কালীগঞ্জে ঘরে ঢুকে গলা কেটে এক মহিলাকে হত্যা


» মোহাম্মদ আব্দুর রহমান | কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি | | সর্বশেষ আপডেট: ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ - ০৯:১৬:০৭ অপরাহ্ন

গাজীপুরের কালীগঞ্জে ঘরে ঢুকে তিন সন্তানের জননী এক মহিলাকে ছুরি দিয়ে গলা কেটে হত্যা করেছে দূর্বৃত্তরা। রবিবার সকালে কালিগঞ্জ উপজেলার নাগরী ইউনিয়নের উলুখোলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহতের নাম বেরোনিকা রোজারিও (৫০)। তিনি ওই গ্রামের মৃত সমীর রোজারিওর স্ত্রী। নিহত বেরোনিকা রোজারিও নাগরী এলাকায় মঠবাড়ি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে আয়ার কাজ করতেন। খবর পেয়ে সোমবার সকালে গাজীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গোলাম সবুর ও কালিগঞ্জ থানার ওসি একেএম মিজানুল হক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে ওসি একেএম মিজানুল হক জানান, নিহত ওই নারী মঠবাড়ি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে আয়ার কাজ করার সুবাদে প্রত্যাহ পাশের বাড়ির কয়েকজন মেয়েকে তার সঙ্গে করে স্কুলে পাঠাতেন অভিভাবকরা। প্রতিদিনের ন্যায় সোমববার সকালে বেরোনিকার বাড়িতে যায় দু’জন শিক্ষার্থী। এ সময় ছাত্রীরা ঘরের দরজা খোলা পেয়ে মাসি মাসি বলে ঘরের ভিতরে ঢুকতেই বেরোনিকার রক্তাক্ত মরদেহ ঘরের খাটের উপর পড়ে থাকতে দেখে। পরে ওই ছাত্রীদের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে আসে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের লাশ সুরতহাল করে ময়না তদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

স্থানীয় উলুখোলা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই রূপন চন্দ্র সরকার জানান, বেরোনিকা রোজারিও বাড়িতে একা থাকতেন। তার তিন মেয়ে রয়েছে। এদের একজন টঙ্গীর পাগার এলাকায় ও বাকী দুইজন চট্টগ্রামে চাকুরী করেন। নিহতের গলায় দুই হাতের আঙ্গুলে ধারালো অস্ত্রের একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে তাকে প্রথমে শ্বাসরোধে হত্যার পর ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে মৃত্যু নিশ্চিত করেছে খুনিরা।

গাজীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গোলাম সবুর জানান, নিহত বেরোনিকা রোজারিও একাই ওই বাড়িতে বসবাস করতেন। প্রায় ১০ বছর আগে তার স্বামী মারা যায়। কি কারণে, কারা তাকে হত্যা করেছে তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। নিহতের বাসা থেকে কোন জিনিস খোয়া যায়নি। সবাইকে ভিতরে প্রবেশ করতে দিলে ও দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত সাংবাদিকদের কাউকেই ঘটনাস্থলে ঢুকতে দেয়া হয়নি।