জাবালে নূর এখনও রাস্তায় চলছে কেন? আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা

মুহাম্মদ গাজী তারেক রহমান: গত ১৯ মার্চ এর রাজধানীর প্রগতি সরণিতে সুপ্রভাত পরিবহনের একটি বাস চাপায় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালের ছাত্র আবরার নিহত হওয়ার প্রতিবাদে আজ উত্তরা হাউজ বিল্ডিংয়ের ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করেছে উত্তরার শিক্ষার্থীরা। সকাল সাড়ে দশটা থেকে ছাত্র-ছাত্রীরা হাউজ বিল্ডিংয়ের মূল সড়কের মাঝে অবস্থান নেয় এবং যান চলাচল পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়। এ সময় ছাত্ররা- “আমার মায়ের কান্না-আর না আর না, আমার ভাই মরলো কেন?-জবাব চাই জবাব চাই, ওভারটেকিং ওভারটেকিং- চলবে না চলবে না, নিরাপদ সড়ক চাই-বাঁচার মত বাঁচতে চাই, ছাত্র পুলিশ ভাই ভাই-নিরাপদ সড়ক চাই, নেতা হতে আসি নাই- নিরাপদ সড়ক চাই, সিটিং বাসে চিটিং ভাড়া-বন্ধ করো বন্ধ করো” ইত্যাদি স্লোগানে চারপাশ প্রকম্পিত করে তোলে।
উত্তরা হাউজ বিল্ডিংয়ে অবস্থানরত শিক্ষার্থীরা ছাত্র নিহতের প্রতিবাদে আন্দোলন চালাতে লাগলে দুপাশের সড়কে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে। ফলে যাত্রীদের পড়তে হয় চরম ভোগান্তিতে। আন্দোলনের প্রভাবে বন্ধ হয়ে যায় উত্তরা এলাকার অন্যান্য প্রধান প্রধান সড়কগুলোও। ফলে পুরো উত্তরাতে যান চলাচলে বিঘ্ন ঘটে।
এরকম পরিস্থিতিতে বেলা ২টা ৩০মিনিটে আন্দোলন স্থানে ছুটে আসেন ডিএমপি উত্তরা জোনের অতিরিক্ত সহকারী পুলিশ কমিশনার কামরুজ্জামান সরদার, ট্রাফিক বিভাগ উত্তরা জোনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার জুলফিকার আলী ও প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ। উপস্থিত ছিলেন ডিএনসিসি ১ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আফসার উদ্দিন খান ও ৫১ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শরিফুল ইসলাম।
এ সময় শিক্ষার্থীরা অগ্নিকন্ঠে প্রশাসনের কাছে জানতে চায়, রমিজ উদ্দিন এর দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার পরও কেন সড়কে আবারও জাবালে নূর পরিবহন চলছে কেন? গতকালকে সুপ্রভাত বাস চাপা দিয়ে আবরারকে হত্যা করার পরও আজ আবার সুপ্রভাত বাস চলাচল করতে দেখা যাচ্ছে! আসলে আপনারা আমাদেরকে গতবারও আশ্বাস দিয়েছেন আর এবারও এসেছেন আশ্বাসের ফুলঝুড়ি নিয়ে, কিন্তু এবার আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই আমরা কোন কথার ফুলঝুড়িতে বিশ্বাসী নয়। আমরা বাস্তব প্রমাণ চাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *