করোনার উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ছাত্রদের প্রতি আহবান


» শিপার মাহমুদ (জুম্মান) | স্টাফ রিপোর্টার, উত্তরা নিউজ | সর্বশেষ আপডেট: ২৫ জুন ২০২০ - ১২:২৮:৪৫ অপরাহ্ন

প্রিয় ছাত্র-ভাইয়েরা!
করোনা ভাইরাসের প্রভাব সমাজের প্রতিটি রন্ধে-রন্ধে পরেছে। বিশেষ করে তোমাদের তালিম ও তরবীয়তের ক্ষেত্রে এর প্রভাব খুবই ভয়ংকর আকার ধারণ করছে, তাই এই মুহূর্তে তোমাদের করণীয় সম্পর্কে কতিপয় পরামর্শ তুলে ধরা হলো:

 

তালিমের ক্ষেত্রে নিম্নোক্ত বিষয়গুলো পালনীয়-

  • ২৪ ঘন্টার নেজামুল আওকাত (রুটিন ) তৈরী করে সে অনুযায়ী চলবে।
  • হিফয ও নাজেরা বিভাগের ছাত্ররা নিয়মিত সবক ইয়াদ করে নিজ-নিজ উস্তাদ বা এলাকার মসজিদের ইমাম বা মুয়াজ্জিন সাহেব অথবা পরিচিত কোন আলেমের কাছে প্রতিদিন রুটিন অনুযায়ী সবক শুনাবে।
  • কিতাব বিভাগের ছাত্ররা নিজ-নিজ জামাতের কিতাব সংগ্রহ করে কিতাবের মোকাদ্দামা মুতায়ালা করবে।
  • যাঁরা তরজমাতুল কুরআন পড়েছো তাঁরা প্রতিদিন উল্লেখযোগ্য অংশ পড়বে।
  • যাঁরা হাদিসের কিতাব পড়েছো তারা প্রতিদিন কিছু হাদিস অর্থসহ মুখস্থ করবে।
  • যাদের নাহু, সরফের দূর্বলতা রয়েছে তারা অবশ্যই এ দূর্বলতা কে দূর করার আপ্রাণ চেষ্টা করবে।
  • আরবী, বাংলা ও উর্দূ হস্তলিপি সুন্দর করা ও বিশুদ্ধ বানান শেখার অনুশীলন করবে।
  • প্রত্যেক ছাত্র নিজ-নিজ মাদ্রাসার নেগরান উস্তাদের সাথে বা এলাকায় অবস্থানরত কোনো যোগ্য আলেমের সাথে যোগাযোগ রাখবে।

 

তরবীয়ত তথা আমলের ক্ষেত্রে নিম্নোক্ত বিষয়গুলো পালনীয় ও বর্জনীয়-

  • পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামাতের সাথে আদায় করবে।
  • তাহাজ্জুদ, আওয়াবিন, ইশরাক্বসহ অন্যান্য নফল নামাজের প্রতি যত্নশীল হবে।
  • নিয়মিত কুরআন শরীফ তিলাওয়াত করবে।
  • তওবা ও ইস্তেগফার জারি রাখবে।
  • উম্মতের কান্ডারী হিসেবে করোনা ভাইরাস থেকে উম্মতের মুক্তি ও মাগফেরাতের জন্য আহাজারি-রোনাজারি করবে।
  • প্রতি দিন কবর যিয়ারত করবে।
  • নিয়মিত আকাবীরদের জীবনী মুতায়ালা করবে।
  • মা- বাবাসহ পরিবারের বড়দের প্রতি শ্রদ্ধা ও তাদের খেদমত করবে এবং ছোটদের প্রতি স্নেহশীল হয়ে তাদেরকে লেখা পড়ায় ব্যস্ত রাখবে।
  • এলাকায় অবস্থানরত আলেম-উলামা ও ছাত্রভাইদের সাথে সম্পর্ক রাখবে।
  • ফেইসবুক, ইউটিউব ব্যবহার পরিহার করবে।
  • বেশি ঘুম, বেশি খাওয়া ও বেশি গল্প-গুজব এবং বন্ধু বান্ধবের সাথে আড্ডা দেওয়া থেকে বিরত থাকবে।
    অলসতা উদাসীনতা বর্জন করবে।
  • সকল প্রকার গোনাহ থেকে নিজকে হেফাজত করার চেষ্টা ও দোয়া করবে।

(আল্লাহহী তাওফিক-দাতা মদদগার)।

আল্লামা মহসিনুল করিম কাসেমী

শায়খুল হাদিস: জামেয়া মোহাম্মদীয়া, বনানী-ঢাকা।