উত্তরা নিউজ উত্তরা নিউজ
অনলাইন রিপোর্ট


গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে কাল আধাবেলা হরতাল






গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে রবিবার (৭ জুলাই) রাজধানীসহ সারাদেশে আধাবেলা (সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত) হরতাল পালন করবে বাম গণতান্ত্রিক জোট। তাদের এ কর্মসূচি সফল করতে আগের দিন শনিবার (৬ জুলাই) রাজধানীতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মশাল মিছিল করেছেন জোটের নেতাকর্মীরা।

বাম জোটের ডাকা এ হরতালে সমর্থন দিয়েছে বিএনপিসহ সরকারবিরোধী অধিকাংশ রাজনৈতিক দল। আওয়ামী লীগের সরকারের তৃতীয় মেয়াদের এটাই হবে প্রথম হরতাল।

গত ৩০ জুন গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির ঘোষণা দেওয়ার পরদিন ১ জুলাই হরতালের ডাক দেয় ৮ দলের সমন্বয়ে গঠিত বাম গণতান্ত্রিক জোট। গ্যাসের এই বাড়তি দাম ১ জুলাই থেকে কার্যকর করা হয়েছে।
বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) সব ধরনের গ্রাহক পর্যায়ে গ্যাসের দাম গড়ে ৩২ দশমিক ৮ শতাংশ বাড়িয়েছে।
বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো বলছে, অযৌক্তিকভাবে গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়েছে। সরকারের পক্ষ থেকে যে গণশুনানি হয়, সেটিও ‘তামাশায়’ পরিণত করা হয়েছে। বিরোধীদের দাবি, গ্যাস বিতরণ ও সরবরাহকারী কোম্পানিগুলো দাম বাড়ানোর পক্ষে জোরালো কোনও যুক্তি দেখাতে পারেনি।

আধাবেলার এ হরতাল সফল করতে এরই মধ্যে সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে বাম গণতান্ত্রিক জোটের শরিক দলগুলোর নেতাকর্মীরা। শনিবার (৬ জুলাই) সন্ধ্যায় প্রেস ক্লাবের সামনে বিক্ষোভ মশাল মিছিল করেন তারা। এতে জোটের নেতা জোনায়েদ সাকি, রুহিন হোসেন প্রিন্স, বজলুর রশীদ ফিরোজসহ অনেকে অংশ নেন। জানা গেছে, হরতালে পিকেটিং করতে রবিবার ভোর থেকে বাম কর্মী-সমর্থকরা রাজধানীর শাহবাগ, প্রেস ক্লাব, মোহাম্মদপুর, মিরপুর, সূত্রাপুর, পল্টনসহ বিভিন্ন এলাকায় অবস্থান নেবেন। তবে কোনও ধরনের উসকানিমূলক কর্মকাণ্ডে না জড়াতে বাম নেতারা আহ্বান জানিয়েছেন।
আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক সূত্র জানিয়েছে, হরতালে যেকোনও ধরনের নাশকতা মোকাবিলায় তাদের পর্যাপ্ত প্রস্তুতি রয়েছে।
জোটের শরিক সিপিবির প্রেসিডিয়াম সদস্য রুহিন হোসেন প্রিন্স বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমরা রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় জমায়েত হবো। নেতাকর্মীরা নিজ নিজ এলাকায় অবস্থান নেবেন। উল্লেখযোগ্য হিসেবে শাহবাগ, পল্টন, প্রেস ক্লাব, মোহাম্মদপুর, মিরপুর-১০, সূত্রাপুর, আজিমপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় জমায়েত হবেন তারা।’
জোটের আরেক শরিক গণসংহতি আন্দোলনের সহযোগী সংগঠন ছাত্র ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় নেতা সৈকত আরিফ জানান, তাদের ছাত্রসংগঠনের নেতাকর্মীরা মোহাম্মদপুর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, লালবাগ, মিরপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় উপস্থিত থাকবেন।
পুলিশবিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি সাইফুল হক বলেন, সকাল থেকে রাজধানীতে আমাদের হরতাল পালন হবে। দুপুর সাড়ে ১২টায় পল্টনে সমাপনী সমাবেশ হবে।

যেকোনও উসকানি পরিহার করে শান্তিপূর্ণ ও স্বতঃস্ফূর্তভাবে জনস্বার্থের এই হরতাল সফল করতে সবার প্রতি অনুরোধ জানান বামনেতা সাইফুল হক।
বামদের ডাকা এ হরতালে বিএনপিসহ অধিকাংশ বিরোধী রাজনৈতিক দল সমর্থন দিয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো খেলাফত মজলিস, নাগরিক ঐক্য, গণফোরাম, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (বাংলাদেশ ন্যাপ) ও এনডিপি।
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না তার সংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে হরতালের সমর্থনে সক্রিয় থাকবেন বলে জানা গেছে।
একজন বলেন,রবিবার সকালবেলা মিছিল ও পিকেটিং করবো। বামজোট ডেকেছে বলে এই হরতালকে সমর্থন দিয়েছি। আসলে এই হরতাল আমরা নিজেদের উদ্যোগে পালন করবো। আজকের (শনিবার) মশাল মিছিলেও আমাদের নেতাকর্মীরা অংশ নিয়েছিল।’

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান বলেন, হরতালের নামে কেউ যেন সড়কে বা কোথাও অপ্রীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে না পারে, সেজন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। কেউ জনজীবনে দুর্ভোগ সৃষ্টি করতে গিয়ে ফৌজদারি অপরাধ করলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
পুলিশ সূত্র জানায়, বামজোটের ডাকা হরতালের বিষয়টি বেশ গুরুত্বসহকারে নিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ। রাজধানীর পল্টন, জাতীয় প্রেস ক্লাব ও শাহবাগ এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা থাকবে। একইসঙ্গে থাকবে রায়ট কার, জলকামান। তবে পুলিশ আগ বাড়িয়ে হরতাল সমর্থনকারীদের ওপর চড়াও হবে না। পুলিশকে সতর্কতার সঙ্গে হরতাল সমর্থনকারীদের মোকাবিলা করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিএমপির একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো ছাড়াও ১৪ দলীয় জোটের পক্ষ থেকে গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ করা হয়েছে। বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেছেন, ‘বাজেট অনুমোদনের কয়েক ঘণ্টার মধ্যে গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির ঘোষণার মাধ্যমে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন সংসদকে অপমান করেছে। বাজেটে পণ্যমূল্য না বাড়ানোর যে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে, তা ভঙ্গ করা হয়েছে।’
যদিও সরকারের সড়ক ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, হরতাল ডেকে বামরা কোনও সাড়া পাবেন না। গত মঙ্গলবার এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘এ হরতালে জনগণ সাড়া দেবে না। গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির পেছনে যৌক্তিক কিছু কারণ আছে। এ নিয়ে যদি বিরোধীরা হরতাল-বিক্ষোভের ডাক দেন, তারা দিতে পারেন। কিন্তু আমার ধারণা, হরতালে তারা জনগণের সাড়া পাবেন না।’

উত্তরা নিউজ/এস,এম,জেড