উত্তরা নিউজ উত্তরা নিউজ
অনলাইন রিপোর্ট


এডিস মশা নির্মূলে ডিএনসিসির ‘চিরুনি অভিযান’ ও ভ্রাম্যমাণ আদালত অব্যাহত






এডিস মশা নির্মূলে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) চলমান ‘এডিস মশা ধ্বংসকরণ ও বিশেষ পরিচ্ছন্নতা অভিযান’ অর্থাৎ ‘চিরুনি অভিযান’ ও ভ্রাম্যমাণ আদালত অব্যাহত রয়েছে।

পরিচ্ছন্নতা ও মশক নিধনকর্মীগণ আজ চিরুনি অভিযানের চতুর্থ দিনে ডিএনসিসির ৩৬টি ওয়ার্ডে ১০ হাজার ৫৭৮টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে মোট ২২৫টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা খুঁজে পায়। লার্ভা পাওয়া এ সব বাড়ি ও স্থাপনায় ‘এ বাড়ি/স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায়’ লেখা স্টিকার লাগানো হয়। এ ছাড়া ৬ হাজার ৩১৬টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার বংশবিস্তার উপযোগী স্থান/জমে থাকা পানি পাওয়া যায়। এডিস মশার বংশবিস্তারের উপযোগী এ সকল স্থান ধ্বংস করা হয়। প্রতিটি ওয়ার্ডের সংশ্লিষ্ট কাউন্সিলরগণ ‘চিরুনি অভিযান’ সক্রিয়ভাবে তত্বাবধান করছেন।

গত ২৫ আগস্ট থেকে ৪দিনে ৩৬টি ওয়ার্ডে সর্বমোট ৪২ হাজার ৪৯৪টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে মোট ১ হাজার ২৯টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা খুঁজে পাওয়া যায়। এ ছাড়া ২১ হাজার ১৩৫টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার বংশবিস্তার উপযোগী স্থান/জমে থাকা পানি পাওয়া যায়।

বেইজমেন্টে এডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় স্থানীয় সরকার (সিটি কর্পোরেশন) আইন, ২০০৯ অনুযায়ী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মীর নাহিদ আহসান ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে মগবাজারে ‘বিশাল প্লাজা’র প্রতিনিধিকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এ ছাড়া সড়ক দখল করে নির্মাণ সামগ্রী রাখায় হাউজিং কোম্পানি ‘বিটিআই’ এর প্রতিনিধিকে ২ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়।

উত্তরায় একই অপরাধে স্থানীয় সরকার (সিটি কর্পোরেশন) আইন, ২০০৯ অনুযায়ী নির্বাহী ম্যজিস্ট্রেট জুলকার নায়ন ২টি অটোমোবাইল গ্যারাজকে মোট ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

এডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় স্থানীয় সরকার (সিটি কর্পোরেশন) আইন, ২০০৯ অনুযায়ী গুলশানে নির্মাণাধীন ভবন ‘বে ডেভেলাপারস’ এর প্রতিনিধিকে নির্বাহী ম্যজিস্ট্রেট সাজিদ আনোয়ার ৫ লক্ষ টাকা জরিমানা করেন।

ডিএনসিসির ‘চিরুনি অভিযান’ ও ভ্রাম্যমাণ আদালত অব্যাহত থাকবে।

উত্তরা নিউজ/এস,এম,জেড