জেল থেকে সাতবার পালিয়ে সাতবারই ধরা!


» এইচ এম মাহমুদ হাসান | | সর্বশেষ আপডেট: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ - ১১:৫৫:৪৫ পূর্বাহ্ন

এক ইতালিয়ান খুনি জেল থেকে সাতবার পালিয়ে সাতবারই ধরা পড়েছেন। সপ্তমবার ধরা পড়লেন এক ভেড়ার খোয়াড়ে লুকাতে গিয়ে। মঙ্গলবার সেখান থেকে তাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

৬০ বছর বয়সী জিউসেপ্পে মাস্তিনি ‘জনি দ্য জিপসি’ নামে পরিচিত। ৬ সেপ্টেম্বর তাকে সার্ডিনিয়ার কারাগার থেকে সাময়িকভাবে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল এবং সেই সুযোগে তিনি পালিয়ে যান। পরে ইতালির উত্তর-পশ্চিমের দ্বীপ সারাসির কাছাকাছি একটি জায়গায় পাওয়া যায় তাকে।

পুলিশ সে এলাকার বহু বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে শেষ পর্যন্ত এক ভেড়ার খোয়াড়ে তাকে খুঁজে পায়। মাস্তিনি অবশ্য এরই মধ্যে তার চুলের রং সোনালি করে ফেলেছিলেন। তারপরও ধরা পড়ে যান তিনি।

ইতালির বার্তা সংস্থা এএনএসএ জানিয়েছে, মাস্তিনি মূলত বার্গামোর বাসিন্দা এবং ৭০-এর দশকে পরিবারের সঙ্গে তিনি রোমে চলে যান। সেখানে মাত্র এগারো বছর বয়সে প্রথম খুনটি করেন।

১৯৭৫ সালে ছবি নির্মাতা পিয়ার পাওলো পাসোলিনি খুন হন। সেই হত্যাকাণ্ডের অন্যতম আসামি তিনি। ১৯৮৭ সালে জেল থেকে পালিয়ে যান মাস্তিনি। দুই বছর পালিয়ে থাকা অবস্থায় ছিনতাই, পুলিশ হত্যা ছাড়াও নানা ধরনের অপরাধ করেন। বিভিন্ন অপরাধে সাতবার কারাগারে নেয়া হলেও এ পর্যন্ত সাতবার কারাগার থেকে পালিয়েছেন তিনি। একবারও অবশ্য পুলিশের চোখ এড়িয়ে বেশিদিন বাইরে থাকতে পারেননি।

৬০ বছর বয়সী জিউসেপ্পে মাস্তিনি ‘জনি দ্য জিপসি’ নামে পরিচিত। ৬ সেপ্টেম্বর তাকে সার্ডিনিয়ার কারাগার থেকে সাময়িকভাবে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল এবং সেই সুযোগে তিনি পালিয়ে যান। পরে ইতালির উত্তর-পশ্চিমের দ্বীপ সারাসির কাছাকাছি একটি জায়গায় পাওয়া যায় তাকে।

পুলিশ সে এলাকার বহু বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে শেষ পর্যন্ত এক ভেড়ার খোয়াড়ে তাকে খুঁজে পায়। মাস্তিনি অবশ্য এরই মধ্যে তার চুলের রং সোনালি করে ফেলেছিলেন। তারপরও ধরা পড়ে যান তিনি।

ইতালির বার্তা সংস্থা এএনএসএ জানিয়েছে, মাস্তিনি মূলত বার্গামোর বাসিন্দা এবং ৭০-এর দশকে পরিবারের সঙ্গে তিনি রোমে চলে যান। সেখানে মাত্র এগারো বছর বয়সে প্রথম খুনটি করেন।

১৯৭৫ সালে ছবি নির্মাতা পিয়ার পাওলো পাসোলিনি খুন হন। সেই হত্যাকাণ্ডের অন্যতম আসামি তিনি। ১৯৮৭ সালে জেল থেকে পালিয়ে যান মাস্তিনি। দুই বছর পালিয়ে থাকা অবস্থায় ছিনতাই, পুলিশ হত্যা ছাড়াও নানা ধরনের অপরাধ করেন। বিভিন্ন অপরাধে সাতবার কারাগারে নেয়া হলেও এ পর্যন্ত সাতবার কারাগার থেকে পালিয়েছেন তিনি। একবারও অবশ্য পুলিশের চোখ এড়িয়ে বেশিদিন বাইরে থাকতে পারেননি।