কাউন্সিলর নুরুর নেতৃত্বে বাড়িঘর ভাংচুর

টঙ্গীতে মাস্ক না পড়ায় পিটিয়ে আহত

» উত্তরা নিউজ ডেস্ক জি.এম.টি | | সর্বশেষ আপডেট: ১৩ এপ্রিল ২০২০ - ০৮:৪০:৪৪ অপরাহ্ন

গাজীপুরের টঙ্গীতে মুখে মাস্ক না পড়ায় পিটিয়ে আহত ও বাড়িঘর ভাংচুর করার অভিযোগ উঠেছে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের এক কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে। টঙ্গীর হিমারদিঘী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় রবিবার রাতে টঙ্গী পূর্ব থানায় মামলা করেছে ভুক্তভোগি পরিবার। জানা গেছে, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে টঙ্গীর ৪৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নুরুল ইসলাম নুরুর নির্দেশে সুমন, রাজন মিয়া ও স্থানীয় একদল যুবক এলাকায় মাইকিং করতে থাকে।

মাইকিং চলাকালে রাস্তায় কোন মানুষজন দেখলে তাদেরকে লাঠি দিয়ে বেধরক পিটিয়ে আহত করে তারা। ঘটনার দিন বিকেলে নিজ বাড়ির গেইটের সামনে মুখে মাস্ক না পড়ে দাঁড়িয়ে থাকায় ছাত্রলীগ নেতা মৃদুলের উপর চড়াও হয় কাউন্সিলরের লোকজন। একপর্যায়ে মৃদুলকে বাড়ির ভিতরে ঢুকে পেটাতে থাকে তারা। মৃদুলের ডাক চিৎকারে তার বাবা মসিউজ্জামান বাবলু (৫৩) এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। এর কিছুক্ষণ পর কাউন্সিলর নুরুল ইসলাম নুরু ৫০/৬০জন লোক নিয়ে ফের ওই বাড়িতে হামলা চালায় বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী পরিবার।

এসময় হামলাকারীরা বাড়ির আসবাবপত্র ভাংচুর ও নগদ ৩ লাখ টাকা লুটে নেয় বলেও অভিযোগ করা হয়। খবর পেয়ে স্থানীয় বাসিন্দা মহানগর যুবলীগ নেতা কাইয়ুম সরকার এগিয়ে এলে তাকেও লাঞ্চিত করে কাউন্সিলর নুরু।

পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। মসিউজ্জামান বাবলু জানান, আগামী নির্বাচনে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ৪৬নং ওয়ার্ডে একজন কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে নিজেকে ঘোষণা দেওয়ার পর থেকে বর্তমান কাউন্সিলর নুরুল ইসলাম নুরু আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। ওই বিরোধের জের ধরে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে কাউন্সিলর নুরু ও তার লোকজন মাইকিংয়ের বাহানায় আমার ছেলেকে মারধর করে বাড়িতে হামলা ও ভাংচুরসহ প্রায় নগদ তিন লাখ টাকা লুটে নেয়।

এসময় মহানগর যুবলীগ নেতা কাইয়ুম সরকার বিষয়টি মীমাংসার জন্য এগিয়ে এলে নুরু ও তার লোকজন তাকে অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ ও গায়ে হাত তুলে লাঞ্চিত করে। এ বিষয়ে কাউন্সিলর নুরুল ইসলাম নুরু জানান, করোনা সংক্রমণ রোধে রাজনসহ কয়েকজন মাইকিং করতে গেলে ঝামেলা হয়। এ বিষয়টি প্রসাশনের কর্তাব্যক্তিরা অবগত রয়েছেন। আমি ঘটনাস্থলে সমাধানের জন্য গিয়েছিলাম।

টঙ্গী পূর্ব থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলামের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মামলা হয়েছে, আইনি প্রক্রিয়া চলমান থাকবে।