দক্ষিণখানে গার্ড কোম্পানীর চাকরির ফাঁদে অসহায় তরুণেরা!

অফিসার পদে চাকরি দেয়ার নামে করানো হচ্ছে নৈশ প্রহরীর কাজ

» মুহাম্মদ গাজী তারেক রহমান | উত্তরা নিউজ, স্টাফ রিপোর্টার | সর্বশেষ আপডেট: ১৩ নভেম্বর ২০১৯ - ১০:৫০:৪৬ অপরাহ্ন

দক্ষিণখানের আজমপুর কাঁচাবাজার সংলগ্ন ভাড়া বাসায় চাকরি দেয়ার নামে বেকার যুবকদের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয়া ও কর্মীদের বেতন না দেয়ার অভিযোগ উঠেছে একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত ওই প্রতিষ্ঠানের নাম মিলিনিয়াম গার্ড সার্ভিসেস লিঃ। কর্মীদের অভিযোগ, চাকরি দেয়ার সময় পোশাক, আইডি কার্ড, ভিজিটিং তৈরি করার নাম দিয়ে একেক জনের কাছ থেকে দুই হাজার, তিন হাজার, পাঁচ হাজার আবার কারো কারো কাছে দশ হাজার টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নেয়া হয়েছে। অথচ এই টাকার বিনিময়ে ডিউটি করার জন্য যেসব পোশাক দেয়া হয়েছে তা পরিধানের অযোগ্য। এমনকি ভালো প্রতিষ্ঠানে সুপার ভাইজার, অফিসার পদে চাকরি দেয়ার নাম করে করানো হচ্ছে নাইট গার্ডের চাকুরী। যা চাকরি দেয়ার নাম করে এক ধরনের প্রতারণা বলে মনে করেন অভিযোগকারীরা।

মিলিনিয়াম গার্ড সার্ভিসেস লিঃ এ সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত মিলন, নয়ন রায়, হানিফ, শফিকুল ইসলাম, মানিক, মোক্তার হোসেন নামের কর্মীরা প্রতিবেদককে জানায়, প্রতিষ্ঠানটির এমডি ও ম্যানেজার তাদের বেকারত্বের সুযোগ নিয়ে দিনের পর দিন প্রতারণা করে যাচ্ছে। সুপার ভাইজার হিসেবে নিয়োগ দেয়ার কথা থাকলেও তাদেরকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে করানো হচ্ছে নাইট গার্ডের কাজ।

এই ফ্লোরেই একসাথে ঘুমায় প্রতিষ্ঠানটিতে কর্মরত ৮-৯ জন কর্মী

এদিকে, থাকা-খাওয়ার সু-ব্যবস্থার কথা বলে চাকরিতে নিয়োগ দিলেও একটি মাত্র ছোট রুমে ৭-৮জনকে একত্রে ফ্লোরে ঘুমাতে হয় তাদের। আর প্রতিদিনের খাবারের কথা বলতে গিয়ে কেঁদে ফেলেন কয়েকজন। জয়পুরহাট জেলা থেকে চাকরি করতে আসা হানিফ নামের এক তরুণ জানায়, এখানে প্রতিদিন যে খাবার আমাদের জন্য রান্না করা হয়, সেগুলো আজকাল কুকুরেও খায়না। আবার, কর্মীদের অভিযোগ- কাজে নিয়োগ পাওয়ার দু-দিন মাস পার হয়ে গেলেও বেতন দিচ্ছে না মিলিনিয়াম গার্ড সার্ভিসেস লিঃ কর্তৃপক্ষ। নয়ন রায় নামের এক কর্মী জানায়, “তিন মাস হয়েছে চাকরিতে নিয়োগ পেয়েছি অথচ এখন পর্যন্ত বেতনের দেখা পাইনি। বরং কোম্পানীর মালিক সাদেক আলীর কাছে টাকা চাইলে সে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে। এমনকি লাঠি দিয়ে মারধরের ভয় দেখায়।” অপরদিকে, একই অভিযোগ মিলিনিয়াম গার্ড সার্ভিসেস লিঃ এর ম্যানেজার আইয়ুব আলী দেওয়ানের বিরুদ্ধেও।

