনের জন্য হলেও তার খোঁজ না নাও। প্রতিদিন ভালোমন্দ বুঝে শাসন করা মানুষটাও একদিন আর তোমাকে শাসন করবে না যদি তুমি তাকে মূল্য না দাও। তোমাকে উপকার করা বন্ধুটাও একদিন তোমাকে ভুলে যাবে যদি তার উপকারের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ না করো।

জগতে এ নিয়মের বাহিরে কেউ নাই, বাহিরে কেউ থাকে না! একটা গাছকে তুমি যত যত্ন নিবে যত পরিচর্যা করবে গাছটি আরো তত দ্রুত বড় হয়ে তোমাকে ছায়া দিতে থাকবে। যদি গাছটির পরিচর্যা না করো গাছটি শুকিয়ে মরে যাবে, তেমনি প্রতিদিন খোঁজ রাখা মানুষটাও যদি তোমার বিন্দুমাত্র নজর না পায় সেও একদিন তোমাকে ভুলে যেতে বাধ্য হবে। তুমি ছোটদের একটা আদেশ করলে সে যদি তোমার আদেশটি অমান্য করে তাহলে পরবর্তীতে তুমি তাকে আদেশ করতে যাবে না, কারণ সে তোমাকে মানে না।

তেমনিভাবে কেউ একজন তোমার ভালোমন্দ বুঝে তোমাকে শাসন করে আর তুমি যদি তাকে গুরুত্ব না দাও, সেও একদিন তোমার উপর থেকে অধিকার করা বন্ধ করে দিবে। তুমি কাউকে উপকার করলে বিনিয়মে সে একটা ধন্যবাদ পর্যন্ত দিলো না, পরবর্তীতে তাকে উপকার করতে সহজে আসবে না কারণ সে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে জানে না। তেমনিভাবে কেউ তোমাকে উপকার করেও যদি তোমার কৃতজ্ঞতা না পায়, পরবর্তীতে তার কাছ থেকেও উপকার আশা করাটা বোকামি।

তোমার অবহেলা সহ্য করে কেউ হয়তো তোমার কাছে একদিন, দুইদিন, কিংবা তিনদিন পর্যন্ত চলে আসবে কিন্তু চতুর্থ দিন তুমি আর তাকে পাবে না। কারণ ততদিনে সে তোমাকে ছাড়া বাঁচতে শিখে গেছে। তোমার বাড়ির পাশে কুকুরকে নিয়মিত তাড়িয়ে দেখো, কুকুরও তোমার এলাকা ছেড়ে পালাবে আর সেখানে তো আমরা মানুষ। এই দুনিয়াতে স্বার্থ ছাড়া কেউ চলে না। বিনা স্বার্থে যে সবার সাথে তাল মিলিয়ে চলে সে ব্যক্তিত্বহীন, স্বার্থ ছাড়া মানুষ হয় না। যে বলে আমি কারো কাছে স্বার্থ রাখি না সে মিথ্যা বলে শুধু তাই নয়, মনে মনে সে আরো প্রচুর স্বার্থ পুষে রাখে, যেটা তোমাকে ধরাও দিবে না।

কাজে কর্মে বুঝিয়ে যাবে সে আসলে স্বার্থপর ছিলো। কেউ তোমার সাথে ভালো ব্যবহার করলে বিনিময়ে সেও তোমার ভালো ব্যবহার আশা করে যে তোমার খোঁজ রাখে সেও চায় তুমি তার একটু হলেও খোঁজ রাখো। মনে রেখো, বিনা স্বার্থে মানুষ হয় না, বিনা স্বার্থে মন হয় না। যে তোমার নিয়মিত খোঁজ রাখে, তোমার কেয়ার করে, বিনিময়ে একটু হলেও তার খোজ নিও। যে তোমার একদিন হলেও উপকার করেছে তাকে কখনো ভুলে যেও না, সে শত্রু হলেও তার কাছে তুমি কিন্তু ঋণী। কাউকে অবহেলা না করে ভালোবাসতে শিখো এতে নিজেকে ছোট করা হয় না বরং নিজের ব্যক্তিত্ব প্রকাশ পায়।