উত্তরা নিউজ উত্তরা নিউজ
অনলাইন রিপোর্ট


কুরআনে বর্ণিত নেককার বান্দার বৈশিষ্ট্য






আল্লাহ তাআলার নেককার বান্দারা আল্লাহর কাছ এভাবে আহ্বান করে, ‘হে আমাদের প্রতিপালক! নিশ্চয় আমরা ঈমান গ্রহণ করেছি। ঈমানের বরকতে আমাদের মাফ করে দাও এবং দোজখের আজাব থেকেও আমাদেরকে হেফাজত কর।’

আল্লাহ পরকালে বান্দার জন্য দু’টি স্থান নির্ধারণ করেছেন। গোনাহগার বান্দার জন্য রয়েছে শাস্তির স্থান দোজখ আর নেককার বান্দার জন্য চিরস্থায়ী শান্তির স্থান জান্নাত। আল্লাহ তাআলা কুরআনে পাকে তাদের কথা উল্লেখ করে বলেন-

Quran

আয়াতের অনুবাদ

Quran

আয়াতের পরিচয় ও নাজিলের কারণ
সুরা আল-ইমরানের ১৬নং আয়াতে আল্লাহ তাআলা তাদের কথা তুলে ধরেছেন যারা নিজেদের ঈমানের স্বীকৃতির কথা তুলে ধরে আল্লাহর কাছে নিজেদের গোনাহ থেকে ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন। জাহান্নামের কঠিন আজাব থেকে মুক্তি চেয়েছেন।

অতঃপর এ সুরার ১৭নং আয়াতে সেসব নেককার বান্দার পরিচয় তুলে ধরে আল্লাহ তাআলা বলেন-

‘যারা ধৈর্যশীল, সত্যবাদী, অনুগত, দাতা এবং রাতের শেষ প্রহরে ক্ষমা প্রার্থনাকারী।’

– ধৈর্যশীল
সেব বান্দা, যারা সব ধরণের দুঃখ-কষ্ট সহ্য করেও আল্লাহর পথে (হুকুম পালনে) অবিচল থাকে।

– সত্যবাদী
সেসব বান্দা, যাদের কোনো লোভ লালসা অথবা দুঃখ কষ্ট সত্যের পথ থেকে বিচ্যুত করতে পারে না। যারা তাদের কথা, কাজ, নিয়ত এবং উদ্দেশ্যে সততার পরিচয় দেয়।

– অনুগত
যারা মহান আল্লাহর প্রতি সব সময় অনুগত থাকে। পাপাচার থেকেও বিরত থাকে।

– দাতা
যারা নিঃস্বার্থভাবে আল্লাহ তাআলার পথে অর্থ-সম্পদ ব্যয় করে।

– ক্ষমাপ্রার্থী
যারা রাতের শেষ প্রহরে আল্লাহ তাআলার দরবারে ক্ষমাপ্রার্থী হয়। শেষ রাতে শয্যা ত্যাগ করে ঘুম থেকে ওঠে আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করা অনেক কঠিন কাজ। সত্যিকার অর্থে রাতের শেষ প্রহরে ক্ষমা প্রার্থীরাই আল্লাহর প্রিয় বান্দা।

কুরআনের এ আয়াত মুমিন মুসলমানকে ধৈর্যশীল, সত্যবাদী, দাতা ও ক্ষমাপ্রার্থী হওয়ার তাগিদ দেয়। সারা জীবন ইবাদত-বন্দেগি করে বিপদে ধৈর্যশীল, সততা, দান ও ক্ষমা থেকে বিরত থাকলেও আল্লাহর হক আদায় হবে না।

মুমিনের উচিত, মুসিবতে ধৈর্যশীল হওয়া, চরম লোভ-লালসায় সততা অবলম্বন করা, অভাব-অনটনেও দান করা এবং চরম কষ্ট স্বীকার করে শেষ রাতে আল্লাহর ইবাদতে নিজেকে নিয়োজিত করা। তবেই নেককার বান্দা হিসেবে মানুষের প্রতি আল্লাহর রহমত লাভের আশা করা যায়।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে দুনিয়ায় কুরআনে বর্ণিত উল্লেখিত গুণগুলো অর্জনের মাধ্যমে পরকালের চিরস্থায়ী সফলতা লাভের তাওফিক দান করুন। নেককার বান্দা হিসেবে কবুল করুন। আমিন।