গড়বো দেশ নিজের হাতে

মোঃ আবু বকর সিদ্দীক

» উত্তরা নিউজ | অনলাইন রিপোর্ট | সর্বশেষ আপডেট: ০৬ মে ২০২০ - ১২:১৭:১৯ অপরাহ্ন

নিঝুম রাত, ফুফিয়ে ফুফিয়ে
খোকা কাঁদে
মা আজ কতদিন যায় নি তো কাজে,
চুলা জ্বলে না, আজ দু’দিন ঘরে,
ঘরে ছিল মালিকের দেয়া কিছু পোতানো বিস্কুট খোকা খেয়েছে দিনের বেলায়,
রাতের বেলায় ক্ষুধার জ্বলায়, ঘুম আসে না চোখে।

বস্তিতে থাকে জোসনা, ছুটা কাজ করে,
মালিক বলেছ, করোনা পরিস্থিতিতে এসো না কাজে,
বস্তিতে ছিল আড্ডা, হৈচৈ, ঝগড়া,
বিবাদ সব গিয়েছে স্তব্দ হয়ে,
শিশুরা করে না খেলা
টং দোকানের কাঠিতে লাগানো হাওয়াই মিষ্টি মুখে দিয়ে।

রহিম মুন্সি বাড়ি বাড়ি গিয়ে শিশুদের আরবী পড়ায়,
শিশু দ্বীনদার হবে বলে,
ঘরে বসে নিজেই দোয়া কালাম পড়ে,
মোনাজাত করে উচ্চস্বরে, কবে এ বালাই যাবে চলে,
মাঝে মাঝেই চিৎকার দিয়ে উঠে,
মাস শেষে চলবো কি করে?

রিক্সা চালায় জালাল বেপারী, আজ হাটে পথে পথে,
কোথায় কি ত্রাণ পাওয়া যায়,
নিয়ে আসে সবার আগে,
তাকে দেখে অন্যরা, ছুটে রাস্তায়,
শূন্য হাতে ফিরে।

নাপিত নীলকান্ত রাস্তায় বটতলায় বসে,
ভাঙ্গা চেয়ার,উপরে বাশের লাঠিতে ছাতা বেঁধে,
সামনে রাখে আয়না, চিরুনী ক্ষুর, কাঁচি,কৌটায় সাবান গুলে,
এখন কাজ নেই ঘরে বসে ইশ্বরের নাম জপে,
জুতা পালিশ করে কালিপদ,
মাথায় হাত দিয়ে থাকে ঘরে বসে,
কেউ কাকেও সান্তনা দেয়ার ভাষা পায়না কো খুঁজে।

করোনার বালাই থেকে স্রষ্টা রক্ষা করো মোদের,
সরকার করছে কিন্তু সাধ্যমত
সম্পদের অপ্রতুলতা সত্যেও,
যত রকম সহায়তার উপায় আছে করছে কায়মনে।

আমাদেরও চলতে হবে স্বাস্থ্য বিধি মেনে,
মানুষের বিপদে যাদের সাধ্য আছে,
তাদেরও নামতে হবে আজ ভেদাভেদ ভুলে,
ক্রান্তিকালে একাত্তরের মতো শপথ নিয়ে,
আমরাই আবার গড়বো দেশ নিজের হাতে!!