Avatar এরশাদ হোসেন বিজয়
Reporter


চিত্রনায়ক অনন্ত জলিলের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান এ জে আই গ্রুপের ৫৭ লাখ টাকা চুরি করে পালিয়ে গেছেন গাড়িচালক শহীদ বিশ্বাস






উত্তরা নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমঃ চিত্রনায়ক অনন্ত জলিলের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান এ জে আই গ্রুপের ৫৭ লাখ টাকা চুরি করে পালিয়ে গেছেন গাড়িচালক শহীদ বিশ্বাস। এ নিয়ে সাভার মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। গতকাল রোববার বিকেলে থানায় গিয়ে গাড়িচালক শহীদ বিশ্বাস ও হিসাবরক্ষণ বিভাগের নির্বাহী জহিরুল ইসলাম বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন প্রতিষ্ঠানটির মানবসম্পদ ও প্রশাসন বিভাগের প্রধান জাহিদুল হাসান। বিষয়টি  নিশ্চিত করেছেন অনন্ত জলিল। তিনি জানান, মামলা দায়ের করার ঘণ্টাখানেকের মধ্যে জহিরুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করেছে সাভার মডেল থানার পুলিশ।

সাভারের হেমায়েতপুরে অবস্থিত পোশাক প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী চিত্রনায়ক অনন্ত জলিল। তাঁর প্রথম স্ত্রী এ জে আই গ্রুপের পরিচালক জাহানারা বেগমের আদাবরের বাসা থেকে জহিরুল ইসলাম ও শহীদ বিশ্বাস গ্যাস বিল পরিশোধ করার জন্য নগদ ৫৭ লাখ টাকা নেন। টাকাগুলো ব্যাংকে জমা দেওয়ার কথা থাকলেও তা না করে পালিয়ে যান বলে জানান জাহিদুল হাসান।

অভিযুক্ত গাড়িচালক শহীদ বিশ্বাসের বাড়ি ভোলায়। আটক কর্মকর্তার নাম জহিরুল ইসলাম। জাহিদুল হাসান বলেন, ‘আমাদের প্রতিষ্ঠানের গ্যাস বিল পরিশোধের জন্য পরিচালক জাহানারা বেগমের আদাবরের বাসা থেকে হিসাবরক্ষণ বিভাগের নির্বাহী জহিরুল ইসলাম ও গাড়িচালক শহীদ বিশ্বাস ৫৭ লাখ টাকা নিয়ে মাইক্রোবাসে করে সাভারের মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের উদ্দেশে রওনা দেন। পরে ওই দুজন হেমায়েতপুর শাখায় টাকা জমা না দিয়ে সাভারের থানা রোড এলাকায় সোনালী ব্যাংকে আসেন ভ্যাটের টাকা জমা দিতে। এ সময় জহিরুল ইসলাম গাড়িতে ৫৭ লাখ টাকা রেখে সোনালী ব্যাংকে যান। ব্যাংক থেকে ফিরে এসে জহিরুল ইসলাম মাইক্রোবাস পেলেও গাড়িচালক শহীদ আর টাকা খুঁজে পাননি। বিষয়টি তিনি কারখানা কর্তৃপক্ষকে জানান। এরপর সাভার মডেল থানার পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জহিরুল ইসলামকে আটক করে।’

এদিকে চিত্রনায়ক অনন্ত জলিল সেই গাড়িচালককে ধরিয়ে দেওয়ার জন্য পুরস্কার ঘোষণা করেছেন। ফেসবুকে দেওয়া পোস্টে অনন্ত লেখেন, ‘আমার ভক্তদের কাছে আমি একটি সাহায্য চাচ্ছি। আপনারা সবাই জানেন, ১৯৯৬ সাল থেকে সাভারের হেমায়েতপুরে অবস্থিত এ জে আই গ্রুপ সুনামের সঙ্গে পরিচালিত হয়ে আসছে। আমার কারখানার এক গাড়িচালক ৫৭ লাখ টাকা গ্যাস বিল না দিয়ে পালিয়েছে। এরই মধ্যে থানায় মামলা করা হয়েছে। যে এই প্রতারককে ধরিয়ে দিতে পারবে, তাঁকে আমি নিজ হাতে পুরস্কৃত করব।’