জানা যায়, মিলিনিয়াম গার্ড সার্ভিসেস লিঃ এর মালিক সাদেক আলীর এই প্রতারণা ঘরের প্রধান কুশলী ম্যানেজার আইয়ুব আলী দেওয়ান। সে ই চাকরি করতে আসা বেকার যুবকদের টাকা উপার্জনের লোভ দেখিয়ে নানাভাবে তাদের কাছ থেকে অর্থ আদায় করে থাকে। পরবর্তীতে সেই টাকাই কোম্পানীর মালিকের সাথে ভাগ করে নিজের উদর ভরায়।

এমন অভিযোগের ভিত্তিতে দক্ষিণখানের আজিমপুর কাঁচাবাজার সংলগ্ন অবস্থিত মিলিনিয়াম গার্ড সার্ভিসেস লিঃ এর অফিস সরেজমিন পর্যবেক্ষন করে অভিযোগের স্পষ্ট সত্যতা চোখে পড়ে সাংবাদিকদের। ছয় তলা ভবনের নিচ তলায় মিলিনিয়াম গার্ড সার্ভিসেস লিঃ এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও ম্যানেজারের বসার কক্ষ এবং বাড়িটির ষষ্ঠ তলার উপর ছাদে ছোট্ট একটি রুমে করা হয়েছে কর্মীদের থাকার ব্যবস্থা। আর ওই রুমেই বাস করতে হয় প্রতিষ্ঠানটিতে কাজ করা নতুন নতুন কর্মীদের। চাকরি করতে আসা তরুণরা জানায়, একসাথে ৮-৯জনকে গাদাগাদি করে এখানে ঘুমাতে হয়। আবার খাবারের অবস্থা খুবই নিম্নমানের। এখানকার পরিবেশে বাস করে বেশ কয়েকজন অসুস্থ হয়ে গ্রামের বাড়িতে খালি হাতে ফিরি গিয়েছে অনেক আগেই।

চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা ও কর্মীদের বেতন না দেয়ার অভিযোগের বিষয়ে গণমাধ্যম কর্মীদের মুখোমুখি হলে, বেতন না দেয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছে মিলিনিয়াম গার্ড সার্ভিসেস লিঃ এর ম্যানেজার আইয়ুব আলী দেওয়ান। স্থানীয় সাংবাদিকরা কোম্পানীটির ম্যানেজিং ডিরেক্টর সাদেক আলীর সাথে দেখা করতে চাইলে, তিনি দেখা করতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তবে, সিকিউরিটি কোম্পানীটির পুরোনো নথি বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, বহু চাকরী প্রত্যাশীর জীবন বৃত্তান্ত ও আগত প্রার্থীদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেয়া টাকা গ্রহণের রেজিস্ট্রার্ড বুক।

সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে বিষয়টি জানাজানি হলে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন ভবনে বাস করা অন্যান্য লোকজন। এ সময় ভুক্তভোগীদের পাওনা টাকা ম্যানেজিং ডিরেক্টর সাদেক আলীর সাথে আলোচনা শেষে আগামীকাল (১৪ নভেম্বর, ২০১৯ তারিখ) সকাল ১১টায় পরিশোধ করার আশ্বাস দেন মিলিনিয়াম গার্ড সার্ভিসেস লিঃ এর ম্যানেজার আইয়ুব আলী দেওয়ান। অনুসন্ধানের স্বার্থে এসব ঘটনার ফুটেজ রেকর্ড আকারে ক্যামেরায় ধারণ করা হয়েছে। এদিকে, বিষয়টিকে অভিযোগ আকারে ডিএমপি দক্ষিণখানের দায়িত্ব প্রাপ্ত অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনারকেও অবহিত করেছে ভুক্তভোগীরা।