কালীগঞ্জ সরকারী হাসপাতালে সঠিক চিকিৎসার অভাবে রোগী মৃত্যুর অভিযোগ; হাসপাতালে স্বজনদের ভাঙচুর


» কামরুল হাসান রনি | ডেস্ক ইনচার্জ | | সর্বশেষ আপডেট: ১৪ জানুয়ারি ২০২০ - ০৫:৩১:৫৪ অপরাহ্ন

কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি: হাসপাতাল থেকে প্রকৃত চিকিৎসা না পেয়ে ঢাকা নেওয়ার পথে রোগী মারা যাওয়ায় রোগীর স্বজনরা হাসপাতালে গিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

আজ ১৪ জানুয়ারী মঙ্গলবার দুপুর বারোটা ৪৩ মিনিটে কালীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভেতরে এই হামলার ঘটনাটি ঘটেছে। নিহত মো. মোবারক হোসেন (৩০) গাজীপুর জেলার কালীগঞ্জ পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ড বড়নগর গ্রামের মো. মোজাম্মেল হকের ছেলে।

হাসপাতাল থেকে প্রকৃত চিকিৎসা পায়নি তাই স্বজনরা এই হামলা চালিয়েছে বলে নিহতের পরিবারের লোকজন দাবি করেন। তবে হাসপাতালের চিকিৎসক ও কর্তৃপক্ষরা দাবি করেন তারা রোগীকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দিয়েছেন।

নিহতের পরিবার, প্রত্যক্ষদর্শী ও হাসপাতালের কর্তৃপক্ষ থেকে জানা যায়, বুকের ব্যথা উঠলে মো. মোবারক হোসেন নামে এক যুবককে তার স্বজনরা কালীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রোর জরুরি বিভাগে নিয়ে আসেন সকাল পৌনে ৯টার দিকে। জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক মুশফিক-উস সালেহীন ওই রোগীকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন এবং তার ইসিজি করান। ইসিজির রিপোর্টের পর তাকে কিছু ঔষধ দেন। ঘন্টাখানেক পর ওই রোগীর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তখন রোগীকে জরুরি বিভাগের বেডে বসিয়ে গ্যাস স্প্রে দেওয়া হয়।

হঠাৎ মোবারক বেড থেকে নিচে পড়ে যায়। তার নাক মুখ দিয়ে রক্ত বের হতে থাকে এবং রক্ত বমি করে। চিকিৎসক তাকে দ্রুত গাজীপুর হাসপাতালে নেয়ার জন্য রোগীর স্বজনদের অনুরোধ করেন।

পরে স্বজনরা বাইরে থেকে অ্যাম্বুলেন্স এনে ঢাকা হাসপাতালে নেয়ার পথে পূবাইল থানার মীরেরবাজার পৌছলে রোগীর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে তালটিয়া এলাকায় করমতলা খ্রিষ্টান হাসপাতালে স্বজনরা নিয়ে যান। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক মোবারক মারা গেছেন বলে জানান।

পরে ১২:৪৩ মিনিটে অ্যাম্বুলেন্সযোগে লাশ নিয়ে মোবারকের স্বজনরা কালীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে হাসপাতালের ভেতর ঢুকে ভাঙচুর চালায়। হামলার সময় হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা আতঙ্কিত হয়ে পড়ে।

কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. ছাদেকুর রহমান আকন্দ বলেন ঘটনার পরে তিনি জানতে পারেন সকালে বুকে ব্যথা নিয়ে বড়নগর গ্রামের মোবারক হোসেন নামে এক রোগীকে তার স্বজনরা হাসপাতালে নিয়ে আসে। জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক মুশফিক-উস সালেহীন তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য রোগীকে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। রোগীর স্বজনরা কোনো ধরনের অভিযোগ না করে হাসপাতালে এসে ব্যাপক ভাঙচুর চালায়।

বেলা পৌনে ১টার দিকে রোগীর স্বজনরা কেউ কিছু না বলে হাসপাতালের ভেতর ঢুকে ভাঙচুর চালায়। এই ব্যাপারে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. ছাদেকুর রহমান আকন্দ বাদী হয়ে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।