করোনার মাঝেও অন্যরকম লড়াইয়ে ইংল্যান্ডের ক্লাবগুলো


» কামরুল হাসান রনি | ডেস্ক ইনচার্জ | | সর্বশেষ আপডেট: ২৫ মার্চ ২০২০ - ১১:৪২:৫৮ পূর্বাহ্ন

ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবল স্থগিত হয়ে আছে অনির্দিষ্টকালীন সময়ের জন্য। ফলে মাঠের খেলা আপাতত বন্ধ থাকলেও, থেমে নেই মাঠের বাইরের খেলা। ইংল্যান্ডের শীর্ষস্থানীয় ক্লাবগুলো একজোট হয়ে নেমেছে বর্তমান লিগ চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটির বিপক্ষে।

গত মাসে উয়েফার ‘ফাইনান্সিয়াল ফেয়ার প্লে’ আইন ভঙ্গ করায় কঠোর শাস্তি পেয়েছে ম্যান সিটি। দুই বছরের জন্য তাদের নিষিদ্ধ করা হয়েছে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে, জরিমানা করা হয়েছে আড়াই কোটি পাউন্ড (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় আড়াইশ কোটি টাকা)।

স্বাভাবিকভাবেই এ শাস্তি কমানোর জন্য আবেদন করেছে ইংল্যান্ডের ধনী এ ক্লাবটি। কিন্তু অন্যান্য ইংলিশ ক্লাবগুলো কিছুতেই চায় না, এ লড়াইয়ে জিতে যাক ম্যান সিটি। প্রিমিয়ার লিগের শীর্ষ দশ ক্লাবের মধ্যে আটটিই সরাসরি যোগ দিয়েছে সিটিজেনদের বিপক্ষে এ যুদ্ধে।

টেবিলের সেরা দশে থাকা ক্লাবগুলোর মধ্যে শুধুমাত্র শেফিল্ড ইউনাইটেড যোগ দেয়নি অন্যান্য ক্লাবগুলোর সঙ্গে। এছাড়া লিভারপুল, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, চেলসি, আর্সেনাল, টটেনহ্যাম হটস্পারের মতো ক্লাবগুলো একজোট হয়ে একটি যৌথ আবেদন করেছে ক্রীড়াঙ্গনের সালিসি আদালতে। যাতে করে কিছুতেই শাস্তি না কমে ম্যান সিটির।

ডেইলি মেইলের প্রতিবেদন অনুযায়ী, দীর্ঘদিনের চাপা ক্ষোভের কারণেই এভাবে একজোট হয়েছে ক্লাবগুলো। গত কয়েকবছর ধরেই টানা ‘ফাইনান্সিয়াল ফেয়ার প্লে’ আইন ভঙ্গ করে আসছে ম্যান সিটি। এবার যেহেতু তাদের শাস্তি দেয়া হয়েছে, সেটি বহাল রাখার জন্যই মূলত অন্যরকম লড়াইয়ে নেমেছে ক্লাবগুলো।

এই ঐক্যজোটের এক সুত্র জানিয়েছে, ‘আমাদের অনুভব হলো, অনেক হয়েছে, আর নয়। অনেকদিন ধরেই এসব আইন ভঙ্গ করে পার পেয়ে যাচ্ছিলো ম্যান সিটি। ফলে চ্যাম্পিয়নস লিগ খেলার যোগ্যতা থাকার পরেও একটি ক্লাব বঞ্চিত হচ্ছিলো। তবে ভয়টা হলো, এবারও তারা (ম্যান সিটি) শাস্তি কমাতে সফল হবে। আর তা যদি হয় তাহলে এর পরিণতি ভয়াবহ হতে যাচ্ছে।’

সূত্র: ডেইলি মেইল