দলে ডাক পাওয়া ক্রিকেটারদের ফের পরীক্ষা


» এইচ এম মাহমুদ হাসান | | সর্বশেষ আপডেট: ০৭ অক্টোবর ২০২০ - ১২:৪৬:৩৩ অপরাহ্ন

ওয়ানডে ক্যাপ্টেন তামিম ইকবাল, টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ আর এইচপির নেতৃত্ব দেয়া নাজমুল হোসেন শান্তর নেতৃত্বে ১৫ জনের দল ঘোষণা করা হয়েছে। যাতে তিনজন করে স্ট্যান্ডবাইও দেয়া আছে। অর্থাৎ প্রতি দলের জন্য ১৮ জন।
 
গত এক দুই বছর জাতীয় দলের হয়ে সীমিত ওভারের ক্রিকেট খেলেছেন, এমন প্রায় সবাই জায়গা পেয়েছেন। যে বিশাল বহরে যুব বিশ্বকাপজয়ী দলের অধিনায়ক আকবর আলীসহ ৮ ক্রিকেটারও আছেন।
 
এর মধ্যে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দলে আছেন মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী নিপুন ও রাকিবুল হাসান। নাজমুল হোসেন শান্তর বাহিনীতে জায়গা পেয়েছেন তৌহিদ হৃদয় ও পারভেজ হোসেন ইমন। আর তামিম ইকবালের দলে আছেন আরও চারজন-আকবর আলী, তানজিদ হাসান তামিম, শাহাদত হোসেন দিপু ও পেসার শরিফুল ইসলাম।
 
মোদ্দা কথা, ১৮ জন করে তিন দলে ৫৪ জন ক্রিকেটারের সামনে আবার ব্যাট ও বল হাতে একটা টুর্নামেন্ট খেলার হাতছানি। কিন্তু যাদের নাম গতকাল (মঙ্গলবার) রাতে ঘোষণা করা হয়েছে, মিডিয়ায় যাদের নাম এসেছে, তারা যে সবাই আগামী ১১ অক্টোবর থেকে অনুষ্ঠেয় তিন দলের ওয়ানডে সিরিজে অংশ নিতে পারবেন, এমন নয়।
 
বর্তমান প্রেক্ষাপটে নির্বাচকদের মন জয় করে দলে জায়গা পাওয়াই শেষ কথা নয়। আসল কথা হলো করোনামুক্ত থাকা। ‘কোভিড-১৯’ নেগেটিভ হলেই কেবল ঐ আসরে খেলা সম্ভব হবে। অন্যথায় নয়।
 
আর তাই ঐ আসরের আগে আরও একবার করোনা টেস্ট দিতে হবে সবাইকে। ২ দিনের দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ শেষ। আজ থেকে সামনের তিন দিন বিশ্রাম। এর পর ১০ অক্টোবর আবার হোটেলে বায়ো সিকিউর বাবলে ওঠা। আগামী শনিবার আবার সোনারগাঁ প্যান প্যাসিফিকে ‘চেক-ইন’ করবেন তামিম, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ, শান্তরা।
 
এই তিন দিন যতই ছুটির আমেজে থাকুন না কেন, ১০ অক্টোবর হোটেলে ওঠার আগে আবার কোভিড-১৯ টেস্ট বাধ্যতামূলক। আর টেস্টে উত্তীর্ণ হলেই কেবল টিম হোটেলে ওঠা যাবে।
 
বিসিবি প্রধান নির্বাচক দেবাশীষ চৌধুরী আজ (বুধবার) সকালে জাগো নিউজকে জানিয়েছেন, আবার সব ক্রিকেটারকে টেস্ট দিতে হবে। সেটা কবে? দেবাশীষ চৌধুরীর জবাব, ‘যেদিন তারা হোটেলে চেক-ইন করবেন, তার ঠিক আগের দিন।’
 
এটা নিশ্চিত যে, আগামী ১০ অক্টোবর শনিবার হোটেলে চেক-ইন করবেন তিন দলের ক্রিকেটাররা। তার আগের দিন মানে ৯ অক্টোবর করোনা টেস্ট দিতে হবে। দেবাশীষ চৌধুরী নিশ্চিত করেছেন, দুপুরের আগে টেস্ট করা হলে তারা ঐদিনই রাত ১১টা নাগাদ রিপোর্ট পেয়ে যাবেন।
 
কাজেই ৯ অক্টোবর টেস্ট দিয়ে করোনা নেগেটিভরা ১০ তারিখ সকালেই সোনারগাঁ প্যান প্যাসিফিক হোটেলে উঠে যেতে পারবেন। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু জাগো নিউজকে জানিয়েছেন, যারা স্ট্যান্ডবাই আছে, তাদেরকেও করোনা টেস্ট দিতে হবে।
 
নান্নু বলেন, ‘আমরা ইনজুরি আর করোনা পজিটিভ হবার কথা মাথায় রেখেই প্রতি দলে তিন জন করে স্ট্যান্ডবাই রেখেছি। কোনো দলের কেউ ইনজুরিতে পড়লে আর করোনা আক্রান্ত হলে যাতে তার বিকল্প তৈরি থাকে, সেই চিন্তায় স্ট্যান্ডবাই রাখা হয়েছে। তাদেরও করোনা টেস্ট করানো থাকবে। তবে তারা টিম হোটেলে থাকবে না। বাইরে থাকবে। দরকার পরলে আবার টেস্ট দিয়ে দলে ঢুকে যেতে পারবে।’