করোনাভাইরাস ইস্যুতে সর্বমহলে প্রশংসিত চরমোনাই পীর ও তাঁর সংগঠন


» উত্তরা নিউজ ডেস্ক জি.এম.টি | | সর্বশেষ আপডেট: ০৭ এপ্রিল ২০২০ - ০৭:১৯:১৭ অপরাহ্ন

করোনাভাইরাস ইস্যুতে দেশব্যাপি সরব চরমোনাই পীর ও তাঁর সংগঠন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ।দেশব্যাপি অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর আমির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করিম পীর সাহেব চরমোনাই। সোশ্যাল মিডিয়ায় সর্বমহলের কাছে প্রশংসিত হয়েছে পীর সাহেব চরমোনাইর নেতৃ্ত্বাধীন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ও সহযোগি সংগঠন গুলোর কার্যক্রম।

বরিশাল জেলায় পীর সাহেব চরমোনাই ও শায়েখে চরমোনাই মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করিম নিজ হাতে দরিদ্র ও অসহায় মানুষের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী তুলে দেন। সাংবাদিক,ডাক্তার,পুলিশ এর মাঝে পিপিই, মাস্ক,হ্যানাডগ্লাফস প্রদান করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ।ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর পাশাপাশি দেশব্যাপি অসহায় দরিদ্র মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করছেন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন ইসলামী যুব আন্দোলন, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন,ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনসহ বিভিন্ন সংগঠন।ইসলাম,দেশ,মানবতা ও স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি হিসেবে বার বার প্রমাণ দিচ্ছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আন্তর্জাতিক সংস্থার সাহায্য সহযোগিতার পরের অবস্থানে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ শতাধিক নলকূপ, মসজিদ ও টয়লেট নির্মাণ করেছে।প্রায় তিন বছর ধরে সাহায্য সহযোগিতা অব্যাহত রেখেছে দলটি। ১৯৮৭ সালে ১৩ মার্চ প্রতিষ্টিত হয় ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ।প্রতিষ্টার পর থেকে ইসলাম,দেশ,মানবতা ও স্বাধীনতার পক্ষে কাজ করে যাচ্ছে।নিজেদের আদর্শ বিসর্জন দিয়ে নিছক ক্ষমতার লোভে কোন জোট মহাজোটে যোগ দেয়নি।

ক্ষমতার লোভে তাঁবেদারি করেনি কোন ইসলাম বিদ্বেষী শক্তির কাছে।যে কোন দুর্যোগে দলটি অগ্রনী ভূমিকা সর্বমহলে প্রশংসিত।আমিরের অনুগত নিবেদিতপ্রাণ নেতা কর্মীদের নিরলস পরিশ্রমে দলটি দিন দিন গণ মানুষের কাছে প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠছে।জ্যামিতিকহারে বাড়ছে জন সমর্থন ও কর্মী। করোনাভাইরাস ইস্যুতে শুরু থেকেই অসহায় ও দরিদ্র মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করে আসছে দলটি।দলটির কার্যক্রম গোছালো,কর্মসূচি সময়োপযোগী, সাংগঠনিক কাজ সৃজনশীল ও গঠনমূলক হওয়ার কারণে সহজেই যে কাউকে অাকর্ষণ করে।নির্বাচনে বাড়ছে তাদের ভোটের অংক।

জাতীয় পার্টির চেয়ে পাঁচ ছয়গুন ভো বেশি পেয়ে জনতাকে চমকে দিচ্ছে দলটি।একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনশ আসনে নির্বাচন করে চমক দেখিয়েছে দলটি। বিভিন্ন জেলায় দলটির নির্বাচিত প্রতিনিধগন অসহায় ও দরিদ্র মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ত্রাণ পৌছে দিচ্ছে।এমনই একজন জনপ্রতিনিধি কার্যক্রম উঠে আসে জাতীয় দৈনিক” কালের কণ্ঠ” পত্রিকায়।তিনি হলেন লক্ষীপুর জেলার কমলনগর উপজেলার চরকাদিয়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ।

তিনি ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর হাতপাখা নিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।কালের কণ্ঠের শিরোনাম ছিল” ইবাদত মনে করে অসহায় মানুষে কাছে সহযোগিতা বাড়ি বাড়ি পৌছে দেন।

দেশব্যাপি হাতপাখা নিয়ে নির্বাচিত জন প্রতিনিধগন বার বার মানবতার পরিচয় দিচ্ছেন।কেন্দ্র থেকে তৃণমূলের সব নেতা কর্মীরা সাধ্যানুযায়ী অসহায় ও দরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে।

সব শ্রেণি পেশার মানুষ আজ পীর সাহেব চরমোনাই ও তাঁর সংগঠনের প্রশংসায় প্রপঞ্চ। তা স্বর্থেও কিছু হিংসুক ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর কঠিন ও উলঙ্গ সমালোচনা করছে।অথচ তারা অাদৌ জনগনের পাশে দাঁড়াতে পারেনি।তাদের কাজই হল অন্যের কাজে সমালোচনার মাধ্যমে বাধা সৃষ্টি করা।ঠুনকো বিষয়ে সমালোচনা করা রাজনৈতিক কৃষ্টি হতে পারে না।সমালোচনা রাজনীতির অংশ।

তাই বলে উলঙ্গ সমালোচনা রাজনৈতি সংস্কৃতি হতে পারে।যাই হোক পীর সাহেব চরমোনাই ও তাঁর দল প্রশংসার দাবিদার। লেখকঃনুর আহমদ সিদ্দিকী