ডিএনসিসির অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মোঃ শরীফ উদ্দিনকে দক্ষ ও অভিজ্ঞ প্রকল্প পরিচালনার স্বীকৃতি প্রদান


» Md. Neamul Hasan Neaz | | সর্বশেষ আপডেট: ০৯ জানুয়ারি ২০২০ - ০৪:৪৬:৫৪ অপরাহ্ন

 ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মোঃ শরীফ উদ্দিনকে দক্ষ ও অভিজ্ঞ প্রকল্প পরিচালকের স্বীকৃতি প্রদান করা হয়। “ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের গুলশান, বনানী ও বারিধারা কূটনৈতিক এলাকার সড়ক, নর্দমা ও ফুটপাত নির্মাণ ও উন্নয়ন” শীর্ষক প্রকল্পের দৃষ্টিনন্দন ও সফল সমাপ্তির জন্য তাঁকে  এ স্বীকৃতি প্রদান করা হয়।

গতকাল বুধবার স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ সচিবালয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে তাঁকে প্রশংসা পত্র প্রদান করেন।

২১৯ কোটি ৬৭ লক্ষ ৭৩ হাজার টাকা ব্যয়ে “ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের গুলশান, বনানী ও বারিধারা কূটনৈতিক এলাকার সড়ক, নর্দমা ও ফুটপাত নির্মাণ ও উন্নয়ন” কাজ ১ মার্চ ২০১৫ তারিখে শুরু হয়ে ৩০ জুন ২০১৮ তারিখে সমাপ্ত হয়। এ প্রকল্পের উদ্দেশ্য ছিলঃ ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের গুলশান, বনানী ও বারিধারা কূটনৈতিক এলাকার সড়ক, নর্দমা ও ফুটপাত নির্মাণ ও উন্নয়ন; সড়কের জলাবদ্ধতা এবং বনানী লেকের দূষণ নিরসনে বিকল্প ড্রেনেজ লাইন নির্মাণ; প্রকল্প এলাকার যানজট হ্রাসের মাধ্যমে নিরবচ্ছিন্ন যানচলাচল ব্যবস্থার সম্প্রসারণ; প্রকল্প এলাকার ফুটপাত উন্নয়ন ও রক্ষণাবেক্ষণের মাধ্যমে পথচারীদের চলাচল সুগম করা; প্রকল্প এলাকার আর্থসামাজিক উন্নয়ন; সর্বোপরি প্রকল্প এলাকার উন্নয়নের মাধ্যমে এলাকায় বসবাস ও কর্মরত বিদেশী/কূটনৈতিক ব্যক্তিবর্গের নিকট দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করা। প্রকল্পের আওতায় ৪৮.৪১৬ কি.মি রাস্তা, ২৩.০৯৪ কি.মি. পাইপ ড্রেন, ৬২.৫০২ কি.মি. খোলা ড্রেন এবং ৭৫.৪৩১ কি.মি. ফুটপাত নির্মাণ ও উন্নয়ন করা হয়েছে।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ কর্তৃক প্রকল্পটির সমাপ্তি মূল্যায়নে উল্লেখ করা হয়,

“প্রকল্পভুক্ত প্যাকেজ নং w-4 প্যাকেজভুক্ত বনানী ২৭ নং সড়কের বিমানবন্দর সড়কাংশে সুদীর্ঘকাল দখলে থাকা প্রায় ১০.১০ কাঠা ২০২ বাই ৩০ ফুট জমি উদ্ধার এবং উন্নয়নকৃত সড়কে/ফুটপাতে অন্তর্ভুক্তি এ প্রকল্পের সফলতার অন্যতম একটি মাইলফলক। অন্যদিকে প্রকল্পভুক্ত প্যাকেজ নং W-7 প্যাকেজভূক্ত বারিধারা সার্ভিস রোডের প্রায় মধ্যবর্তী স্থানে বিদ্যমান কবর স্থানান্তরের মাধ্যমে যানবাহন চলাচলের জন্য উন্মুক্তকরণ, গুলশান-বারিধারায় বিদ্যমান বিভিন্ন দূতাবাস কর্তৃক ফুটপাত/সড়কে স্থাপিত/নির্মিত নিরাপত্তা সিসি ব্লক, বোলার্ড ইত্যাদি প্রকল্পের আওতায় অপসারণ করে যানবাহন চলাচল সুগম এবং পথচারীদের ফুটপাতে নিরবচ্ছিন্ন চলাচল নিশ্চিতকরণ একটি সাহসী ও যুগান্তকারী পদক্ষেপ হিসেবে সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছে”।

এছাড়া প্রতিবেদনের সুপারিশ অংশে বলা হয়,

“আলোচ্য প্রকল্পটির কর্মপরিকল্পনা, ডিজাইন এবং সফল ও দৃষ্টিনন্দন বাস্তবায়নের জন্য প্রকল্পটি অন্যান্য সিটি করপোরেশন/পৌরসভার জন্য একটি অনন্য মডেল প্রকল্প হিসেবে বিবেচিত হতে পারে। তাছাড়া বিভিন্ন প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে যথাসময়ে একটি সফল ও দৃষ্টিনন্দন প্রকল্প বাস্তবায়নে প্রকল্প পরিচালকের দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা প্রশংসার দাবি রাখে এবং এ ধরনের প্রকল্পকে উৎসাহিত করার জন্য আলোচ্য প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালককে প্রকল্প পরিচালক হিসেবে স্বীকৃতি প্রদানপূর্বক স্থানীয় সরকার বিভাগ কর্তৃক একটি প্রশংসাপত্র দেয়া যেতে পারে”।

শরীফ উদ্দিনকে প্রশংসা পত্র প্রদানকালে অন্যান্যের মধ্যে স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মরণ কুমার চক্রবর্তী, যুগ্ম প্রধান আবু মোঃ মহিউদ্দিন কাদেরী, ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আবদুল হাই, সচিব রবীন্দ্রশ্রী বড়ুয়া উপস্থিত ছিলেন।